চিংড়ি শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর আহ্বান


প্রকাশিত : মে ২০, ২০১৭ ||

দেবহাটা প্রতিনিধি: মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ বলেছেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। বিশে^র উন্নয়নশীল ৪০টি দেশের মধ্যে এখন বাংলাদেশের নাম রয়েছে। আর এটা সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃড় নেতৃত্বে। ২০২১ ভিশনকে সামনে রেখে সরকার যে কাজ করছে সেটা হচ্ছে দেশের প্রতিটি সেক্টরে উন্নয়ন। আর এই উন্নয়নের সুফল দেশের মানুষ এখন পাচ্ছে। প্রতিমন্ত্রী আমাদের দেশের চিংড়ি শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে সরকারের নানামুখী কর্মকান্ডের কথা তুলে ধরে বলেন, চিংড়ি এখন দেশের দ্বিতীয় বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের সম্পদ। এদেশের চিংড়িকে বিশ^ বাজারে আরো গ্রহনযোগ্য করতে প্রান্তিক চাষীদের পোনা সরবরাহ নিশ্চিত, মাছ বিক্রয়ের নিশ্চয়তা এবং চাষীরা যাতে ন্যায্য মূল্য পায় সেদিকে নজর রাখতে হবে এবং ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

 

 

তিনি শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বাংলাদেশ মৎস্য অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ শ্রিম্প এন্ড ফিস ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে সাতক্ষীরার দেবহাটায় নিরাপদ চিংড়ি ভোক্তা পর্যন্ত পৌছানোর লক্ষ্যে এক কনসাল্টেশন ওয়ার্কশপে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। মৎস্য অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত কর্মশালায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাবেক সচিব একেএম জাফরুল্লাহ খাঁন, বাংলাদেশ শ্রিম্প ও ফিস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ মাহমুদুল হক, ফিলিপাইনের এফএও কনসালটেন্ট এঞ্জেলিটো সেনিডো, শ্রীলংকার এফএও কনসালটেন্ট ডিইএম উয়িরাকন, সলিডারিডাডের এশিয়ার কান্ট্রি ম্যানেজার সেলিম রেজা হাসান, টিম লিডার মইন উদ্দীন আহমেদ, দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাফিজ-আল আসাদ, কালীগঞ্জ সার্কেল এএসপি সালাহউদ্দীন হোসেন, দেবহাটা থানার ওসি কাজী কামাল হোসেন, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, ডিডি একুয়াকালচার গুলজার হোসেন, খুলনার ডিওএফ ডিডি রনজিদ কুমার পাল, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফরোজা পারভিন সহ বিভিন্ন কর্মকর্তা ও মৎস্য চাষীরা উপস্থিত ছিলেন। শেষে উপজেলায় যেসব চাষীরা ক্লাস্টারে কাজ করেছে তাদের মধ্যে থেকে ৮জন ক্লাস্টার প্রধানকে পুরষ্কৃত করা হয়।