বালিথা সামাদের মোড় থেকে বড়খামার পর্যন্ত রাস্তাটি পিচকরণের দাবি


প্রকাশিত : মে ১৯, ২০১৭ ||

পত্রদূত ডেস্ক: সদর উপজেলার ফিংড়ী ইউনিয়নের বালিথা সামাদের মোড় থেকে ব্রহ্মরাপুর ইউনিয়নের বড়খামার খালেক ডাক্তারের চেম্বার পর্যন্ত রাস্তাটি বেহাল দশা। দেখার যেন কেউ নেই। সাতক্ষীরার সংসদ সদস্য বিষয়টি দেখবেন কি? সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ফিংড়ী ইউনিয়নের বালিথা সামাদের মোড় থেকে বালিথা ঘোষ পাড়ার মধ্যদিয়ে বড়খামার খালেক ডাক্তাররে চেম্বার পর্যন্ত দীর্ঘ সাড়ে তিন কিলোমিটার ইটের সোলিংয়ের রাস্তা চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। ঐ রাস্তা দিয়ে কোমলমতি শিশুরা বালিথা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিমুলবাড়ীয়া হাইস্কুল, ডিবি ইউনাইটেড হাইস্কুল, ডিবি গার্লস হাইস্কুল, ব্র‏‏হ্মরাজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ সহ একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াত করে। কিন্তু রাস্তাটি চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়ায় জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করছে। এই রাস্তা দিয়ে তারা যাতায়াত করতে পারছে না। এতে করে ব্যবসায়িক ছাড়াও এলাকার জনসাধার ব্রহ্মরাজপুর, এল্লারচর ও শিমুলবাড়ীয়া বাজারে ব্যবসায়ীক কাজে করতে পারছে না। এব্যাপারে বালিথা পূর্বপাড়া জামে মসজিদের সভাপতি ও দৈনিক কাফেলা ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি জি.এম. আরশাদ আলী জানান, রাস্তাটি দেখলে মনে হয় এর কোন অভিভাবক নেই। একটু বৃষ্টি হলে এলাকার বসবাসকারী ছেলে মেয়েরা স্কুল কলেজে যথা সময়ে যেতে পারেনা। পায়ে হেটে চলতে হয়। এমনকি রাস্তাটিতে ভ্যান  চলা তো দুরের কথা বাই সাইকেল চলার মত পরিবেশ না থাকায় জনদুর্ভোগ চরম আকারে ধারন করছে। কলেজ ছাত্র শাহিন জানায় জররী কোন রোগীর চিকিৎসার প্রয়োজন হলে এ্যাম্বুলেন্সে যাতায়াতের কোন সুযোগ নেই। সময় মত হাসপাতালে রোগী নিতে না পারায় অনেক  রোগী পথে মধে লাশ হয়ে বাড়ীতে ফিরতে হয়। সমাজ সেবক আ. মাজেদ জানায়, এ এলাকার মানুষের মধ্যে আজ ক্ষোভের সৃষ্টি দেখা দিয়েছে। অতি দ্রুত রাস্তাটি পিচের জন্য ঐ এলাকার তূক্তভোগী সাধারণ জনগণ সাতক্ষীরার সদর সংসদ সদস্যের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।