একবার ঘুরে আসি বিক্রমপুর জাদুঘর


প্রকাশিত : এপ্রিল ৪, ২০১৮ ||

খোলা কলম

আমিনুল ইসলাম
মুন্সীগঞ্জ জেলার ঐতিহ্যবাহী শ্রীনগর উপজেলার বালাশুর ইউনিয়নের বালাশুর গ্রামের ভাগ্যকুলের প্রাচীন জমিদার যদুনাথ রায়ের বাড়িটিতে প্রায় সারে ১৩ একর জায়গা জুড়ে গড়ে তোলা হয়েছে বিক্রমপুর জাদুঘর। অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশন নামের একটি অরাজনৈতিক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে সরকারি অর্থায়ণে নির্মাণ করা হয়েছে এ জাদুঘর ও একটি গেস্ট হাউজ। জাদুঘরের প্রথম তলায় দুইটি গ্যালারি করা হয়েছে। গ্যালারি দুইটির নামকরণ করা হয়েছে জমিদার যদুনাথ রায় ও বিশ^খ্যাত বিজ্ঞানী স্যার জগদ্বীশ চন্দ্র বসুর নামে। আর দ্বিতীয় তলায় করা হয়েছে মুক্তিযোদ্ধা গ্যালারি। এছাড়া বাড়িটিতে ঢুকেই পুকুরে দেখতে পাবেন বিভিন্ন অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী নৌকা। তার মধ্যে সাম্পান নৌকা ও দেখতে পাবেন পুকুরে ভাসানো। এটি নৌকা জাদুঘরের প্রতিকী। বিক্রমপুর সমন্ধে অনেক অজানা তথ্য এ জাদুঘরে ভ্রমণে এসে জানতে পারবেন। দেখতে পাবেন প্রতœতত্ত্বের অনেক নিদর্শন। জানতে পারবেন বিক্রমপুরের আদি কৃষ্টি কালচার। ধারনা মিলবে বিক্রমপুর অঞ্চলের মানুষের পূর্বের সমৃদ্ধ ইতিহাস সম্পর্কে। বিক্রমপুরের রয়েছে হাজার বছরের ইতিহাস ও ঐতিহ্য। এক সময় পূর্ব বঙ্গ বা সমতটের রাজধানী ছিল বিক্রমপুর। আর এ মাটিতেই জন্মগ্রহন করেছেন অনেক মনিষী। বিক্রমপুরের মাটি খুঁড়ে পাওয়া গেছে হাজার বছর আগের নৌকা, কাঠের ভাস্কর্য, পাথরের ভাস্কর্য, টেরাকোটাসহ অসংখ্য অমূল্য প্রতœবস্তু। এ জাদুঘরে এর প্রায় সব কিছু সংরক্ষিত রয়েছে। দেশের বিভিন্ন বিশ^বিদ্যালয়ের দর্শণার্থীরা এখানে জাদুঘর পরিদর্শনে আসেন। সবচেয়ে বেশী দর্শণার্থীর ভীড় জমে সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবার ও শনিবার।
কিভাবে যাবেন: ঢাকার গুলিস্তান টিএন্ডটি অফিস সংলগ্ন এলাকা থেকে ঢাকা টু দোহার আরাম বাস ছাড়ে কিছুক্ষণ পরপর। ভাড়া নিবে ৬৫ টাকা। এছাড়া ঢাকার পোস্তগোলা বুড়িগঙ্গা সেতুর গোড়া থেকেও সেবা পরিবহনে করেও যেতে পারবেন ৬০ টাকা ভাড়ায়। সময় লাগবে প্রায় দুই ঘন্টা। নামতে হবে শ্রীনগর পার হয়ে বালাশুর চৌরাস্তায়। এরপর রিক্সা বা অটোবাইকযোগে পৌছাঁনো যাবে বিক্রমপুর জাদুঘর। ভাড়া নিবে ২০ টাকা। খোলা থাকে শনিবার থেকে বুধবার সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা এবং দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৪টা পযর্ন্ত। শুধুমাত্র বৃহস্পতিবার বন্ধ থাকে। আর শুক্রবার জুম্মা নামাজের পর ২টা থেকে ৫টা পযর্ন্ত খোলা থাকে। এখানে কোনরুপ প্রবেশ মূল্য নেই।