জেলার প্রতিটি উপজেলা ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধে কমিটি হচ্ছে


প্রকাশিত : March 9, 2013 ||

পত্রদূত রির্পোট: জেলার প্রতিটি উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধে কমিটি হচ্ছে। আগামী এক সপ্তাহর মধ্যে সকল পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হবে। গতকাল জেলা প্রশাসক ড. মু: আনোয়ার হোসেন হাওলাদারের সভাপতিত্বে জেলা কমিটি গঠন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মো: আসাদুজ্জামান, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, জেলা প্রথামিক শিক্ষা সমিতির সাধারণ সম্পাদক চায়না ব্যানার্জি, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সাধারণ সম্পাদক মোজাফ্ফর রহমান, জেলা মন্দির সমিতির সভাপতি বিশ্বনাথ ঘোষ, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান এসএম শওকত হোসেন, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি বিশ্বজিৎ সাধু, বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতির সভাপতি আব্দুর রহমান, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শেখ নিজাম উদ্দিন প্রমুখ।
সভায় জেলা পরিষদের প্রশাসক মুনসুর আহমেদসহ বিজিবি, র্যাবের কর্মকর্তা, প্রশাসনের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা, শহরের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
সভায় জেলা প্রশাসক ড. মু: আনোয়ার হোসেন হাওলদার বলেন, গত কয়েক দিন যাবৎ যে সমস্ত ঘটনা সংঘটিত হয়েছে তাতে সাধারণ মানুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে অপপ্রচার ছড়িয়ে হিংসার সৃষ্টি করা হয়েছে। সরকারি সম্পত্তি ধ্বংস করা হয়েছে। সাধারণ মানুষের সম্পদ নষ্ট করা হয়েছে। তারপরও আমরা ধৈয্য ধরেছি। যা কিছু হয়েছে জনগণের জান মালের ও সরকারি সম্পত্তি রক্ষা করার জন্য আমরা করতে বাধ্য হয়েছি। যারা দেশ বাসীকে এই সহিংসতায় ঠেলে দিয়েছে তাদের কোন রাজনৈতিক আদর্শ নেই। তারা ধর্মকে ব্যবহার করে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। এজন্য জন সচেতনা সৃষ্টি করতে হবে। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এ সিদ্ধান্তের মধ্যে রয়েছে স্কুল কলেজ মাদ্রাসার সাথে যুক্ত শিক্ষকদের নিয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগ বৈঠক করবেন। বিভিন্ন এলাকায় সমাবেশ করা হবে। যে সমস্ত মানুষের সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তারা মামলা দায়ের করবেন। যারা মসজিদের মাইক সন্ত্রাসী তৎপরতায় ব্যবহার করছে সেগুলো বন্ধ করা হবে। স্কুল-মাদ্রাসার যে সমস্থ শিক্ষকরা এই কর্মকাণ্ডের সাথে যুক্ত আছেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।