২০ বছরের তরুনকে স্বামী দাবি করলো ৪৫ বছরের বিধবা


প্রকাশিত : আগস্ট ৪, ২০১২ ||

আটুলিয়া (শ্যামনগর) প্রতিনিধি: আটুলিয়া ইউনিয়নের ছোটকুপট গ্রামের ৪৫ বছরের এক নারী স্বামী দাবি  করেছে ২০ বছরের তরুনকে। বিষয়টি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার ইউপি চেয়ারম্যান ডাঃ আব্দুল হামিদের কার্যালয়ে বিচার  হয়।

জানা যায় মোছাঃ মর্জিনা খাতুন(৪৫), স্বামী মৃতঃ মকবুল গাজী, গ্রাম ছোটকুপট আটুলিয়া তার পার্শ্ববর্তী গ্রামের মোঃ আবুল মালীর পুত্র দশম শ্রেনীর ছ্ত্রা মোঃ মিয়ারাজ হোসেন(১৬)কে তার ভূয়া কাগজের মাধ্যমে স্বামী হিসেবে দাবী করে। বিচারকদের জেরার মুখে মর্জিনা খাতুন বিবাহের কাগজে তার সহি নিজের করা না বলে জানায়। বিবাহের কাগজে আবু হাসান কন্যা পক্ষের উকিল ও ৩ জন স্বাক্ষী থাকলেও বাস্তবে তার কোন প্রমাণ মেলেনি। সে তার স্বীকারোক্তিতে আরো জানায় নওয়াবেঁকী গ্রামের ছফেদা নামক একজন মহিলার প্ররোচনায় সে উক্ত কাজটি করেছে। সে আরো জানায় ছফেদা তার কাছ থেকে বেশ কিছু টাকাও নিয়েছে। বিচার স্থলে স্থানীয় ইউপি সদস্যরা ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিদের সামনে সে বিশেষ কোন প্রমাণ দিতে পারিনি। তার বিবাহের যে কাগজ দেখিয়েছে তাতে গত ১২/০১/২০১২ ই্ং তারিখে সাতক্ষীরার পলাশপোল কাজী অফিস থেকে বিবাহ হয়েছে প্রমাণ হলেও বিবাহের কাগজটি ভূয়া বলে স্থানীয়দের সামনে প্রমাণ হয়। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় হাসির খোরাক সৃষ্টি হয়েছে। এলাকাবাসী রমজান মাসে এত বড় প্রতারণার বিষয়টি কোন অবস্থাতে মেনে নিতে পারছে না।