জাপা ও গণফোরামের নেতা সেজে জামায়াতের নেতাকর্মীদের আ.লীগে যোগদান!


প্রকাশিত : জানুয়ারি ২৮, ২০১৯ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: জেলায় জামায়াতের নেতাকর্মীরা জাপা ও গণফোরামের নেতা সেজে আওয়ামী লীগে যোগদান শুরু করেছে। শনিবার সন্ধ্যায় জেলা আওয়ামী লীগে সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলামের হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন জাপা ও গণফোরামের ২০ জন নেতাকর্মী বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ছবিসহ সংবাদটি প্রকাশিত হলে আসল রহস্য বের হয়ে আসে। যোগদানকারীরা সাতক্ষীরা কোটের অতিরিক্ত পিপি ও জেলা জাতীয় পার্টির আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. মিজানের নেতৃত্বে আ.লীগে যোগদান করেন। তবে অন্যরা নিজেদের গণফোরাম নেতা দাবী করলেও আসলে তারা সকলেই জামায়াতের নেতাকর্মী বলে স্থানীয়রা জানান। স্থানীয় এক জামায়াতের নেতা জানান, সদ্য আওয়ামী লীগে যোগদানকৃত মাষ্টার নজরুল ইসলাম জামায়াতের নেতা ছিলেন। তিনি সুলতানপুর শাহাপাড়া জামায়াতের ইউনিট শাখার একজন দায়িত্বশীল ছিলেন। বর্তমানে তিনি সদরের মাছখোলা দাখিল মাদ্রাসায় সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ে শিক্ষকতা করেন। একই প্রতিষ্ঠানের অফিস সহকারী আশরাফুল ও জামায়াতের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। শহরের ৫নং ওয়ার্ডের মেঝমিয়ার মোড়ে মুদি দোকানি জাহাঙ্গীরকে মাষ্টার সাজিয়ে আওয়ামী লীগে যোগদান করানো হয়। সেও জামায়াতের একজন সক্রিয় সহযোগী। তার দোকান থেকে এড. মিজান মালামাল কেনাকাটা করতেন। শনিবার যারা আওয়ামী লীগে যোগদান করেছে তাদেরকে এড. মিজান জোরকরে আপওয়ামী লীগে যোগদান করান বলে অনেকে অভিযোগ উঠে।
এ বিষয়ে সাতক্ষীরা কোটের অতিরিক্ত পিপি এড. মিজান বলেন, যাদের নিয়ে যোগদান করেছি তারা পূর্বে জামায়াতে ছিল কি না সে বিষয়ে আমার জানা নাই। তবে তারা জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গণফোরামের হয়ে কাজ করেছে বলে আমি জানি।
তবে জেলা আওয়ামী লীগে সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: নজরুল ইসলাম জানান, যারা আওয়ামী লীগে যোগদান করতে চায় তাদেরকে যাচাই বাছাই করা হচ্ছে। জামায়াতের কেউ যাতে আওয়ামী লীগে যোগদান করতে না পারে সে বিষয়ে নজর রাখা হচ্ছে।