অন্যদের জন্য অনুকরণীয় হতে পারে কুমিরা ইউনিয়নের উন্নয়নমুখি কার্যক্রম


প্রকাশিত : July 17, 2012 ||

পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি : তালা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী কুমিরা একটি প্রক্রিয়াধীন সফল ইউনিয়ন। সকল বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে জনগণের সার্বিক সহায়তা এবং নির্বাচনী ওয়াদা পূরণের লক্ষ্যে সফলতা নিয়ে জেলায় মডেল ইউনিয়ন হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। ইউপি চেয়ারম্যান শেখ গোলাম মোস্তফার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ইউনিয়নের প্রতিটি নাগরিক স্বনির্ভর হতে চলেছে। উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ডে সক্রিয় অবদান, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতায় এ ইউনিয়নকে সুস্থ মাতৃত্ব বিকাশে বিশেষ অবদান রাখায় মডেল ঘোষণা হয়েছে। ২০১৫ সালের মধ্যে সকল নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন হবে বলে চেয়ারম্যান দৃঢ়তার সাথে ব্যক্ত করেছেন। ১৯ বর্গ মাইলের ১৬টি গ্রাম নিয়ে ১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এ ইউনিয়ন পরিষদ। বিগত ২০০৩ সালে প্রথমবার বিপুল ভোটের ব্যবধানে গোলাম মোস্তফা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। এরপর অবহেলিত ইউনিয়নের দায়িত্ব গ্রহণের মাধ্যমে দীর্ঘ ৮ বছর নানা প্রতিকূলতার মধ্যদিয়ে জনগণের দেয়া দায়িত্ব পালনে নিরলসভাবে কাজ করেছেন তিনি। গত ২০১১ সালের ৩ এপ্রিল পুনরায় ৫৫৫৮ ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি নির্বাচনী প্রাক্কালে ইউনিয়নকে মডেল হিসেবে গড়ে তোলার যে প্রতিশ্র“তি দিয়েছিলেন, তা বাস্তবায়ন হতে চলেছে। চেয়ারম্যান সকল বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে ইউনিয়নকে ধাপে ধাপে এগিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছেন। তালা উপজেলার সদর থেকে উত্তর পশ্চিমে ১৫ কিলোমিটার দূরে ইতিহাস ঐতিহ্য নিয়ে ৪নং কুমিরা ইউনিয়নের অবস্থান। এ ইউনিয়নের অধিকাংশ মানুষ কৃষির উপর নির্ভরশীল। তাই কৃষি ক্ষেত্রে বিপ¬ব ঘটানোর লক্ষ্যে আধুনিক চাষাবাদে চাষীদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ফসলের পরিচর্যা, সময় মত সার ও ঔষধ প্রয়োগ, সচেতনতা বৃদ্ধিতে সার্বিকভাবে কৃষকদের সহায়তা প্রদান করে আসছেন। চলতি বছরের ২৭ জুন ২০১২-১৩ অর্থ বছরে ৫৪,৩২,২০০ টাকার বাজেট ঘোষণা করেন চেয়ারম্যান শেখ গোলাম মোস্তফা। ইতিমধ্যে তিনি ইউনিয়নকে মডেল ঘোষণার পাশাপাশি ১১ জুলাই বিশ্ব জনসংখ্যা দিবসে শ্রেষ্ঠ ইউনিয়ন হিসেবে স্বীকৃতি প্রাপ্ত হন। এছাড়া এফডবি¬উভি এবং এফডবি¬উসি প্রকল্পে অগ্রণী ভূমিকা রাখায় উপজেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ব লাভ করেন। গত ২৬ এপ্রিল পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণাালয় ও জাইকার উদ্যোগে সুস্থ মাতৃত্বে উপর বিশেষ অবদান রাখায় মডেল ইউনিয়ন হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। ইউনিয়নটিতে ভোটার সংখ্যা ১৫ হাজার ৩শ ৪৬ জন, এর মধ্যে পুরুষ ৭ হাজার, ৭শ ৫৫ জন এবং মহিলা ৭ হাজার ৫শ ৯১ জন।

ইউনিয়েনর পক্ষ থেকে যৌতুক ও বাল্যবিবাহ প্রথার বিরুদ্ধে বিভিন্নভাবে জনসচেতনতামূলক প্রচার অব্যাহত রয়েছে। প্রতিটি এলাকার ছেলে মেয়েদের স্কুল গমন নিশ্চিত করতে তাগিদ দেয়া, হতদরিদ্র মহিলাদের আত্মনির্ভরশীল হতে নানা মুখি প্রশিক্ষণ প্রদান, ইউপির সকল নাগরিকের কাছ থেকে শতভাগ ট্যাক্স আদায়, শতভাগ স্যানিটেশন কভারেজ, শতভাগ জন্ম নিবন্ধনসহ বেকার যুবকদের স্বাবলম্বী করতে প্রশিক্ষণ প্রদানের পাশাপাশি প্রতিটি বাড়িতে ফলজ ও বনজ গাছের চারা রোপনের তাগিদ, নারী নির্যাতন ও এসিড সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জনমত গঠনসহ জনসম্মুখে উন্নয়নমূলক কাজের জবাবদিহিতার প্রক্রিয়া চলছে। ইতোপূর্বে এ সকল সামাজিক আন্দোলন দেখতে দেশের খ্যাতিমান ব্যক্তি ও বিদেশি প্রতিনিধি দল ইউনিয়ন পরিষদ সফর করেছেন। সফরকারী প্রতিটি দল চেয়ারম্যানের অন্যান্য দৃষ্টান্তের ভূয়সী প্রসংশা করেছেন। ইউপি চেয়ারম্যান শালিস বিচারে কারো দ্বারা প্রভাবিত না হয়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখছেন। ইউনিয়নের বাস্তবভিত্তিক কর্মকাণ্ড দেখে গত ১০ জুলাই ছবিসহ ভোটার তালিকা হালনাগাদ প্রকল্প পরিদর্শনে আসা নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব মোঃ সিরাজুল ইসলাম ইউপির পরিদর্শন বইয়ে প্রশংসনীয় কর্মকাণ্ডের কথা লিপিবদ্ধ করেন। এসকল বিষয়ে চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা বলেন, জনগণ উৎসাহিত হয়ে সার্বিক সহযোগিতা করায় তিনি দারুণ খুশি। তিনি আসা করেন, একটি কুমিরা হবে এশটি স্বপ্নের মডেল ইউপি। যেখানে থাকবে সুখ-শন্তি আর নাগরিক সুযোগ সুবিধা প্রাপ্তির পুরোপুরি সুযোগ।