নাটানায় খাস জমির ক্রয় ও তঞ্চকতা পূর্বক জরিপ রেকর্ড: বেআইনী দখলের পায়তারা


প্রকাশিত : মে ১৫, ২০১৭ ||

পত্রদূত ডেস্ক: আশাশুনির নাটানায় খাস জমির তথ্য গোপন করে ক্রয় করে ও তঞ্চকতা পূর্বক জরিপ রেকর্ড করে বেআইনী দখলের পায়তারা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগে প্রকশ, আশাশুনির হাড়িভাঙ্গা মৌজার  জেএল নং-১১০, যার এসএ খতিয়ান ৩, ৪, ৫, ৬ ও ৭ নং খাস খতিয়ান জনসাধারণের ব্যবহার্য (খাস জমি)। ৯২৯ দাগে .৪৭ একর সম্পত্তির মধ্যে .২০ শতক সম্পত্তি মৃত: তরঙ্গ মোহন মল্লিকের ছেলে বিমল কৃষ্ণ মল্লিক ইংরেজি ০১.০৪.১৯৯৭ তারিখে আশাশুনি সাব রেজিষ্ট্রী অফিসে ১৪৩৭ নং কোবলায় খরিদ করে। সরকারি খাষ জমি গোপনে ক্রয় করে তঞ্চকতা পূর্বক বর্তমান জরিপে রেকর্ড করেছে বলে প্রকাশ পায়। সে প্রকাশ্যে বলে বেড়ায় ‘আমি, ঐ সম্পত্তি ক্রয় করে রেকর্ড করেছি। আমি ওই সম্পত্তির দখল নেবো’। উক্ত সম্পত্তি জনৈক  অরবিন্দু বিশ্বাসের ছেলে শ্মশান বিশ্বাস নামে .০৬ একর জমি ২৮.০৮.১৯৯৭ ইং তারিখে তার ক্রয়কৃত খাষ জমি থেকে ৫২৯৮ নং কোবলায় বিক্রয় করেছে। ফলে সেখানে জনসাধারণের ব্যবহার্য পথে যথেষ্ট ঝামেলার সৃষ্টি হচ্ছে। প্রকাশ থাকে যে, সুচতুর ভূমি লোভী বিমল কৃষ্ণ মল্লিক অত্যন্ত গোপনে ও কৌশলে সরকারি খাস জমির কাগজপত্র সৃষ্টি করেছে বলে প্রকাশ পায়। তহশীল অফিসের প্রমান্য কাগজপত্র অনুযায়ী দেখা যায়, “২০ ধারা মতে ৩১/৮৫-৮৬ নং মিস কেস নং ২৬.০১.১৯৮৬ তারিখের আদেশ মতে খাসকৃত”। যার স্মারক নং-২৯০, তারিখ: ২৭.০২.১৯৮৬। উক্ত ৯২৯ দাগে জনসাধারণের ব্যবহার্য সম্পত্তির তঞ্চকতামূলক কাগজপত্রের বলে যে কোনো মুহূর্তে আত্মসাত বা দখল করার পায়তারা চালাচ্ছে বিমল। তার বিরুদ্ধে এ ধরণের কার্যকলাপের জন্য জনসাধারণের পক্ষ থেকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কর্তৃপক্ষের সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে।