জবাবদিহিমূলক স্থানীয় সরকার প্রকল্পের শুরু নিয়ে কর্মশালা


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৮ ||

পত্রদূত ডেস্ক: স্থানীয় সরকার বাস্তবায়নাধীন ‘কার্যকর ও জবাবদিহিমূলক স্থানীয় সরকার’ প্রকল্পের ইনসেপশন (শুরু) কর্মশালা বৃহস্পতিবার সকালে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে তাঁর সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনার বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া বলেন, পিছিয়ে পড়া স্থানীয় সরকার সংগঠনকে এগিয়ে নিতে সরকারি অর্থায়নের পাশাপাশি স্থানীয় সম্পদকে কাজে লাগানো প্রয়োজন। সম্পদ ব্যবহারে সঠিক পরিকল্পনা প্রনয়ণ ও বাস্তবায়নে জনপ্রতিনিধি ও সংযুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোকে আরও সচেতন হতে হবে। এপ্রকল্পের মাধ্যমে উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নে স্থানীয় সরকারকে কারিগারি সহায়তা প্রদান করা হবে। সুষ্ঠুভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে অর্থ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে জবাবদিহিমূলক স্থানীয় সরকার দৃশ্যমান হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, অনিয়ম, দুর্বলতা, উন্নয়নের ক্ষেত্র চিহ্নিত করে গুণগতসেবা নিশ্চিত করতে শক্তিশালী স্থানীয় সরকার পরিকাঠামো গড়ার কোন বিকল্প নেই।
স্থানীয় সরকার বিভাগ খুলনার উপপরিচালক ইশরাত জাহান স্বাগত জানিয়ে বলেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহ বিশেষত ইউনিয়ন পরিষদ এবং উপজেলা পরিষদসমূহকে আরও কার্যকর করতে উপজেলা পরিষদ গভার্নেন্স প্রজেক্ট (ইউজেডজিপি) ও ইউনিয়ন পরিষদ গভার্নেন্স প্রজেক্ট (ইউপিজিপি) এর সমন্বিত ফেজ হিসেবে উন্নয়ন সহযোগীদের সহায়তায় দ্বিতীয় পর্যায়ে ‘কার্যকর ও জবাবদিহিমূলক স্থানীয় সরকার’ প্রকল্প স্থানীয় সরকার বিভাগের মাধ্যমে বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পের আওতায় আটটি বিভাগের আটটি জেলা থেকে অপেক্ষাকৃত পিছিয়ে পড়া মোট ১৬টি উপজেলা পরিষদ ও ২৪০টি ইউনিয়ন পরিষদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করার লক্ষে ২০১৮ থেকে ২০২২ মেয়াদে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এই প্রকল্পের প্রধান উদ্দেশ্য হলো স্থানীয় সরকার এবং সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের সক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে অংশগ্রহণমূলক স্থানীয় উন্নয়ন তরান্বিত করা।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগ খুলনার পরিচালক হোসেন আলী খোন্দকার এবং স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব মো. ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী।
প্রকল্পের ডিস্ট্রিক্ট ফ্যাসিলিটেটর মো. ইকবাল হাসান প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ফলাফল বিস্তারিতভাবে তুলে ধরে বলেন, খুলনা জেলার ৩০টি ইউনিয়ন পরিষদে এবং রূপসা ও দাকোপ উপজেলায় পাইলটিং আকারে প্রকল্পের কার্যক্রম পরিচালিত হবে। পরে প্রধান অতিথি ইউনিয়ন পর্যায়ের সকল ওয়ার্ডে সভা করার জন্য প্রকল্পের আওতাধীন ১৫টি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের চেক প্রদান করেন।