তালায় আবারও জলাবদ্ধতার আশঙ্কা : সরকারি খাল দখল মুক্ত ও সংস্কার দাবি


প্রকাশিত : এপ্রিল ১৪, ২০১৮ ||

 

তালা সংবাদদাতা: তালা উপশহর থেকে শালতা নদী পর্যন্ত সরকারি খাল সমূহ অবৈধ দখলদার মুক্ত করে সংস্কার করতে না পারলে এবারও ভয়াবহ জলাবদ্ধতার কবলে পড়বে উপজেলার প্রায় ৪ লাখ মানুষ। ফলে বর্ষা মৌসুম শুরু হওয়ার আগেই কার্যকরি ব্যাবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্ট বিভাগের জরুরী হস্তক্ষেপ প্রয়োজন বলে মনে করছেন ভুক্তভোগি মানুষ।

সুত্রে জানা যায়, তালা উপজেলা পরিষদের কোল ঘেষে শাহপুর, আগোলঝাড়া, দধিসারা বিল হয়ে জেয়ালা নলতা ঘোষপাড়ার মধ্য দিয়ে শালতা নদীতে গিয়ে মিশেছে একাধিক সরকারি খাল। বর্ষা মৌসুমে  কপোতাক্ষ নদে পানি টানার পরিবর্তে নদের উপচে পড়া পানিতে তলিয়ে যায় উপজেলা পরিষদের অফিসপাড়া, উপশহরের হাটবাজার, স্কুল-কলেজসহ গুরুত্বপূর্ণ সব স্থাপনা। তখন এ খাল দিয়েই মূলত তালা উপশহরের পানি নিস্কাশিত হয়ে শালতা নদীতে গিয়ে  পড়ায় কিছুটা হলেও জলাবদ্ধতার কবল থেকে রক্ষা পায় এ অঞ্চলের মানুষ। কিন্তু বর্ষা চলে যাবার সাথে সাথে অবৈধ দখলদাররা খালের বিভিন্ন স্থানে বাঁধ দিয়ে সারা বছর মাছ চাষ করে থাকে। এমনকি শালতা নদীর একটি অংশও দিনের পর দিন দখলে রেখে মাছ চাষ করে আসছে একটি প্রভাবশালী মহল। ফলে বর্ষা মৌসুম শুরু হওয়ার সাথে সাথে তালা উপশহর তলিয়ে যায়। প্রতিবছর প্রশাসনিক উদ্যোগে অবৈধ বাঁধ ও খালের উপর দেয়া নেট-পাটা অপসারন করে পানির প্রবাহ সচল করার পর আস্তে আস্তে কমে যায় জলাবদ্ধতার প্রকোপ। এলাকাবাসির অভিমত, প্রতিবছর  বর্ষা শুরুর পর  এই উদ্যোগ না নিয়ে বর্ষা শুরুর আগেই যদি নদী-খাল থেকে অবৈধ বাঁধ অপসারণ করা হয় তাহলে উপশহরকে পুরোপুরি জলাবদ্ধতার কবল থেকে রক্ষা করা সম্ভব। ফলে বর্ষা মৌসুম শুরু হওয়ার আগেই এ বিষয়ে কার্যকরি উদ্যোগ নেয়ার আহবান জানিয়েছেন তারা।