মিথ্যা মামলা দিয়ে সিঙ্গাপুর প্রবাসী যুবককে হয়রানীর চেষ্টা!


প্রকাশিত : মার্চ ৫, ২০১৯ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: আদম ও হুন্ডি ব্যবসায়ী সিঙ্গাপুর প্রবাসী হাসান নামে এক যুবককে থানায় মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানী ও মিথ্যা মামলায় জড়ানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। প্রতারক চক্র থানায় অভিযোগ দিয়ে পার না পেয়ে একের পর এক হয়রানি করে যাচ্ছে। এ নিয়ে ছুটিতে আসা সিঙ্গাপুর প্রবাসী যুবক মানসিকভাবে চিন্তিত হয়ে পড়েছে। প্রতারক চক্রের হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য ওই যুবক প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
আবুল হোসেন ওরফে হাসান (৩২) সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা গ্রামের মো. ছদর উদ্দিন মোল্যার পুত্র। হাসান জানায়, প্রায় ৯ বছর পূর্বে জীবিকার তাগিদে সরকারীভাবে দক্ষ ভিসায় সিঙ্গাপুর পাড়ি জমায়। এরই মধ্যে প্রায় ৭ বছর কেটে গেছে হাসানের প্রবাস জীবন।
২০১৩ সালে সিঙ্গাপুরে ছুটির দিনে বাঙ্গালীদের মিলনস্থল মোস্তফা প্লাজায় পরিচয় হয় সাতক্ষীরা শহরের মুনজিতপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক সরদারের পুত্র ফরিদ হাসান রনি (৩৩) এর সাথে। দুইজনের বাড়ি সাতক্ষীরায় হওয়ায় উভয়ের মধ্যে গড়ে ওঠে গভীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। কিছুদিন যেতে না যেতেই হাসান ধীরে ধীরে বুঝতে পারে রনি নিজে হুন্ডি ও আদম ব্যবসার সাথে জড়িত। এসব বুঝেই হাসান অল্প দিনের ব্যবধানে রনির কাছ থেকে বন্ধুত্বের বন্ধন ছিন্ন করতে থাকে। এরই মধ্যে হাসান তার এক চাচাতো ভাইকে কুষ্টিয়ার আদম ব্যবসায়ী জনৈক নাছিরের মাধ্যমে সিঙ্গাপুর নিয়ে যায়। এই সুবাদে হাসানের মাধ্যমে নাছিরের সাথে রনির পরিচয় ঘটে। রনি একদিন হাসানকে জানায়, নাছিরের সাথে রনি আদম ব্যবসা শুরু করতে চায়। কিন্তু হাসান এসব শুনে রনিকে জানায়, আমি এসবের মধ্যে থাকতে চাই না, আদম ব্যবসা অত্যন্ত খারাপ জগৎ, টাকা-পয়সা লেন-দেন করলে তোমার নিজ দায়িত্বে করতে হবে। সূত্র জানায়, হাসানকে না জানিয়ে রনি কুষ্টিয়ার নাছিরের সাথে আদম ব্যবসা শুরু করে। রনি ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে নাছিরের সাথে টাকা লেন-দেন করতো। নাছিরের ব্যক্তিগত ব্যাংক একাউন্টেই রনি সব সময় টাকা পাঠাতো বলে জানা গেছে।
শুধু তাই নয় রনি সিঙ্গাপুরে থাকাকালীন হুন্ডি ও আদম ব্যবসা নিয়ে বাংলাদেশীদের মারপিট করার অভিযোগে সেদেশের পুলিশ তাকে ধরে জেলে দিয়ে ভিসা বাতিল করে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেয়।
এই রনি সম্প্রতি আশাশুনি থানায় হাসানের বিরুদ্ধে বিদেশে লোক পাঠানোর নামে এগার লক্ষ টাকা আত্মসাতের একটি মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করে। আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ বিপ্লব কুমার নাথ অভিযোগটি তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এসআই ইসমাইল হোসেনের উপর দায়িত্ব দেয়। তদন্তে অভিযোগটি সম্পূর্ন মিথ্যা প্রমানিত হয়।
ফরিদ হাসান রনি জানায়, হাসানের কারণে আমি আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। কেননা হাসানের মাধ্যমেই নাছিরের সাথে আমার পরিচয় ঘটে। ঘটনার দায় হাসান কোনভাবে এড়াতে পারে না।
হাসান জানায়, রনি এখন মাছ না পেয়ে ছিপে কামড় দিতে চাইছে। বিদেশ সংক্রান্ত ব্যাপারে টাকা লেন-দেনের বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। এ ঘটনায় আমি দায়ী থাকলে আল্লাহ আমার বিচার করবেন। আমাকে নিছক হয়রানী করতেই রনি এখন মিথ্যা অভিযোগ করছে।
আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ বিপ্লব কুমার নাথ জানান, অভিযোগের বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা কোন সত্যতা পায়নি। সিঙ্গাপুর প্রবাসী হাসানকে হেনস্তা করতেই মিথ্যা অভিযোগটি করা হয়।
অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা এস,্আই ইসমাইল হোসেন জানায়, মৌখিক কথায় তো কোন কাজ করা যায় না। টাকা লেন-দেনের প্রমান বা কোন লিখিত কাগজপত্র রনি দেখাতে পারেনি। এতে পুলিশের কি বা করার আছে।