খুলনায় বিএনপির সমাবেশ থেকে অসহযোগের হুশিয়ারী মঞ্জু’র


প্রকাশিত : অক্টোবর ১২, ২০১৭ ||

 

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাশকতা মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির তিব্র নিন্দা জানিয়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক খুলনা মহানগর সভাপতি সাবেক এমপি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেছেন, খালেদা জিয়া তারেক রহমানকে দেশে আসতে দেয়া না হলে গণঅসহযোগ আন্দোলনের মাধ্যমে সারা দেশ অচল করে দেয়া হবে। দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, মিছিল আর শ্লোগানের সময় শেষ। এখন সত্যিকার অর্থেই বুকের রক্ত দিয়ে দেশ গণতন্ত্র রক্ষার জন্য প্রতিটি কর্মীকে চূড়ান্ত প্রস্ততি নিতে হবে।

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে ২০ দলীয় জোটের আন্দোলন চলাকালে নাশকতার এক মামলায় আদালত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করলে প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় নির্দেশে দেশব্যাপি বিক্ষোভ কর্মসূচির ঘোষণা দেয়া হয়। বুধবার বেলা ১১টায় কে ডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে নগর বিএনপির সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, এই সরকার সংসদকে এক দলীয় করেছে। জনগণের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছে। গণমাধ্যমের কন্ঠরোধ করে অসংখ্য মিডিয়া বন্ধ করে দিয়েছে। হামলা, মামলা, নির্যাতন, গুম, খুন, অপহরণ করে বিরোধী দলকে রাজনীতি করার অধিকার কেড়ে নিয়েছে। সর্বশেষ ছিল বিচার বিভাগ। প্রধান বিচারপতিকে তথাকথিত ক্যান্সারের রোগী সাজিয়ে ইতিহাসের নজিরবিহীন ন্যাক্কারজনকভাবে ছুটি নিতে বাধ্য করেছে। এখন তাকে বিদেশে পাঠানোর চক্রান্ত চলছে। এর মধ্য দিয়ে সরকার বিচার বিভাগের স্বাধীনতাকেও ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিয়েছে।

সরকার সব সময় ক্ষমতা হারানোর আতংকে ভুগছে দাবি করে তিনি বলেন, সারাক্ষণ তারা বিএনপির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত, নাশকতার অভিযোগ আনেন। নতুন করে সারা দেশে গণগ্রেপ্তার শুরু হয়েছে। জোটের শরীক জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যান্য শরীক দলের বহু শীর্ষ নেতাসহ বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার বাড়ি বাড়ি তল্লাশি চালানো শুরু হয়েছে। জোচ্চর সরকারের সহযোগী না হওয়ার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, দয়া করে খুলনায় কোন ধরনের গণগ্রেপ্তার, হয়রানি, বাড়ি বাড়ি অভিযান চালাবেন না। এটা বিএনপির শহর, এটা ধানের শীষের ঘাঁটি। এখানে বিএনপি কর্মীরা হয়রানি হলে সমগ্র খুলনা অবরোধে অচল করে দেয়া হবে।

বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান মুরাদের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কেসিসির মেয়র মনিরুজ্জামান মনি, সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজা, কাজী সেকেন্দার আলী ডালিম, মীর কায়সেদ আলী, শেখ মোশারফ হোসেন, জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু, শেখ খায়রুজ্জামান খোকা, এড. বজলুর রহমান, রেহানা আক্তার, শাহজালাল বাবলু, আব্দুর রহমান, শেখ ইকবাল হোসেন, এড. ফজলে হালিম লিটন, শেখ জাহিদুর রহমান, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, শেখ আমজাদ হোসেন প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি