পৌরসভার দারোয়ান বলে কথা!


প্রকাশিত : অক্টোবর ১৩, ২০১৮ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: পৌরসভার মাস্টাররোলভুক্ত কর্মচারী দারোয়ার কামরুলের দখলবাজীর কারণে এলাকাবাসি অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। শহরের ৮নং ওয়ার্ডের কামালনগর এলাকায় রাবির কাছ থেকে জমি কিনে বাড়ি করে একের পর এক প্রতিবেশিদের সাথে বিবাদ লাগিয়ে চলেছেন কামরুল। সম্প্রতি তার বাড়ির সামনে পৌরসভার রাস্তার উপর বাথরুমের ট্যাঙ্কি নির্মাণের জন্য বিশাল গর্ত খুড়েছে। প্রথমে এলাকার মানুষ বাঁধা দিতে গেলে তিনি সাফ জানিয়ে দেন ‘আমি পৌরসভার লোক কোন যায়গায় ট্যাঙ্কি করব সেটা আমার ব্যাপার’ এরপর এলাকার মানুষ স্থানীয় কাউন্সিলরকে জানালে তিনি তাকে কাজ বন্ধ করার জন্য বলেন। কিন্তু কামরুল কাউন্সিলরের কথায় কাজ বন্ধ করেননি। এরপর এলাকাবাসি আবার কাউন্সিলরকে জানালে তিনি সার্ভেয়ার মামুনকে বিষয়টি দেখার এবং কাজ বন্ধ রাখার জন্য বলেন। সার্ভেয়ার মামুন সাথে সাথে এসে প্রথমে তাকে কাজ বন্ধ রাখার জন্য বলেন এবং এত জনবহুল একলাকার মধ্যে রাস্তার ধারে রিং দিয়ে পৌরসভার জায়গায় বাথরুমের ট্যাংকি করা পরিবেশের জন্য মারাত্বক ক্ষতি এবং দৃষ্টিকটু হবে বলে জানান। এরপর সে কাজ বন্ধ করে দিয়ে বিভিন্ন রকম ষড়যন্ত্র করতে থাকে। এক পর্যায়ে তার প্রতিবেশিদের মিথ্য মামলা দিয়ে ফাসানোর হুমকি দেয়। এলাকাবাসি জানান, সামান্য ৬০০০ টাকা বেতনের চাকরি করে কামরুল কয়েক লাখ টাকা খরচ করে গ্যাসের দোকান, খাবার হোটেল এবং বিলের ভিতরে বেশ কিছু জায়গাও কিনেছেন। দারোয়ান হয়ে তিনি পৌরসভায় যায় নিয়মিত মটরসাইকেল চড়ে অনেকে মনে করেছে পৌরসভায় দারোয়ানের চাকরি এতকিছু করা কি করে সম্ভব। বিষয়টি নিয়ে পৌর কাউন্সিলর ফারহা দিবা খান সাথীর সাথে কথা হলে তিনি জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি আমিও কামরুলকে কাজ করতে নিষেধ করেছি। কারণ কামালনগর এলাকায় এখন ‘লেক ভিউ’ তে প্রশাসনে লোক সহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোক যাতায়ত করে এই জন্য কোন মতেই খোলা যায়গায় পৌরসভার রাস্তার ধারে বাথরুমের ট্যাংকি করতে দেওয়া হবেনা। কামরুল যে কাজ করেছে সেটা দু:খজনক। অফিস খুললে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।