আশাশুনির কমলাপুর প্রাথমিকের সহকারি শিক্ষকের হাতে অভিভাবক লাঞ্ছিত


প্রকাশিত : জানুয়ারি ৯, ২০১৮ ||

 

আশাশুনি ব্যুরো: আশাশুনির কমলাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক তপতী মন্ডল কর্তৃক এক শিক্ষার্থীর পিতাকে জুতা পিটা করে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিভাবক মহলে ক্ষোভে ফেটে পড়ে শিক্ষককে অন্যত্র বদলী সহ বিভাগীয় শাস্তির দাবি জানান। এ ব্যাপারে প্রতিকার প্রার্থনা করে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর আবেদন করলে শিক্ষা অফিসার বিচার তো দূরে থাক ওই অভিভাবককে হাকিয়ে দেন। লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলা সদরের কমলাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রামেন্দ্র নাথ সরকার পুত্র অদ্বৈত সরকারের ৪র্থ শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফলে সন্তুষ্ট হতে পারেনি। ফলে অভিভাবক রামেন্দ্র সরকার স্কুলে হাজির হয়ে প্রধান শিক্ষক দীপঙ্কর কুমার মল্লিকের সাথে সালিনতার সাথে আলোচনা করে পুত্রের স্কুল থেকে ছাড়পত্র প্রদানের আবেদন জানিয়ে বাড়ী ফিরে আসে। এতে ওই অভিভাবকের বৌদি স্কুলের সহকারি শিক্ষক তপতী মন্ডল ক্ষিপ্ত হয়ে গত ২০ ডিসেম্বর’১৭ বেলা অনুমান ২.৩০ ঘটিকার দিকে অহেতুক অনাধিকারভাবে বাড়ী ফিরে মা ও পুত্রের সামনে রামেন্দ্র সরকারকে হঠাৎ পা থেকে জুতা খুলেই দু’গালে জুতাপেটা করে লাঞ্ছিত করে। এ খবরে এলাকায় ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবক মহল ক্ষোভে ফেটে পড়ে। এ ব্যাপারে অভিভাবকদের পক্ষে রামেন্দ্র সরকার ওই শিক্ষকের বদলী সহ বিভাগীয় শ্বাস্তির দাবী করে উপজেলা শিক্ষা অফিসার সামছুন্নাহার বরাবর গত ২১ ডিসেম্বর’১৭ লিখিত অভিযোগ করেন। শিক্ষা অফিসার বিষয়টি দেখবেন বলে টালবাহনা করে অবশেষে রোববার রামেন্দ্রকে কোন বিচার করবেন না বলে হাকিয়ে দেন এবং বলে দেন পেপার পত্রিকা করে কিছুই হবে না, যা ইচ্ছা করো গে, ও সব করে আজ পর্যন্ত আমার কিছু হয়নি। এ দিকে ওই ছাত্র লজ্জায় স্কুলে যাচ্ছেনা বা অন্যত্র ভর্তি হতে প্রতিবন্ধকতা দেখা দেয়ায় লেখাপড়া লাঠে উঠতে বসেছে। এঘটনায় অভিযোগকারীসহ এলাকাবাসি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।