গ্রীষ্মকালীণ টমেটো চাষে সফলতায় আগ্রহ বেড়েছে তালার কৃষকদের


প্রকাশিত : September 23, 2018 ||

পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি: গ্রীষ্মকালীণ টমেটো চাষে সফলতায় আগ্রহ বেড়েছে তালা উপজেলার কৃষকদের। গত বছর প্রাথমিকভাবে সাড়ে ৩ হেক্টর জমিতে আবাদ হলেও ফলন ও দাম ভাল পাওয়ায় এবার তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হেক্টরে। স্থানীয় কৃষি অফিসের দাবি, গ্রীষ্মকালীণ টমোটো চাষের উপযোগী মাটি ও অনুকূল পরিবেশ বিদ্যমান থাকায় আগামীতে আরো বেশি জমিতে আবাদ করবেন কৃষকরা।
অসময়ে টমেটোর ভাল ফলন ও দাম বেশি পাওয়ায় স্থানীয় চাষিদের মধ্যে আগ্রহ বাড়ছে। তাদের এ সাফল্যে অন্যান্যরাও উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন টমেটোতে। স্থানীয় কৃষি অফিস জানায়,তালা উপজেলায় এবছর মোট ৬ হেক্টর জমিতে গ্রীষ্মকালীণ টমেটোর আবাদ হয়েছে। গত বছর এর পরিমাণ ছিল মাত্র সাড়ে ৩ হেক্টর। ভাল ফলন ও দাম বেশি পাওয়ায় মূলত তালায় টমেটোর আবাদেও এ অগ্রগতি বলে জানান, স্থানীয় কৃষি অফিস।
কৃষক ও কৃষি অফিস জানায়, প্রতি বিঘা জমিতে টমেটোর আবাদে করতে খরচ হয়, প্রায় ২ লাখ টাকা। সর্বনি¤œ বিক্রিয় হয় ৪ টাকা। অসময়ে বিঘা প্রতি ২ লাখ টাকা লাভ পেয়ে সামগ্রিকভাবে কৃষকদের শুধু অর্থনৈতিক পরিবর্তনই নয়, পরিবর্তন ঘটেছে মানষিক অবস্থারও। জানাযায়, উপজেলার কৃষকরা মূলত বারি-৮ ও বারি-৪ জাতের টমেটোর আবাদ করেছেন। ফলন, মান ও চাহিদানুযায়ী ভাল দাম পাওয়ায় হওয়ায় মূলত কৃষকরা এ দু’জাতের টমেটো চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।
এ ব্যাপারে কথা হয় তালা উপজেলার নগরঘাটার গাজী রহমানের সাথে। তিনি প্রায় ৫০ শতক জমিতে গ্রীষ্মকালীণ টমেটোর আবাদ করেছেন। ইতোমধ্যে তার ক্ষেত থেকে টমেটো উঠতে শুরু করেছে। তিনি বলেন,সবকিছু ঠিক থাকলে বিঘা প্রতি তার ২ লাখ টাকার উপরে লাভ হবে। এছাড়া একই এলাকার সফিকুল ইসলাম ৫০ শতক জমিতে, রফিকুল ইসলাম ৫০ শতক, রেজাউল ইসলাম ৩৩ শতক,কালী বাড়ির মাসুদ রানা ৩৩ শতক ও তৈলকুপির সাইফুর রহমান বাবু ৬৬ শতক জমিতে গ্রীষ্মকালীণ টমেটোর আবাদ করেছেন। সরেজমিনে প্রতিবেদনকালে তারা সকলেই জানান,আবহাওয়ার অনুকুল পরিবেশে তাদের আবাদ ভাল হয়েছে। অধিকাংশ ক্ষেতে ইতোমধ্যে টমেটো উঠতে শুরুকরেছে। স্থানীয় বাজারে প্রতি কেজি টমেটো বিক্রি হচ্ছে খুচরা ৮০ টাকা ও পাইকারী ৭০ টাকা। অসময়ে পাকা টমেটোর উপস্থিতি সব্জির বাজাওে আরাদা মাত্রা যোগ করেছে। দাম বেশি হলেও ক্রেতাদের আগ্রহ থাকায় বাজারে গর্বিত চাষী হিসেবে তারাও পুলকিত।
এ ব্যাপারে কথা হয় উপজেলার সরুলিয়া ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা কল্যান পালের সাথে। তিনি জানান, তার এলাকার কৃষকদের মধ্যে গ্রীষ্মকালীণ টমেটো চাষে আগের যেকোন সময়ের চেয়ে আগ্রহ বেড়েছে।
উপজেলার মাটি গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষের উপযোগী ও লাভজনক হওয়ায় কৃষকদের টমেটো চাষে উদ্বুদ্ধ করছেন তারা। তিনি আরও জানান, সাধারণত মাচের্র প্রথম দিকে বীজ বপন করতে হয় এরপর মে মাসে বীজতলা থেকে ওই চারা উঠিয়ে ক্ষেতে রোপন করতে হয়। সুষ্ঠু পরিচর্যায় জুন-জুলাই মাসে গাছে ফল আসতে শুরু করে। একাধারে ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাস পর্যন্ত টমেটো পাওয়া যায়।
তালা উপজেলা কৃষি কর্মকর্ত আব্দুল¬াহ মামুন জানান, সারা বছর সবজির চাহিদা পূরণ করতে গ্রীষ্মকালীন উদ্ভাবিত বারি-৪ ও বারি-৮ জাতের টমেটো চাষ করতে পরামর্শ দেন তিনি। সাদা পলিথিনের ছাউনি দিয়ে গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ খুবই সহজ। উপজেলা কৃষি অফিস টমেটো চাষিদের প্রয়োজনীয সব ধরনের সহযোগিতা দিচ্ছে।