পারুলিয়া ব্রীজ হতে সখিপুর বাজারগামী রাস্তাটি ইট সোলিংয়ের দাবি


প্রকাশিত : জুন ১০, ২০১৮ ||

দেবহটা সংবাদদাতা: পারুলিয়া ব্রীজ হতে সখিপুর বাজারগামী রাস্তাটি ইট সোলিংয়ের দাবি এলাকাবাসির। জানা যায়, পারুলিয়া ব্রীজ হতে সখিপুর ব্রীজ সংলগ্ন সাপমারা খালের পার্শ্ববর্তী জনবহুল কাঁচা এ রাস্তটি পাকা না হওয়ায় সাধারণ মানুষের চলাচলে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে দীর্ঘ দিন। দেবহাটার রাজধানী নামে পরিচিত পারুলিয়া বাজারটিতে রয়েছে অসংখ্য দোকান পাট, কলকারখানা, মসজিদ, মন্দির, ব্যাংকবীমাসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তাছাড়া বাজারে রয়েছে মৎস্য সেড এখানে বিভিন্ন এলাকা থেকে ঘের ব্যবসায়ীরা প্রতিদিন সকালে বাগদা, গলদা, সাদামাছ ক্রয়-বিক্রয় করে থাকে। যা থেকে সরকার লক্ষ লক্ষ টাকা রাজস্ব পেয়ে থাকে। এছাড়া পারুলিয়া সাপমারা খালের অপর পাশে অবস্থিত সখিপুর বাজার। এখানেও রয়েছে সাব-রেজিস্ট্র্রি অফিস, অসংখ্য দোকান পাট, ব্যাংক, বীমা, কাঁচা বাজার, মসজিদ, মন্দির ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এ বাজার থেকেও প্রতি বছরে সরকারের আদায় হয়ে থাকে লক্ষ লক্ষ টাকা রাজস্ব। কিন্তু দীর্ঘদিন সাপমারা খালের পাশে অবস্থিত এই কাঁচা রাস্তাটি পাকা না হওয়ার কারণে ভোগান্তি শেষ হচ্ছে না পথচারিদের। এছাড়া একটু বৃষ্টি হলেই ভোগান্তিতে পড়তে হয় দূর দূরান্ত থেকে আসা সাইকেল মোটর সাইকেল ভ্যান চালক ও সাধারণ পথচারীদের। রাস্তাটিতে সরোজমিনে যেয়ে পথচারিরা জানান, সামনে বর্ষা মৌসুম এখনি যদি রাস্তাটি পাকা করণ না করা হয়, তাহলে আমাদের ভোগান্তির শেষ থাকবে না। তাছাড়া পারুলিয়া চিংড়ি বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা জানান, সাতক্ষীরা জেলার সাদা সোনা নামে খ্যাত বিভিন্ন চিংড়ি জাতিয় মাছ বিদেশে রপ্তানি করে সরকার কোটি কোটি টাকা রাজস্ব পায়। যা ক্রয়-বিক্রয়ে সাতক্ষীরা জেলার একটি বড় বিপনি হচ্ছে পারুলিয়া মৎস সেট। তাই মৎস সেটে যাওয়ার এই কাঁচা রাস্তাটি পাকা হলে ব্যবসায়ি সহ সাধারণ মানুষের ভোগান্তি অনেকটাই কমবে। পারুলিয়া শুভ মেডিকেল হলের পরিচালক দেবাশীষ বিশ্বাস (দেবা) বলেন, খালের পার্শ্ববর্তী রাস্তাটি পাকা করণ হলে সাধারণ মানুষের চলাচলের সুবিধা হবে এবং সার্বিক পরিবেশের উন্নতি ঘটবে। তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে এলাকাবাসীর দাবি রাস্তটি দ্রুত পাকাকরণ করে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি নিরাসন করা হোক।