প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে লিয়াকত সরদার খুলনা বিভাগের দ্বিতীয় এরশাদ শিকদার এখন সাতক্ষীরায়!


প্রকাশিত : এপ্রিল ৮, ২০১৯ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: জেলার চিহ্নিত খুনি ভূমিদস্যু চাদাবাজ দেবহাটার কুলিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আসাদুল হকের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে আবারো সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবার সংবাদ সম্মেলনে খুলনা বিভাগের এক সময়ের শীর্ষ সন্ত্রাসী দ্বিতীয় এরশাদ শিকদার হিসেবে চিহ্নিত করেছেন ভূক্তভোগিরা। ঘের দখল, বাড়ি দখল, জমি দখল, চাদাবাজি ও একাধিক হত্যাসহ এমন কোন অভিযোগ নেই তিনি করেন নি।
আবার তিনি ক্ষমতাসীন দলের একজন কথিত নেতাও বটে। তার গড়ে তোলা নিজস্ব সন্ত্রাসী বাহিনী দ্বারা তিনি এসব সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। জেলার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় একের পর এক নিরীহ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত ও জিম্মি হয়ে পড়ছে। ভুক্তভোগিরা এবার দফায় দফায় সংবাদ সম্মেলন করে এর প্রতিকার দাবি করলেও নিরব রয়েছে জেলার প্রশাসন।
রোববার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন বিল শিমুলবাড়িয়ার মোস্তফা সরদারের ছেলে লিয়াকত সরদার।
তিনি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, বিল শিমুলবাড়িয়ার ৫৭,১৫৩ খতিয়ানের সাবেক ২৪৫,২৪৭ ও হাল ২৪১,২৩৪ দাগের জমিতে দীর্ঘদিন যাবত মৎস্য ঘের পরিচালনা করে আসছেন। গত ৪ এপ্রিল রাত সাড়ে ১০টার দিকে কুলিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আসাদুল হকের মদদপুষ্ট হয়ে ১৫/২০ জন লাঠিয়াল ওই ঘের দখল করতে আসে। লাঠিয়ালদের মধ্যে ছিল দুটি নাশকতাসহ একাধিক মামলার আসামী জামায়াত নেতা পুস্পকাটির কওছার আলির নেতৃত্বে তার পুত্র জাহিদুল, ইনছার আলির ছেলে ইসমাইল হোসেন, দাঁড়াখাল এলাকার আনছার আলির পুত্র আলিমসহ অন্যরা।
তারা ধারালো দা ও বল্লম নিয়ে ঘের দখলে গেলে তিনি বাধা দেন। এ সময় আসাদুল হক মোবাইলে হুমকি দিয়ে বলেন ‘যে সামনে আসবে তাকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দিবি’। আসাদুল হকের এই নির্দেশ পেয়ে সন্ত্রাসীরা লিয়াকত, সবুর সরদারের ছেলে রিয়াছাদ সরদার, শামীম ও মাহবুবকে লাঠি ও বল্লম দিয়ে আঘাত করে। এ সময় তারা তাদের মারপিট করতে থাকে। তাদের চিৎকারে এলাকার লোকজন ছুটে এলে তারা পালিয়ে যায়। এরপর থেকে লিয়াকত ও আহত অন্যরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তার এসমন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে কুলিয়া ইউনিয়নের মানুষ বছরের পর বছর জিম্মি হয়ে ছিল। এরফলে বিগত ইউপি নির্বাচনে প্রতিপক্ষ শক্তিশালি প্রার্থী পাওয়ায় খুনি ও পেষাদার সন্ত্রাসী আসাদুলকে জনগন প্রত্যাক্ষান করে এবং তিনি বিপুল ভোটে পরাজিত হন। এরপর তার সন্ত্রাসী কর্মকান্ড আরও বাড়িয়ে দেন।
সংবাদ সম্মেলনে লিয়াকত আরও বলেন, পেশাদার সন্ত্রাসী আসাদুলের বিরুদ্ধে গত শনিবারও সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে জেলা পরিষদ সদস্যা এড. শাহনওয়াজ পারভীন মিলি ও তার স্বামী সংবাদ সম্মেলন করে জীবনের নিরাপত্তা দাবি করেছেন। এই সন্ত্রাসীর হাত থেকে আমরাও বাচতে চাই বলে দাবি জানান লিয়াকত ও তার সঙ্গীরা।
সংবাদ সম্মেলনে লিয়াকত আরও বলেন, আসাদুল হক তার এলাকায় নানা ধরণের সন্ত্রাসের সাথে জড়িত। তার সকল অপকর্ম সম্পাদনের জন্য রয়েছে লাঠিয়াল বাহিনী। তার অত্যাচারে এলাকাবাসি অতীষ্ঠ হয়ে উঠেছেন বলে অভিযোগ করেন। তিনি আসাদুল হক ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ ও গ্রেপ্তারের দাবি জানান।