আশাশুনিতে পিতার লোকজনের হামলায় ৭জন জখম


প্রকাশিত : August 29, 2018 ||

আশাশুনি ব্যুরো: আশাশুনির পল্লীতে পিতার লাঠিয়াল বাহিনী একতরফা হামলায় ১ম পক্ষের স্ত্রী, পুত্র ও পুত্রবধুসহ ৭ জনকে মারপিট করে রক্তাক্ত জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার শোভনালী ইউনিয়নের দক্ষিণ গোদাড়া গ্রামে। প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতালে ভর্তি আহতরা জানান, ওই গ্রামের মৃত তমির উদ্দীনের পুত্র আলতাফ গাজী দাম্পত্য জীবনে তার ১ম পক্ষের স্ত্রী মোমেনা খাতুন ওরফে কিনি বিবির নামে একখন্ড জমি দানপত্র করেন। পরবর্তীতে ওই জমি তঞ্চকী করে আবারও ২য় বিয়ে করা স্ত্রী আমেনা খাতুনের নামে দানপত্র দেখান। এনিয়ে প্রথম পক্ষের স্ত্রী-পুত্রের সাথে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে ঘটনার দিন আলতাফ গাজী ও তার পেটুয়া বাহিনী পার্শবর্তী চাম্পাফুলের মনি খাঁ, বাবু খাঁ, নজরুল খাঁ, হাফিজুল গাজী, মফিজুল গাজী, ওলি গাজীসহ ১০/১২ জন লোহার রড ও লাঠি নিয়ে ১ম স্ত্রী কিনি বিবির বাড়িতে হামলা চালিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় মারপিট করে হাত-পা ভেঙে রক্তাক্ত জখম করে। কিনি বিবির ডাকচিৎকারে তার পুত্র ও পুত্রবধুরা এগিয়ে গেলে তাদেরকেও মারপিট করে রক্তাক্ত জখম করে। এতে ১ম স্ত্রী কিনি বিবি, পুত্র আহসান গাজী, পুত্রবধু মর্জিনা খাতুন, ফিরোজা খাতুন ও নাজমা, কন্যা আমেনাসহ কমপক্ষে ৭ জন গুরুতর আহত হয়। পার্শবর্তী লোকজন তাদেরকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে আশাশুনি হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি হলে কিনি বিবিসহ ৩ জনকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, পাষন্ড পিতা আলতাফ গাজী উদুর পিন্ডি বুদুর ঘাড়ে চাপাতে অহেতুক তার পক্ষীয় ২ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করেছে বলে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এ ব্যাপারে আশাশুনি থানায় কিনি বিবির পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছিল বলে জানা গেছে।