শ্যামনগরে ন্যাশনাল হাউজহোল্ড ডাটাবেজের গণনাকারী দিপিকা রানী সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত


প্রকাশিত : অক্টোবর ৫, ২০১৮ ||

উপকূূলীয় অঞ্চল (শ্যামনগর) প্রতিনিধি: সরকারি দায়িত্ব পালনকালে ন্যাশনাল হাউজহোল্ড ডাটাবেজের গণনাকারী দিপিকা রানী সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মক আহত হয়ে খুলনা ৫০০শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসাধিন অবস্থায় গত ৪ অক্টোবর সকাল ৮টার সময় মৃত্যুবরণ করেন। উল্লেখ্য, সরকার এবং ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের যৌথ উদ্যোগে গত ২৭সেপ্টেম্বর হতে খুলনা, রাজশাহী এবং সিলেট বিভাগে ন্যাশনাল হাউজহোল্ড ডাটাবেজের তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে শ্যামনগর উপজেলার মুন্সীগঞ্জ ইউনিয়নে ৭জন সুপারভাইজার এবং ৪০ জন গণনাকারী নিয়োগ করা হয়েছে। দিপিকা রানী উক্ত গণনাকারীদেরই একজন। উক্ত গণনা কার্য সুপারভিশনের জন্য নিয়োজিত কো-অডিনেটর রুহুল আমিন ১-১০-১৮ তারিখে মুন্সীগঞ্জ রাধা-গোবিন্দ মন্দিরে সকল গণনাকারীর বইয়ের ভুল ত্রুটি যাচাইয়ের উদ্দেশ্যে হাজির হতে বলেন, যাচাই শেষে গণনাকারী দিপিকা রানী তার নির্ধারিত গণনা এলাকাতে কাজ করার উদ্দেশ্যে মটরসাইকেল যোগে যাওয়ার পথে কুলতলী ব্রিজের কিছু দূরে পিচের রাস্তার উপর সৃষ্ট চোরা ড্রেনে মটরসাইকেলের প্রচন্ড ধাক্কায় রাস্তায় পড়ে যান। এসময় তার মাথার পিছনের দিকে চুলে লাগানো বড় সাইজের কাঁকড়া ক্লিপের দাঁতগুলি মাথার পিছনে ঢুকে যায়। তাকে উদ্ধার করে দ্রুত শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে মাথায় সেলাই শেষে অবস্থা মারাত্মক আশংকাজনক হওয়ায় তাকে সাতক্ষীরাতে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু, অবস্থার ক্রমাবনতি হওয়ায় খূলনা সার্জিক্যালের আইসিইউ-তে ভর্তি করা হয়। অবশেষে তাকে বুধবার খুলনা ৫০০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এবং সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত বৃহস্পতিবার জীবন যুদ্ধে হেরে যান। উক্ত দিপিকা রানীর কন্যা অনুরাগ ৪র্থ শ্রেণির এবং অপর কন্যা অর্পিতা সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। দরিদ্র রবীন্দ্র নাথ তার স্ত্রীর অকাল মৃত্যুতে অসহায় দুই কন্যাকে নিয়ে দারুণ ভেঙে পড়েছেন।