জেলায় চেয়ারম্যান পদে তিন নতুন মুখ দুইজনের হ্যাটট্রিক জয়: ৫ জন আওয়ামী লীগ ও দুই বিদ্রোহী


প্রকাশিত : মার্চ ২৫, ২০১৯ ||

আব্দুস সামাদ: ভোটার উপস্থিতি কম হলেও জেলার ৬টি উপজেলায় সুষ্ঠু শান্তিপূর্ণভাবে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। একটিতে দেখা গেছে বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মত অবস্থা। নির্বাচনে শ্যামনগর, কালিগঞ্জ ও কলারোয়া উপজেলা পেয়েছে নতুন মুখ। বাকি ৪টিতে রয়েছে পুরতানরাই। এরমধ্যে আশাশুনি ও তালা উপজেলার আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থী হ্যাটট্রিক জয় পেয়েছেন। এছাড়া একই দলের আরও তিন প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। অপর দুটিতে জয়লাভ করেছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী।
জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে আশাশুনির নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এবিএম মোস্তাকিম ৭৫,৫১৩ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিদ্রোহী প্রার্থী শহিদুল ইসলাম পিন্টু পেয়েছেন ৪০,১৪১ ভোট। এবিএম মোস্তাকিম তৃতীয় ও চতুর্থ উপজেলা নির্বাচনে জয়লাভ করেছিলেন। এদিকে তালা উপজেলায় আওয়ামী লীগের ঘোষ সনৎ কুমার ৫০,৮৪০ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী এমএম ফজলুল হক পেয়েছেন ৪৮,৫৫৬ ভোট। ঘোষ সনৎ কুমার তৃতীয় ও চতুর্থ উপজেলা নির্বাচনে জয়লাভ করেছিলেন। শ্যামনগরে আওয়ামী লীগের এসএম আতাউল হক দোলন ৭২,৩২৫ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী ওসমান গনি পেয়েছেন ১০,৯৯০ ভোট। কলারোয়ায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আমিনুল ইসলাম লাল্টু ৭১.৭৯৭ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের ফিরোজ আহমেদ স্বপন পেয়েছেন ৩৭,২১১ ভোট। সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগের আসাদুজ্জামান বাবু ৬২,৭৭৩ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী এসএম শওকত হোসেন ৩৪,৩৫৮ ভোট পেয়েছেন। কালিগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাঈদ মেহেদি ৫৬,৮৩৮ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী শেখ মেহেদি হাসান পেয়েছেন ৩৪,৭৬৬ ভোট। দেবহাটা উপজেলায় আওয়ামী লীগের আবদুল গনি ২৪,৭৬৫ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী গোলাম মোস্তফা পেয়েছেন ১৬,২৯৫ ভোট।