যশোর মণিরামপুরে সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে পুলিশে ধরিয়ে দিলেন স্ত্রী ও সন্তান


প্রকাশিত : আগস্ট ১২, ২০১৭ ||

যশোরের মণিরামপুরে আব্দুল মান্নান ময়না (৫০) নামে একজন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামিকে তার স্ত্রী ও সন্তানের সহযোগিতায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
শুক্রবার মণিরামপুর বাজারের ভূমি অফিসের সামনে থেকে থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। ময়না চেক জালিয়াতি মামলায় এক বছরের সাজাপ্রাপ্ত হয়ে পলাতক ছিলেন। গত মাসের ২৩ তারিখে তার ওয়ারেন্ট কপি থানায় আসে।
আব্দুল মান্নান ময়না উপজেলার খেদাপাড়া ইউনিয়নের মাহমুদকাটি গ্রামের মৃত আব্দুল খালেকের ছেলে।
ময়নার স্ত্রী রহিমা ও মেয়ে রুমা জানান, কয়েক বছর আগে ময়না স্থানীয় টেংরামারী বাজারে সারের ব্যবসা করতেন। তখন উপজেলার রাজগঞ্জ বাজারের সারের ডিলার বাবর আলীর সঙ্গে তার লেনদেন ছিল। ব্যাংকে টাকা না থাকা সত্ত্বেও চেকের মাধ্যমে ময়না লেনদেন করায় বাবর আলী আদালতে মামলা করেন। পরে ময়না ঢাকায় পলাতক থাকাবস্থায় আদালত তাকে এক বছরের সাজা দেন।
রহিমা বেগম জানান, ব্যবসা ছাড়ার পর ময়না স্থানীয় মাদক কারবারীদের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে অনেক সম্পদ নষ্ট করেন। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রাতে তিনি হঠাৎ বাড়ি এসে রহিমাকে ৩০ হাজার টাকার জন্য চাপ দেন। টাকা দিতে না পারায় ময়না তার স্ত্রী রহিমা, মেয়ে রুমা, ছেলে আব্দুর রহমান ও বৃদ্ধ শাশুড়িকে মারধর করেন। রাতের মধ্যে টাকা না দিলে তাদের হত্যার হুমকিও দেন।
শুক্রবার সকালে থানায় এসে ওসি মোকাররম হোসেনকে ঘটনা জানান রহিমা ও তার মেয়ে রুমা। ময়নাকে ‘৩০ হাজার টাকা দেওয়া হবে’ বলে মোবাইল ফোনে মণিরামপুর বাজারে ডেকে আনেন তার স্ত্রী রহিমা। ময়না বাজারে আসছেন বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে থানার ওসি এসআই জাহাঙ্গীর হোসেনসহ চার পুলিশ কর্মকর্তাকে রহিমা বেগমের সঙ্গে পাঠান। এরপর উপজেলা ভূমি অফিসের সামনে এসে স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার সময় পুলিশ ময়নাকে গ্রেফতার করে।
স্থানীয়রা বলছেন, ময়না ইয়াবার ব্যবসায়ী। ঢাকাসহ বাইরের এলাকা থেকে ইয়াবা এনে তিনি ইউনিয়নের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের সরবরাহ করেন।
মণিরামপুর থানার ওসি মোকাররম হোসেন বলেন, আটক আব্দুল মান্নান এক বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি। তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।