বর্তমান সরকারের আন্তরিকতার কারণেই মৃতপ্রায় মংলা বন্দর এখন সচল: তালুকদার আব্দুল খালেক


প্রকাশিত : জানুয়ারি ২৬, ২০১৮ ||

পত্রদূত ডেস্ক: সংসদ সদস্য তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, বর্তমান সরকারের আন্তরিকতার কারণেই মৃতপ্রায় মংলা বন্দর এখন সচল। ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে বন্দরে ৮৭টি জাহাজ এবং ডিসেম্বরে ৫৪টি জাহাজ এসেছে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। বন্দর সচল থাকলে এ অঞ্চলের ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়বে, বাড়বে রাজস্ব আহরণ। তিনি শুক্রবার সকালে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস ২০১৮ উপলক্ষে খুলনা-মোংলা আঞ্চলিক কমিটি আয়োজিত নগরীর টাইগার গার্ডেন হোটেলে অনুষ্ঠিত সেমিনার ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য ‘অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যে নিরাপদ বাণিজ্য পরিবেশ’।
প্রধান অতিথি বলেন, অবকাঠামোগত উন্নয়ন ছাড়া কোন এলাকার উন্নয়ন হয় না। সে লক্ষ্যেই এবং এ অঞ্চলের প্রতি আলাদা নজরের কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মংলায় ইপিজেড স্থাপন, রূপসা ব্রীজ নির্মাণ, মাওয়া-মংলা সড়ক নির্মাণ, মংলায় সাইলো নির্মাণ করেছেন। বাগেরহাটের ফয়লাতে ৫৩৬ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে, বিমান বন্দর নির্মাণের কাজ চলমান। খুলনা-মংলা রেল লাইন নির্মাণের কাজ দ্রুত গতিতে চলছে। প্রধানমন্ত্রীর একক প্রচেষ্টায় ও দৃঢ় মনোবলের কারণেই পদ্মা সেতু নির্মাণ হচ্ছে। পদ্মা সেতু নির্মিত হলে সবচেয়ে বেশি লাভবান হবে খুলনা অঞ্চল। তিনি আরও বলেন, নৌবাহিনীর মাধ্যমে মংলা বন্দরের ড্রেজিংএর কাজ করানো হবে। মংলা বন্দর ও ব্যবসায়ীদের স্বার্থেই দ্রুত মোংলা কাস্টমস হাউস মোংলাতে স্থানান্তরের জন্য এনবিআরসহ স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে পরামর্শ দেন।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি প্রথম বারের মতো ২০১৭ সালে মোংলা কাস্টম হাউসে সর্বোচ্চ রাজস্ব প্রদানকারী পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের হাতে প্রধান অতিথি ও অন্যান্য অতিথিরা সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন। সম্মাননাপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো হলো, এমআরএস ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড কার সিলেকশন, শুন শিং এডিবল অয়েল লিমিটেড , দি অটোস এবং বসুন্ধরা ইন্ডাস্ট্রিয়াল কমপ্লেক্স লিমিটেড।
সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হারুনুর রশীদ, খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য মুহাম্মদ মিজানুর রহমান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (কর) কালিপদ হালদার, কর আপীলের কর কমিশনার প্রশান্ত কুমার, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার সুবাস চন্দ্র সাহা, খুলনা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. হাবিবুর রহমান, মোংলা বন্দরের সদস্য (অর্থ) গোলাম মোস্তফা এবং খুলনা চেম্বারের সভাপতি কাজী আমিনুল হক। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট আপীদের কমিশনার আবদুল মান্নান শিকদার। সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন মোংলা কাস্টম হাউসের কমিশনার মারগুব আহমদ।
দিবসটি পালন উপলক্ষে সংসদ সদস্য তালুকদার আবদুল খালেকের নেতৃত্বে সকাল সোয়া আটটায় খালিশপুরস্থ মোংলা কাস্টম হাউস থেকে নগরীর শিববাড়ী মোড় পর্যন্ত বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিতে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, কাস্টমস কর্মকর্তা, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক সহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।