স্ত্রীকে বাড়ি আনতে গিয়ে শুনতে হলো প্রাণনাশের হুমকি!


প্রকাশিত : মে ১৬, ২০১৭ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: স্ত্রীকে বাড়ি ফিরিয়ে আনতে যাওয়ায় শ্বশুর বাড়ির লোকজন জামাইকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়ার পাশাপাশি তাকে মিথ্যে মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন সাতক্ষীরার তালা উপজেলার ওমরপুর গ্রামের আদ্দাশ আলী সরদারের ছেলে মো. মোর্তজা সরদার।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, এখন থেকে প্রায় ৯ বছর আগে কলারোয়া উপজেলার গাজনা গ্রামের আলী আকবর সরদারের মেয়ে ফিরোজা খাতুনের সাথে তার বিয়ে হয়। দাম্পত্য জীবনে তাদের ৮ বছর বয়সী মনিরা নামের একটি মেয়ে রয়েছে। কিন্তু বিয়ের বছর দুইয়েক পর থেকে তার স্ত্রী ফিরোজা খাতুনের মন মানসিকতা পরিবর্তন হয়ে যায়। সে আমার কথা মত না চলে সংসারের প্রতি অমনোযোগি হয়ে পড়ে। সব কিছু অবলোকন করে আমি শ্বশুর বাড়ির লোকজনকে জানালে তারা আমাকে ধৈর্য ধারণ করে স্ত্রীকে বোঝানোর কথা বলেন। কিন্তু দিন দিন স্ত্রীর অবাধ্যতা আরো বেড়ে যেতে থাকে। কারনে অকারণে সে বাড়ির সকলের অগোচরে পালিয়ে যায়। তার পরও আমি স্ত্রীকে নিয়ে ঘর সংসার করতে থাকি। কিন্তু হঠাৎ করে গত ১২ মে বেলা ১২টার দিকে আমার স্ত্রী ফিরোজা খাতুন আমার ঘরে থাকা নগদ ২৯ হাজার ৭’শ টাকা, স্বর্ণের কানের দুল ও হাতের চুড়িসহ অন্যান্য জিনিসপত্র নিয়ে সকলের সামনে ওমরপুর গ্রামে আমার বাড়ি থেকে চলে যায়। এঘটনায় ১৫ মে সোমবার পাটকেলঘাটা থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করা হয়েছে। ডায়েরী নং ৮২৩। একই সাথে টাকা ও গহনাসহ স্ত্রীকে ফিরে পাওয়ার জন্য সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক বরাবর একটি দরখাস্তও করা হয়েছে।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমার স্ত্রীকে খোঁজ করার জন্য গাজনা গ্রামের শ্বশুর বাড়িতে গেলে শ্বশুর বাড়ির লোকজন অমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। একই সাথে আমাকে মিথ্যে মামলায় ফাঁসানোরও হুমকি দেয় তারা। আমার ধারণা তারা আমাকে মিথ্যে মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা করছে। তিনি স্ত্রীকে নিয়ে যাতে ঘর সংসার করতে পারেন এবং টাকা ও গহনা ফিরে পেতে পারেন তার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।