কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্ম জয়ন্তী উদ্যাপন


প্রকাশিত : মে ২৮, ২০১৮ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্মবার্ষিকী উদ্যাপন উপলক্ষে নজরুল ও ইসলাম প্রতিপাদ্য বিষয়ে আলোচনা সভা, গজল ও আবৃত্তি অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার বিকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসন, জেলা শিল্পকলা একাডেমী ও জেলা সাংস্কৃতিক পরিষদের আয়োজনে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইফতেখার হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা-২ আসনের সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) তরফদার মাহমুদুর রহমান, এডিএম অনিন্দিতা রায় প্রমুখ। আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন সহকারি অধ্যাপক অলিউর রহমান, তালা সরকারি কলেজের সহযোগি অধ্যাপক আশুতোষ সরকার, সহকারি অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন অধ্যক্ষ আব্দুল হামিদ, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক শেখ হারুন উর রশিদ, সাতক্ষীরা ফ্রেন্ডস ড্রামেটিক ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ছাইফুল করিম সাবু, জেলা তথ্য অফিসার মোজাম্মেল হক, জেলা সাংস্কৃতিক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হেনরী সরদার, আবৃত্তিকার মনিরুজ্জামান ছট্রু, কষ্ঠশিল্পী শামীমা পারভীন রত্মা, কণ্ঠশিল্পী আবু আফ্ফান রোজ বাবু, শামীমা পারভীন রত্মা, মনজুরুল হক, মো. শহিদুল ইসলাম, তৃপ্তি মোহন মল্লিক, পল্টু বাশার, চৈতালী মুখার্জী প্রমুখ। সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন এনডিসি মোশারেফ হোসাইন ও জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সদস্য সচিব শেখ মোশফিকুর রহমান মিল্টন।
অনুষ্ঠানে বক্তারা জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জীবন, কর্ম ও আদর্শ তুলে ধরে বলেন, ‘জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের লেখা বাঙালি জাতিকে আলোকিত করে। সাম্প্রদায়িকতা নামক বিষবৃক্ষের মূলে কুঠারাঘাত করে কাজী নজরুল ইসলাম দেখিয়েছেন বাঙালি চিরকাল অনন্য অসাম্প্রদায়িক। দ্রোহের কবি কাজী নজরুলের লেখা আজো বাঙালিকে দেশ প্রেমে ঐক্যবদ্ধ করে। মহা বিদ্রোহের আগ্নেয়গিরি কাজী নজরুল ইসলাম আমাদের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় তার অবিনাশী গান ও কবিতা চির প্রেরণার উৎস। প্রেমের কবি কাজী নজরুল ইসলাম আমাদের সান্ত¦নার অনন্য প্রতীক। সাম্যের কবি কাজী নজরুল আমাদের এগিয়ে চলার দুরন্ত সাহস। ঊষার দুয়ারে আঘাত হেনে রাঙা প্রভাত আনতে জীবনের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। মানবিকতার এক মহান সৃষ্টি সুখের উল্লাসে কাপা কাজী নজরুল ইসলামের জীবন, কর্ম ও আদর্শকে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে ছড়িয়ে দিতে হবে। বাংলা সাহিত্যাকাশের উজ্জ্বল নক্ষত্র হিসেবে কাজী নজরুল ইসলাম অনন্তকাল আলো জ্বেলে যাবে আমাদের মাঝে।