সাইকেলিং করে রেকর্ড গড়লেন তাওহীদ হাসান


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯ ||

জাবের হোসেন: চট্টগ্রাম থেকে সাতক্ষীরা পর্যন্ত ৪০১ কিলোমিটার রাস্তা সাইকেল চালিয়ে ঘরে ফিরেছে সাতক্ষীরার তাওহীদ হাসান।
৫ ফেব্রুয়ারি ইংরেজি মঙ্গলবার ভোর ৪.৪৫ মিনিটে চট্টগ্রাম নগরীর দেওয়ানহাট ঈদগা বউ বাজার থেকে তাওহীদ রেসলিং শুরু করে। একই দিন রাত ২.০৫ মিনিটে সাতক্ষীরার কামালনগরের মধ্যপাড়ায় তার রেসলিং শেষ হয়।
বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রতিভাবান সাইক্লিস্টসরা ২৪ ঘন্টার মধ্যে ৪০০ কিলোমিটার সাইকেল চালিয়ে অনন্য রেকর্ড গড়েছেন। তাওহীদ হাসান ৪০১ কিলোমিটার রাস্তা প্যাডেলিং করে ১৭ ঘন্টা ১৯ মিনিট ২২ সেকেন্ডে। তিনি বিশ্রামসহ মোট সময় নিয়েছিলেন ২০ ঘন্টা ৫০ মিনিট।
তিনি শহরের কামালনগর গ্রামের মৃত খলিলুর রহমানের সর্বকনিষ্ঠ ছেলে। বাগেরহাটের আমড়াগাছিয়া বহুমূখী বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পাশ করে। বর্তমানে সাতক্ষীরা সরকারি পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের কম্পিউটার বিভাগের অধ্যায়নরত।
তাওহীদ হাসান বলেন, আমি সাতক্ষীরা জেলাতে ২৫জনের একটি সাইক্লিস্টস দল গঠন করি। আমার এই সাইক্লিস্টস দলে মধ্যে থেকে ৫ জনের একটি রেসিং টিম গঠন করেছি। যারা বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অনুষ্ঠিত হওয়া সাইকেল প্রতিযোগীতাতে অংশগ্রহণ করে এবং ফলাফল সন্তোষজনক।
আমার এই রেসিং দলে সরঞ্জামের অভাব বলে স্বয়ংসম্পূর্ণ অনুশীলন করতে পারছি না। নিজের ব্যক্তিগত টাকা দিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে যেয়ে প্রতিযোগীতাতে অংশগ্রহণ করে আসছি।
কিছুদিন পূর্বে বাংলাদেশ সাইকেলিং ফেডারেশন এর আয়োজনে অনুষ্ঠিত হওয়া বাংলাদেশ জাতীয় ৩৯ তম সাইকেলিং প্রতিযোগিতা ২০১৮ তে ‘এলিনেমিশন রেস’ এ টপ সেভেনের মধ্যে আমার অবস্থান থাকে।
আমরা সাতক্ষীরাতে সাইকেলিং করি মাদক মুক্ত সবুজ পৃথিবী গড়ার লক্ষ্যে ও পরিবেশ দূষণমুক্ত রাখতে। আমাদের ২৫ জন টিমের মধ্যে কেউ মাদকাশক্ত নেই।
তিনি আরো বলেন, সাতক্ষীরা সাইকেল রেসিং টিমকে দেশের সর্বস্তরে পাঠাতে সাতক্ষীরা জেলা ক্রীড়া সংস্থাসহ সমাজ সেবা সংগঠনগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।
তাওহীদ হাসান জানান, এ পর্যন্ত খুলনা বিভাগে মোট ২ জন এই রের্কড অর্জন করেছেন। প্রথমে এ রের্কড করেছিলেন মো. রেজাউল করিম। তিনি আরো জানান আমাদের গ্রুপে যারা সদস্য তারা সবাই গরিব ঘরের সন্তান।বিভিন্ন সময় বাইরে যেয়ে প্রতিযোগিতা করতে হয়। কিন্তু প্রয়োজনীয় অর্থের অভাবে অনেক সময় আমরা সব জায়গায় যেতে পারিনা। এজন্য আমাদেরকে আর্থিক সহযোগিতা করলে আমরা আরো অনেক দূর যেতে পারবো বলে আশা করি।
তার এ প্রতিভাকে স্বাগত জানিয়েছেন অনেকেই, বলেন এটা আমাদের একটি গর্ব। সাতক্ষীরার সন্তান তাওহীদ হাসান সাইকেল রেসে দেশ ভ্রমণ করে দেশের তরুণ সমাজকে আরো জাগ্রত ও মাদকমুক্ত সমাজ গঠনের দৃষ্টান্ত রাখবে। আমরা তার সাফল্য কামনা করি।
এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল জানান, আমি তার সাফল্যে খুব খুশিই হয়েছি। তার এই সাফল্যে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। সেই সাথে তাকে উৎসাহিত করছি। জেলা প্রশাসক মোস্তফা কামাল বলেন, সে যেনো জাতীয় রেকর্ড এবং বিশ্ব রেকর্ড করতে পারে তার জন্য আমি আশাবাদী।
তিনি আরো বলেন, সরকারিভাবে এ বিষয়ে কোনো অর্থ বরাদ্দ থাকে না। তবে তিনি বলেন, তারা যদি আমার কাছে আসে তাহলে বিষয়টি ভালো ভাবে দেখতে পারবো বলে আশ্বস্থ করেন।
এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা জেলা ক্রীড়া সংস্থার কর্মকর্তা মো. রুবেল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাতক্ষীরা জেলার সন্তান তাওহীদ হাসান সাইকেল রেসে দেশ ভ্রমণ করে যে সুনাম অর্জন করেছেন তা একটি বিরল দৃষ্টান্ত হয় থাকবে। আমি এই তরুণ প্রতিভাকে সামগ্রিক সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য সাতক্ষীরা জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও জেলা প্রশাসকের কাছে তার এই সাফল্য তুলে ধরবো।