কয়রায় নিরীহ জেলেদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানী!


প্রকাশিত : জুলাই ৯, ২০১৮ ||

কয়রা (খুলনা) প্রতিািনধি: কয়রা উপজেলার মহেশ্বরীপুর ইউনিয়নের ৩৩জন নিরিহ লোকদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন জায়গায় মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানী করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সকল অভিযোগ ও ষড়যন্ত্র থেকে রেহাই পেতে ভুক্তভোগীরা মহা-পুলিশ পরিদর্শকসহ বন বিভাগের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবর লিখিত আবেদন করেছেন। এতে প্রায় দুই শতাধিক লোক স্বাক্ষর করেছেন। লিখিত আবেদনে জানা গেছে, উপজেলার মহেশ্বরীপুর গ্রামের মৃত্যু মানিক সরদারের পুত্র মো. নুর আলী সরদার বাদী হয়ে সম্প্রতি মহেশ্বরীপুর এলাকার নিরীহ ৩৩ জনের নাম উল্লেখ করে বন মন্ত্রীসহ বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ করেছেন। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে উক্ত ব্যক্তিরা পাশপারমিট ছাড়া সুন্দরবনে প্রবেশ করে বিষ দিয়ে মাছ ধরে আসছে। আর অবৈধ সুযোগ নিয়ে বনরক্ষীরা এর সহযোগিতা করছে। এলাকার এ সকল সাধারন জেলেরা সুন্দরবনের বৈধ পাশপারমিট নিয়ে দির্ঘদিন যাবত মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। এরা কখনও অবৈধ কাজের সাথে জড়িত ছিলনা। অভিযোগে আরও জানা গেছে, নুর আলী সরদারের বিরুদ্ধে সুন্দরবনে বিষ প্রয়োগ করে মাছ ধরা ও কাঠ পাচারের অভিযোগে তাকে বনবিভাগের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে সুন্দরবনে প্রবেশ করা বন্ধ করে দেওয়া হয়। আর সেই থেকে তিনি সুন্দরবনে প্রবেশ করতে না পেরে বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ করে নিরিহ মানুষের হয়রানী করছে। সম্প্রতি এ সকল অভিযোগের বিষয় বনবিভাগ তদন্ত করলে নুর আলী সরদারের অভিযোগ মিথ্যা প্রমানিত হয়। ঐ অভিযোগে তাকে খোড়লকাটি বাজারে বিল্লাল, রফিক ও অজিয়ার মারপিঠ করেছে বলে উল্লেখ করা হলেও এ ধরনের কোন ঘটনা এলাকায় ঘটেনি। এলাকবাসি জানায়, নুর আলী সরদারের বিরুদ্ধে অস্ত্র, ডাকাতিসহ একাধিক মামলা রয়েছে। সে এলাকার সাধারণ মানুষের বিভিন্নভাবে নির্যাতন করে থাকে। তার বিভিন্ন কর্মকা- তুলে ধরে পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তা বরাবর লিখিত আবেদন করেছেন।