সুন্দরবনে র‌্যাব-৮ এর অভিযানে অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ দুই দস্যু গ্রেপ্তার


প্রকাশিত : মার্চ ১৭, ২০১৭ ||

শ্যামনগর (সদর) প্রতিনিধি: পশ্চিম সুন্দরবনের গহিনে র‌্যাব-৮ এর অভিযানে বনদস্যু কবিরাজ বাহিনীর দুই সদস্যকে অস্ত্র ও গোলাবারুদ সহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে সুন্দরবনে পশুর নদীস্থ চারাখালী খাল এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো-বাগেরহাট জেলার মংলা থানার আমড়াতলা গ্রামে আজিজ শেখের ছেলে সহিদুল শেখ (২২) এবং একই জেলার ফকিরহাট থানার লকপুর গ্রামে শুকুর আলী ওরফে কুনচে শুকুরের ছেলে সিরাজুল ইসলাম নিকারী (৪৫)। র‌্যাব-৮ এর উপ-পরিচালক মেজর আদনান কবির জানান, সুন্দরবনে কবিরাজ বাহিনীর অবস্থান সনাক্তের ব্যাপারে র‌্যাব-৮ তার গোয়েন্দা কার্যক্রম চালিয়ে যেতে থাকে। গোয়েন্দা তথ্য, বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় এবং স্থানীয়দের তথ্যমতে জানা যায়, ‘কবিরাজ’ বাহিনী সুন্দরবনের পশুর, শিবসা নদী এবং নদী সংলগ্ন বিভিন্ন খাল ও এলাকায় নিরীহ জেলেকে অপহরণ ও মাছ ধরার ট্রলারে লুটপাট চালায়। অপহরণ পরবর্তী কৌশলে জেলে ও বনজীবিদের পরিবারকে ফোন করে জন প্রতি বিপুল অংকের টাকা মুক্তিপন দাবি করে। মুক্তিপন দিয়ে কতিপয় জেলে ছাড়া পায় এবং মুক্তিপণ দিতে অপারগ জেলেদের অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয়। এমন সংবাদের ভিত্তিতে ডাকাতী প্রবণ এলাকা সমূহে র‌্যাব-৮ তার গোয়েন্দা কার্যক্রম জোরদার করে। এরই ফলশ্রুতিতে গতকাল বৃহস্পতিবার কবিরাজ বাহিনীর সম্ভাব্য আস্তানা সনাক্ত হবার সাথে সাথেই উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে  র‌্যাব-৮, বরিশাল, সদর কোম্পানী একটি আভিযানিক দল পশুর নদীর ধরে গোয়েন্দা দ্বারা চিহ্নিত এলাকার দিকে অগ্রসর হতে থাকে। দুপুর ১ টার দিকে সুন্দরবনের পশুর নদীস্থ চারাখালী খাল নামক স্থানের কাছাকাছি পৌছলে বাইনোকুলারের সাহায্যে নিবিড়ভাবে চারপাশ পর্যবেক্ষণ করে বনের ভিতর কয়েকজন লোককে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করতে দেখা যায়। আভিযানিক দলটি কৌশলগত ভাবে সাবধনতার সাথে তাদের দিকে লক্ষ্য করে এগিয়ে যেতে থাকে। র‌্যাব সদস্যগন কৌশল অবলম্বন করে তাদের কাছাকাছি পৌছালে সন্দেহভাজন দস্যুরা র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে দৌড়ে পালিয়ে যেতে দেখে র‌্যাবের আভিযানিক দল তাদেরকে ধাওয়া করে অস্ত্র ও গুলিসহ দুই জন বনদস্যুকে আটক করে। পরবর্তীতে তাদের স্বীকারোক্তি মতে ঘটনাস্থলে তল্লাশী করে  বিদেশী একনালা বন্দুক ১ টি, ১টি বিদেশী কাটা রাইফেল, ২টি বিদেশী ওয়ান শুট্যারগান, বিভিন্ন অস্ত্রের গুলি  ১৩ রাউন্ড, ২টি দেশীয় তৈরী ধারালো রামদা এবং সীমসহ ১টি মোবাইল উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত আলামত ও সরঞ্জামাদি পর্যবেক্ষণ করে সেখানে ৫ থেকে ৬ জন জলদস্যুর অবস্থান সম্পর্কে প্রাথমিক ভাবে ধারনা লাভ করে র‌্যাব সদস্যরা। অস্ত্র ও গুলি সহ আটক দুই বনদস্যুকে খুলনা জেলার দাকোপ থানায় হস্তান্তর করা হয় এবং পলায়নরত অন্যান্য জলদস্যুদের আটকে র‌্যাবের অভিযান ও গোয়েন্দা তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।