ডুমুরিয়ায় মুক্তিপণের দাবিতে শিশু অপহরণ: ২০ ঘন্টা পর উদ্ধার


প্রকাশিত : জুন ১০, ২০১৮ ||

 

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি: ডুমুরিয়ায় অভিনব কায়দায় মুক্তিপণের দাবিতে রাবেয়া খাতুন (৬) নামের এক শিশুকন্যাকে অপহরণ করা হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার আরাজি সাজিয়াড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শিশুর পিতা আব্দুল হামিদ গাজী বাদী হয়ে ডুমুরিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। তবে অপহরণের ২০ ঘন্টা পর অপহৃত শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

মামলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার গাবুরা গ্রামের আব্দুল হামিদ গাজী পরিবার পরিজন নিয়ে ৮মাস যাবত ডুমুরিয়া উপজেলার আরাজি সাজিয়াড়া গ্রামে যশোর শেখের বাড়ীতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছে। এরমধ্যে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে অজ্ঞাত স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে একই বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে অবস্থান নেয়। একদিন পর অর্থাৎ ঘটনার দিন দুপুরে ওই দম্পতি সুযোগ বুঝে আব্দুল হামিদের শিশু কন্যা রাবেয়াকে দোকানে নিয়ে মিষ্টি দেয়ার লোভ দেখিয়ে ফুঁসলিয়ে নিয়ে যায়। এরপর শিশুটিকে খোঁজাখুঁজি করে কোথাও না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়ে পরিবারটি। এদিকে ঘটনার প্রায় দুই ঘন্টাপর প্রতিবেশী পারুল বেগমের মোবাইলে রাবেয়া জীবিত আছে উল্লেখ করে ৩০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। এ ঘটনায় ওসি হাবিল হোসেন বলেন, শিশুর পিতা আব্দুল হামিদ বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনা প্রসঙ্গে মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) তারক বিশ্বাস জানান ঘটনার ২০ ঘন্টা পর শিশুটিকে খুলনার রুপসা ব্রীজ এলাকা থেকে লবনচরা থানা পুলিশ অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করেছে। সে এখন খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি, তবে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।