মৃগিডাঙ্গায় আসামি না পেয়ে রাতে গৃহকত্রীর সাথে পুলিশের ধস্তাধস্তি, নিয়ে গেল টাকা: পুলিশের অস্বীকার


প্রকাশিত : March 10, 2018 ||

পত্রদূত ডেস্ক: রাতে পুলিশের এসআই মিরাজ হোসেন ৩/৪ জনকে সাথে নিয়ে আমার বাড়িতে ঢুকেছিলেন। আমার স্বামীকে না পেয়ে আমাকে নানাভাবে লাঞ্ছিত করেছেন তিনি ও তার সঙ্গীরা। এ সময় আমার সাথে পুলিশ ও কথিত ইনফরমারদের ধস্তাধস্তি হয়েছে। তারা আমার ঘরে থাকা সাড়ে ১১ হাজার টাকা জোর করে নিয়ে গেছে। তবে এসআই মিরাজ হোসেন বলেন ‘আমি টাকা নেই নি। অন্য কেউ নিয়েছে কিনা জানিনা’।
শনিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এসে পুলিশের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করেন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার মৃগিডাঙ্গা গ্রামের গৃহবধূ নুরুন্নাহার বেগম। এ সময় তার চোখের নিচে আহত হবার কালো চিহ্ণও সাংবাদিকদের দেখান তিনি। তিনি বলেন পুলিশ বলেছে ‘এসব নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে তোদের ভিটেছাড়া করে দেবো’।
নুরুন্নাহার বলেন সম্প্রতি তাদের জমিতে ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে অস্থায়ী দোকান বসানোর ঘটনা নিয়ে হজরত মোস্তফা ও গফুর সান্টুর মধ্যে মারামারি হয়। এ নিয়ে মামলা করে হজরত মোস্তফা। আর এই মামলায় আমার স্বামী রড সিমেন্ট বিক্রেতা আবু হাসানকে ১ নম্বর আসামি করে মোস্তফা।
নুরুন্নাহার বলেন এই মামলায় পুলিশ শুক্রবার রাতে আমার স্বামীকে ধরতে আমার বাড়িতে যায়। স্বামীকে না পেয়ে নির্যাতন শুরু করে আমার ওপর। তিনি বলেন আমি একজন নারী। সব কথা বলতে পারিনা। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে আমাকে লাঞ্ছিত ও অপমানিত করা হয়। বালিশের নিচ থেকে ১১ হাজার ৭৬৫ টাকা নিয়ে নেয় তারা। একই সাথে দুটি মোবাইল ও একটি টর্চলাইটও নিয়ে নেয় পুলিশ। পরে মোবাইল দুটি ফেরত দিলেও টর্চ লাইট ও টাকা ফেরত দেয়নি তারা। তিনি বলেন অপমানের কথা আমি মুখ ফুটিয়ে বলতে পারবো না।
জানতে চাইলে সাতক্ষীরা সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মিরাজ হোসেন বলেন ‘আসামি ধরতে গিয়েছিলাম। যে অভিযোগ তিনি দিয়েছেন তা সত্য নয়। আমি টাকা নেইনি। অন্য কেউ নিয়েছে কিনা জানা নেই’।
এ দিকে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মারুফ আহমেদ বলেন ওই নারী যা বলেছেন তা মিথ্যা। বালিশের নিচ থেকে তার পুলিশ সদস্যরা টাকা নেয়নি। তার স্বামীর বিরুদ্ধে একটি মারামারিসহ নাশকতার মামলাও রয়েছে। পুলিশ সদস্যরা তাকে ধরতে গিয়েছিল মাত্র। এ সময় স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গ্রাম চৌকিদার সাথে ছিলেন।