সরকারি প্রণোদনা-উৎসাহ পেয়ে দেশ আজ খাদ্যে সয়ং সম্পূর্ণ: এবিএম মোস্তাকিম


প্রকাশিত : মার্চ ৩১, ২০১৭ ||

আশাশুনি ব্যুরো: আশাশুনি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও আ‘লীগের সভাপতি এবিএম মোস্তাকিম বলেন, সরকারি প্রণোদনা-উৎসাহ পেয়ে দেশ আজ খাদ্যে সয়ং সম্পুর্ণ। বর্তমান সরকারের যুগোপযোগী কৃষিবান্ধব নীতির ফলেই সোনার ফসলে কৃষকের মুখে আবার হাসি ফুটে উঠেছে। বীজ-সার-ডিজেলের দাবিতে চাষীকে আর গুলি খেতে হয় না। কৃষি বিভাগ সনাতন পদ্ধতির পরিবর্তে প্রযুক্তির ব্যবহার শিখতে প্রত্যেক চাষীকে প্রশিক্ষণ দিয়ে যাচ্ছেন। তাদের নিয়মিত তদারকির মাধ্যমে অধিক ফসল ফলিয়ে লাভবান হচ্ছে কৃষক। কৃষিতে বিপ্লব ঘটায় দেশের মাথাপিছু আয় বেড়েছে। ফসলের সমস্যা দেখা দিলে আপনারা ফোনের মাধ্যমে অতি সহজেই উপজেলা কৃষি অফিস থেকে সমাধানের উপায় খুঁজে পাচ্ছেন বা পাবেন। বৃহস্পতিবার উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে খরিপ-১/২০১৭-১৮ মৌসুমে প্রনোদনা কর্মসূচির আওতায় ক্ষুদ্র প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে উফশী আউশ ও নেরিকা আউশ উৎপাদনের জন্য বীজ ও রাসায়নিক সার বিতরনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুষমা সুলতানার সভাপতিত্বে শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ শামিউর রহমান। উপসহকারি কৃষি অফিসার দীপক মল্লিকের উপস্থাপনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন যুব উন্নয়ন অফিসার আজিজুল হক, মৎস্য অফিসার শরীফুল ইসলাম, পরিবার পরিকল্পনা অফিসার জাহাঙ্গীর আলম, মহিলা বিষয়ক অফিসার ফাতেমা জোহরা, আওয়ামী লীগ নেতা মোল্যা রফিকুল ইসলাম, কৃষকলীগের আহ্বায়ক স. ম সেলিম রেজা সেলিম, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা রাজিবুল হাসান প্রমুখ। এদিন নেরিকা আউশ (কুদরত) এর ৪০ জন চাষীকে মাথাপিছু ১০ কেজি বীজ, ২০ কেজি ইউরিয়া, ১০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি এমওপি সার ও ১০০ জন উফশী আউশ চাষীকে ৫ কেজি বীজ, ২০ কেজি ইউরিয়া, ১০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি এমওপি সার প্রদান করা হয়। ১০ জন ব্রিধান-৪৮ ও ৯০ জন ব্রিধান-৫৫ চাষী রয়েছেন।