জেলায় শিশুর প্রতি শারীরিক সহিংসতা বন্ধে নতুন প্রচারাভিযান


প্রকাশিত : মার্চ ২৪, ২০১৭ ||

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: শিশুরা আগামী দিনের ভবিষ্যত। তাদের সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে হবে। তা হলে তারা আগামীর সুন্দর পৃথিবী গড়ে তুলবে। শিশু নির্যাতন করলে তারা ভালোর পরিবর্তে দুর্নীতিগ্রস্ত হয়ে উঠে। শিশুরা কোন ভুল কাজ করলে তাদের ভালোবাসা দিয়ে বোঝাতে হবে। যেটি ভালোবাসা দিয়ে বোঝানো সম্ভব সেটি মেরে বোঝানো সম্ভব না। শিশু নির্যাতনের ফলে জাতি হিসেবে আমরা পিছিয়ে যাচ্ছি। এজন্য যার যার অবস্থান থেকে শিশু নিযাতন বন্ধ করতে হবে।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশন, ওয়ার্ল্ড ভিশন ও শিশু অধিকার এ্যাডভোকেসি জোট যৌথভাবে আয়োজিত “আমিই পারি শিশুর প্রতি শারীরিক সহিংসতা রোধ করতে ”শীর্ষক একটি নতুন প্রচারাভিযানের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বক্তরা এসব কথা বলেন।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় সাতক্ষীরা ক্যাথলিক মিশনের হল রুমে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সাতক্ষীরা এডিপি’র ভারপ্রাপ্ত ম্যানেজার ইম্মানুয়েল মোল্লার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নূর হোসেন সজল।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা আসিফ ইকবাল, সাতক্ষীরা সনাকের সভাপতি ডঃ ডিলারা বেগম, সাতক্ষীরা কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ শিক্ষাবিদ আব্দুল হামিদ, সাতক্ষীরা ক্যাথলিক চার্চের পালক পুরোহিত ফা. লরেন্সভালোত্তি, বায়তুল্লাহ জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ কাজী সাঈদুর রহমান, বিবাহ রেজিস্টার ও ইমাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো. সিরাজুল ইসলাম।

এসময় সরকারী-বেসরকারীসংস্থার প্রতিনিধিবৃন্দ, শিশু ফোরামের নেতা, অভিভাবক, শিক্ষক, সিবিও, ধর্মীয় নেতাবৃন্দ ও গণমাধ্যম কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

বক্তরা আরো বলেন, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ দেশের ৩৪টি জেলার ৮০০টি শিশু ফোরামের মাধ্যমে প্রায় ২ লক্ষ শিশু প্রতিনিধির সাথে এই লক্ষ্য পূরণে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করবে। ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এবং শিশু অধিকার এ্যাডভোকেসি জোট সক্রিয়ভাবে মানবাধিকার কমিশনের সঙ্গে শিশুর প্রতি সব ধরণের সহিংসতা বন্ধে কাজ করবে।

আরো বলেন, এই প্রচারা ভিযানের লক্ষ্য হলো শিশুর প্রতি সহিংসতা বন্ধে বাংলাদেশ সরকারের পরিচালিত উদ্যোগগুলোকে সহায়তা করা, বিশেষ করে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য মাত্রার ১৬.২ (শিশুর প্রতি অনাচার, দুর্ব্যবহার, পাচার, এবং সব ধরণের সহিংসতা ও নিপীড়ন বন্ধ করা) প্রতিষ্ঠিত করা। শিশুর প্রতি এই সহিংসতার বিষয়টি তুলে ধরা।