আশাশুনির কাপসন্ডা গ্রামের সন্ত্রাসী রমজান বাহিনীর অত্যাচার ও নির্যাতন থেকে রক্ষা পেতে এক ব্যক্তির সংবাদ সম্মেলন


প্রকাশিত : আগস্ট ৯, ২০১৭ ||

সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার কাপসন্ডা গ্রামের কুখ্যাত সন্ত্রাসী রমজান বাহিনীর অত্যাচার, নির্যাতন ও হয়রানি থেকে রক্ষার দাবি জানিয়েছেন একই গ্রামের মৃত কেরামত আলী সরদারের ছেলে মোঃ ইউসুফ আলী। মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই দাবি জানান।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আশাশুনি উপজেলার কাপসন্ডা গ্রামের সুন্দর আলী মোড়লের ছেলে কুখ্যাত সন্ত্রাসী রমজান বাহিনীর অত্যাচার ও নির্যাতনে এলাকাবাসী অতিষ্টি হয়ে উঠেছে। সে এলাকায় অস্ত্রের মহড়া দিয়ে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকদের কাছ থেকে জোর পূর্বক চাঁদা আদায় করাসহ বহু লোকের জমি জোর পূর্বক দখল করে নিয়েছে। তার সহযোগি হিসাবে রয়েছে রমজানের আপন ভাই একই গ্রামের সৈয়দ আলী মোড়ল, সৈয়দ আলী মোড়লের দুই ছেলে অছাদুল ও সাকিল, রশিদ সরদারের ছেলে আলম ও মিলন, আজারুল খাঁর ছেলে সাগর, ইউনছ খাঁর ছেলে জহুরুল খাঁ, সদর মোড়লের ছেলে লিটনসহ আরো অনেকে। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শত্র“তা সৃষ্টি করে দীর্ঘদিন ধরে তারা আমার ও আমার পরিবারের সদস্যদের নানা ভাবে হয়রানি ও ক্ষতি করে আসছে। তারা প্রায় সময় আমাদেরকে প্রাণনাশের হুমকিসহ মারপিট করতে উদ্যত হয়। গত ৪ আগষ্ট আমার স্ত্রী আম্বিয়া খাতুন (৪৫) সাতক্ষীরায় বাবার বাড়ি থেকে কাপসন্ডা গ্রামে নিজ বাড়িতে ফেরার পথে বেলা দেড়টার দিকে কাপসন্ডা ও পারশেমারী এলাকায় রমজানের মাছের ঘেরের কাছে পৌছালে উল্লেখিত সন্ত্রাসীরা হাতে লাঠিসোটা, রোহার রড, দা ও হাতুড়ি নিয়ে তার উপর হামলা চালায়। সন্ত্রাসীরা তার স্ত্রীকে মারপিট করে গুরুতর জখম করে এবং তার কাছে থাকা দুই ভরি ওজনের স্বর্ণের গহনা ছিনিয়ে নেয়। তারা আমার স্ত্রীর কাপড় চোপড় টানা হেচড়া করে বে-আব্র“ করতঃ শ্লীলতাহানী ঘটায়।
তিনি আরো বলেন, এঘটনার জের ধরে পরদিন ৫ অগষ্ট বেলা একটার দিকে কাপসন্ডা গ্রামে আমার বৃদ্ধা শাশুড়ি জাহারন নেছার(৬৫) পথরোধ করে তাকে বেদম মারপিট করে গুরুতর জখম করে ওই সন্ত্রাসীরা। তারা শাশুড়ির গলায় থাকা আট আনা ওজনের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়। এসময় সন্ত্রাসীরা এঘটনায় মামলা করলে আমাকে খুন করে লাশ গুম করবে বলে হুমকি দিয়ে যায়। এরপরও ৬ আগষ্ট রমজানের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা বাড়িতে ঘুমান্ত অবস্থায় আমার ছেলে হাফিজুর রহমানের উপর হামলা চালিয়ে হাতুড়ি দিয়ে তার দুই হাত ভেঙ্গে দেয়। একপর্যায় গলায় গামছা পেচিয়ে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা চালায়। স এখন হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, একাধিক মামলার আসামী কুখ্যাত সন্ত্রাসী রমজান আলীসহ তার বাহিনীর লোকজন এলাকায় বহু খুন, ডাকাতি, চাঁদাবাজি ও ছিনতাইয়ের ঘটনার সাথে জড়িত। রমজানের দ্বারা এলাকার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বহু লোক নির্যাতনের শিকার। বহু সাধারন মানুষের জমি সে জোরপূর্বক দখল করে নিয়েছে। এলাকার তার ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায়না। আমার পরিবার তার দ্বারা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্নভাবে নির্যাতিত। তিনি এই দূর্ধর্ষ সন্ত্রাসীর হাত থেকে তিনিসহ এলাকার সাধারন মানুষকে রক্ষার জন্য সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন। তিনি এব্যপারে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি অকর্ষন করেন।