কেশবপুরে যৌথবাহিনীর হাতে ধানের শীষের এজেন্টসহ ১৫ জন গ্রেপ্তার


প্রকাশিত : ডিসেম্বর ২৯, ২০১৮ ||

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি: যশোর-৬ কেশবপুর আসনে ধানের শীষ প্রতীকের পোলিং এজেন্টসহ বিএনপি-জামায়াতের ১৫ জন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার রাতে ও শনিবার সকালে যৌথ বাহিনী বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।
আটকরা হলেন, উপজেলার পাঁচ বাকাবর্শি গ্রামের আবদুস সোবাহানের ছেলে ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাসুদুজ্জামান মাসুদ (৩৭), মির্জাপুর গ্রামের আবদুল গফ্ফারের ছেলে ওয়ার্ড বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম(৪০), রামকৃষ্ণপুর গ্রামের শাহাজান গাজীর ছেলে মঙ্গলকোট ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি সোহাগ হোসেন (৩০), বাঁশবাড়িয়া গ্রামের মাকসুদুর রহমানের ছেলে ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবদুল আওয়াল(৪০), ব্যাসডাঙ্গা গ্রামের মৃত জাব্বার গাজীর ছেলে ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি হোসেন আলী গাজী(৫০), হিজলডাঙ্গা গ্রামের নিছার সরদারের ছেলে ওয়ার্ড বিএনপির প্রচার সম্পাদক শাহীনুর রহমান(৩২), ভালুকঘর গ্রামের মৃত লোকমান গাজীর ছেলে সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন জামায়াতের সেক্রেটারি আবদুর রাজ্জাক গাজী(৫৫), দশকাউনিয়া গ্রামের খবির উদ্দিনের ছেলে গৌরিঘোনা ইউনিয়নের ছাত্র শিবিরের সভাপতি খসরুজ্জামান(৩০), গৃধরনগর গ্রামের আমিন উদ্দিনের ছেলে সুফলাকাটি ইউনিয়নের ছাত্র শিবিরের সেক্রেটারি আবু তাহের(২৫), কালিচরনপুর গ্রামের মৃত গহর গাজীর ছেলে সুফলাকাটি ইউনিয়নের জামায়াতের সেক্রেটারি আবদুস সামাদ(৪০), চাঁদড়া গ্রামের মৃত সুরহাত আলীর ছেলে ত্রিমোহিনী ইউনিয়নরে জামায়াতের সদস্য মতিয়ার রহমান(৩৫), শাহাপুর গ্রামের বেলায়েত আলীর ছেলে ত্রিমোহিনী ইউনিয়ন জামায়াতের সদস্য হাফিজুর রহমান(৪৫), টিটাবাজিতপুর গ্রামের মৃত জবেদ আলীর ছেলে বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়নের জামায়াতের সেক্রেটারি মোসলেম সরদার(৪৮), নেহালপুর গ্রামের মৃত আজব আলীর ছেলে হাসানপুর ইউনিয়নের জামায়াতের সদস্য আতিয়ার রহমান(৫০) ও একই গ্রামের ইসমাইল দফাদারের ছেলে ওই ইউনিয়নের জামায়াতের সদস্য রুবেল দফাদারকে(৪০) নিজ নিজ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার কর হয়েছে।
এদিকে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী আবুল হোসেন আজাদ বলেন, গ্রেপ্তারকৃত পাঁচ বাকাবর্শি গ্রামের ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাসুদুজ্জামান মাসুদ তার পোলিং এজেন্ট। কিন্তু তাকেও গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
থানার ওসি মো. শাহিন জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে থানায় নাশকতা সৃষ্টির মামলা রয়েছে। তারা সবাই পুলিশের তালিকাভুক্ত। শনিবার দুপুরে গ্রেপ্তারকৃতদের যশোর আদালতে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানসহ আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখার লক্ষে যেখানে যা প্রয়োজন সেখানে তাই করা হবে।