ভিক্ষুকদের পুনর্বাসনে সরকারের পাশাপাশি বিত্তবানদের এগিয়ে আসাতে মৎস্য প্রতিমন্ত্রীর আহ্বান


প্রকাশিত : এপ্রিল ২১, ২০১৭ ||

পত্রদূত ডেস্ক: ডুমুরিয়া উপজেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত ঘোষণা ও তালিকাভূক্ত ভিক্ষুকদের পুনর্বাসনের উপকরণ বিতরণ অনুষ্ঠান  বৃহস্পতিবার বিকেলে খুলনা ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ। প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রতিমন্ত্রী বলেন, বর্তমার সরকার ভিক্ষুকদের পুনর্বাসন ও কর্মসংস্থানে উদ্যোগ গ্রহণ করছে। ২০১৭ সালের মধ্যে দেশকে ভিক্ষুকমুক্ত করার পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে সরকার। প্রতিটি কাজ সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। ভিক্ষুকদের পুনর্বাসনের জন্য সরকারের পাশাপাশি বিত্তবানসহ সর্বস্তরের মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, প্রতিটি মানুষের লক্ষ্য থাকা উচিৎ। লক্ষ্য না থাকলে উন্নতি করা সম্ভব নয়। ভিক্ষাবৃত্তি কারো কাম্য নয়। ভিক্ষা কোন শাšিতর পেশা হতে পারে না। ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকেও ভিক্ষাবৃত্তি নিকৃষ্ট পেশা। ভিক্ষুক জাতি হিসেবে বাচঁতে চাই না।
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, নানা ষড়যন্ত্রে বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতু নির্মাণে তাদের অর্থায়ন বন্ধ করে দিয়ে ছিল। কিন্তু  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত থেকে কিছুতেই পিছপা হননি। তিনি নিজস্ব অর্থায়নে এ সেতুর কাজ শুরু করেছেন এবং নির্মাণ কাজ আনেক দূর এগিয়েছে।  বাংলাদেশ এখন তলাবিহীন ঝুড়ি নয়। অনেক চ্যালেঞ্জ সফলভাবে মোকাবিলা করে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে।
অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী ডুমুরিয়া উপজেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত ঘোষণা করেন। পরে তিনি ভিক্ষুকদের মাঝে ছাগল, গরু, হাঁস-মুরগি, ভ্যান, দোকান ও দোকানের মালামল এবং দুস্থদের সেলাই মেশিন বিতরণ করেন।
ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশোক হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন উপজেলা পরিষদ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান শিরিনা দৌলত, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আল মামুন, সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান গাজী হুমায়ুন কবীর বুলু, ভান্ডারপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ডা. হিমাংশু কুমার বিশ্বাস, খর্ণিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শেখ দিদারুল হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি শাহ নেওয়াজ হোসেন জোয়াদ্দার, সাংবাদিক আবদুস ছালাম এবং মাওলানা মো. মনিরুল ইসলাম।
উল্লেখ্য, ডুমুরিয়া উপজেলাতে ৩শত তিন জন ভিক্ষুককে সনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে গত মার্চ মাসে ২শত ৫৯ জন ভিক্ষুকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। ডুমুরিয়া সদর, ডান্ডার পাড়া ও খর্ণিয়া ইউনিয়নের ৪৪জন ভিক্ষুকদের মাঝে বিভিন্ন উপকরণ বিতরণের মধ্য দিয়ে পুনর্বাসন করা হয়।
সকালে তিনি ডুমুরিয়া উপজেলার শোভনা ইউনিয়ন পরিষদ চত্ত্বরে উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড নিয়ে স্থানীয় জনগণে সাথে মতবিনিময় করেন এবং ৫জন ভিক্ষুকদের মাঝে ছাগল বিতরণ করেন। সন্ধ্যায় প্রতিমন্ত্রী উলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে যোগদান করেন।