আশাশুনির খাজরায় সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন


প্রকাশিত : জানুয়ারি ১৩, ২০১৮ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেডের প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে আশাশুনির খাজরা ইউনিয়নের পিরোজপুর গ্রামে সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক সনত কুমার সানা প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে তার সংগঠনের সদস্য ৪৮৫টি পরিবারের অসহায়-গরীব শীতার্ত মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র ১টি কম্বল, ১টি বালতি ও ১টি করে জগ বিতরণ করেন। অসহায় শীতার্ত মানুষেরা শীতবস্ত্র কম্বলসহ জগ ও বালতি পেয়ে তাদের মাঝে উচ্ছ্বাস লক্ষ্য করা গেছে। অসহায় গরীব শীতার্ত মানুষেরা সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেডের সফলতা কামনা করেন। এসময় সংগঠনের সদস্য সন্ধ্যা গোলদার, সুমিতা, সুকোলকি গাইন ও তাপস মন্ডল জানান, আমরা সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেডের সদস্য হওয়ায় আমরা এই সংগঠনের সহযোগিতায় প্রশিক্ষণ ও ঋণ নিয়ে আজ সংসারের অভাব দুর করে স্বাবলম্বী হয়েছি। সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেডর নির্বাহী পরিচালক সনত কুমার সানা জানান, আমি একজন গরীব ঘরের সন্তান। এস.এস.সির গন্ডি পেরুতে পারিনি। বেকারত্বের অভিশাপ নিয়ে যখন হতাশার মধ্য দিয়ে জীবন অতিবাহিত করছিলাম। তখন আমার গ্রামের অসহায় হতদরিদ্র মানুষদের সংগঠিত করে তাদেরকে সঞ্চয়ী মনোভাব তৈরী করে ১০ টাকা ও ২০ টাকা হারে সঞ্চয় করে আজ প্রায় ৫শতাধিক অসহায় হতদরিদ্র মানুষকে আমার সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেডের সদস্যভূক্ত করেছি। এ সংগঠনটি অসহায় মানুষদের আর্থিক উন্নয়ন করে তাদের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করছে। এটি অমুনাফাভিত্তিক এক ধরণের স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন। উন্নয়নের আর্থ-সামাজিক নানা কার্যক্রমসহ পরামর্শ সেবা, আইনি সহায়তা ও ত্রাণ তৎপরতা। সমাজ কল্যাণে ও উন্নয়ন কর্মকান্ডে সরকারি তৎপরতার পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোগে এই সংগঠনটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে। বৈদেশিক সাহায্য ও ঋণ ছাড়াই নিজেদের সঞ্চয় দিয়ে দারিদ্র দূরীকরণ ও পল্লী উন্নয়ন ও অবকাঠামোগত সংস্কার ইত্যাদি সমষ্টিগত বিষয় সমন্বয় করে কৃষি, পল্লী উন্নয়ন, সামগ্রিক প্রবৃদ্ধি ও বিকাশের সর্বজনীন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। এ সংগঠনটি সরকারি ও বেসরকারি দাতা সংস্থার সহযোগিতা পেলে আশাশুনির খাজরা ইউনিয়নসহ এর আশপাশের ইউনিয়নের অসহায় ও হতদরিদ্র মানুষদের সহযোগিতার মাধ্যমে স্বাবলম্বী করতে পারবো। এসময় মুক্তিযোদ্ধা তুষার কান্তি সানাসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।