যশোরের শার্শায় ৩টি ভিন্ন জাতের কুল চাষে সাফলতা


প্রকাশিত : February 8, 2019 ||

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি: থোকায় থোকায় ধরেছে তিন সুন্দরী সুমিষ্ট কুল। নুইয়ে পড়েছে কুল গাছের মাথা। যশোরের শার্শার রাজনগর গ্রামের মুন্না পারভেজ পার্শবর্তী দেশ ভারত থেকে বেবি সুন্দরী, কাশমেরি সুন্দরী ও চায়না আপেল নামে নতুন ৩টি জাতের বোরোই (কুল) চাষ করে এলাকায় সাড়া জাগিয়েছে। ফলন ও দাম ভাল পেয়ে খুশি চাষি। ভিন্ন জাতের বোরোই দেখতে বিভিন্ন এলাকার কৃষকরা তার জমিতে ভিড় করছে। এ কুল চাষে আগ্রহ বাড়ছে চাষীদের।
কুলচাষি পারভেজ বলেন, দেশে বিভিন্ন প্রজাতির কুল আছে। ভারত থেকে নতুন তিনটি জাতের কুলের চারা এনে ২বিঘা জমিতে রোপন করেন। ৫০হাজার টাকা খরচে ৭মাসেই পেয়েছেন ভাল ফলন। ১লাখ ২০হাজার টাকার বিক্রি করেছেন দেখতে সুন্দর ও সুমিষ্ট এ কুল। আরো ৫০ হাজার টাকার কুল বিক্রির আশা তার।
বেবি সুন্দরী, কাশমেরি সুন্দরী ও চায়না আপেল জাতের ৬ ইঞ্চি সাইজের ছোট ছোট কুল গাছের চারা ২০১৮সালের জুলাই মাসে পার্শবর্তী দেশ ভারত থেকে সংগ্রহ করে ২বিঘা জমিতে রোপন করেন। বেবি সুন্দরী দেখতে আপেলের মত, ২সাইড বসা, একটি কুলের ওজন ৮০ থেকে ১০০ গ্রাম। কাশমেরি সুন্দরী কুলের ওজন ৯০ থেকে ১১০ গ্রাম এবং চাইনা সুন্দরী দেখতে কিছুটা লম্বা আপেলের মত একটি কুলের ওজন ৭০ থেকে ৮০ গ্রাম। শার্শার মাটি ও আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় প্রথম বছর মুন্নার বাগানে কুলের বাম্পার ফলন হয়েছে। নতুন এ কুলচাষে অধিক লাভ হওয়ায় এলাকার চাষিদের মধ্যে আগ্রহ বাড়ছে বলে জানান উপজেলার কৃষক আমমান গাজী সরিফুর ইসলাম ও এলাকাবাসি।