ঝাউডাঙ্গায় জমি দখল করে ঘর নির্মাণ, আজ শালিসে বসবেন নেতারা!


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৮ ||

মনিরুল ইসলাম মনি: সদর উপজেলা ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়নের আখড়াখোলা বাজারের উপর ১০শতক জমি ক্রয় করে ১৩ শতক জমি দখল করে পাঁকাঘর জোর করে নির্মাণ করছে। অভিযোগ উঠেছে কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা ফিরোজ আহম্মদ স্বপনের আত্মীয় পরিচয়ে এই জমি দখল করে পাকাঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। এছাড়াও পুলিশ প্রশাসনের কোন প্রকার বাঁধা না মেনে ওই জমি দখলবাজি কাজ অব্যাহত রেখেছে। বৃহস্পতিবার এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম শওকত হোসেনের নির্দেশে ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মিরা সরেজমিনে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দেন। একই সাথে আজ শুক্রবার স্থানীয়ভাবে আলোচনা বসে বিষয়টি মিমাংসা করা হবে বলে আওয়ামী লীগ নেতারা জানান। সদর উপজেলা ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়নের আখড়াখোলা বাজারের তুলসি সাধু, কার্তিক সাধু জানান, তাদের নিকটজন দুলাল সাধুর কাছ থেকে এগারআনি গ্রামের এক সময়ের চোরাকারবারী, পুলিশের দালাল আলাউদ্দিন ১০ শতক জমি ক্রয় করে। আলাউদ্দিন কৌশলে ১০ শতকের বদলে ১৩ শতক জমি দখল করে নেয়। এ নিয়ে কয়েক দফায় এলাকায় শালিস বসানো হয়। কিন্তু দখলবাজ আলাউদ্দিন কারো কথা শোনেন না। তিনি কাউকে না মেনে দখল করে পাঁকাঘর নির্মাণ কাজ চালিয়ে যেতে থাকেন। এর মধ্যে বিষয়টি সদর থানা পুলিশের জানানো হয়। থানা থেকে এসআই শরিফ এনামুল হক সরেজমিনে এসে দুই পক্ষ সমঝোতা না হওয়া পর্যন্ত কাজ বন্ধ রাখার ও নির্দেশ দেন। এতে বর্তমানে কাজ বন্ধ রয়েছে। দখলবাজ আলাউদ্দির জানান, তিনি ১০ শতক জমি ক্রয় করেছেন। তিনি কোন জমি দখল করেনি। যেটুকু কিনেছেন তাতেই ঘর নির্মাণ করছেন।