খোশ আমদেদ: মাহে রমজান


প্রকাশিত : মে ৯, ২০১৯ ||

সাখাওয়াত উল্যাহ: আজ শুক্রবার। মাহে রমজানের ৪র্থ রোজা অতিবাহিত হতে যাচ্ছে। রমজান মাসের সিয়ামে অশেষ রহমত ও বরকত যেমন রয়েছে, তেমনি এই মাসের সিয়াম পালনকারীর জন্য অশেষ পুরস্কার ও সু-সংবাদ রয়েছে। বুখারী শরিফে সংকলিত এবং হযরত আবু হুরায়রা (রা.) হতে বর্ণিত হাদিসে কুদ্সীতে আছে যে, আল্লাহ তায়ালা বলেন, যে (সায়িম) রোজাদার আমার জন্য পানাহার এবং কাম প্রবৃত্তি পরিত্যাগ করে আমারই জন্য। তাই তার পুরষ্কার আমি সয়ং দান করব। অন্য এক বর্ণনায় আছে যে, আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেন-আমিই তার পুরষ্কার। আর এক বর্ণনায় আছে, সায়িম জান্নাতে আল্লাহ তায়ালার দীদার লাভ করবে। সায়িমদের জান্নাতে বিশেষ ব্যবস্থাপনায় বিশেষভাবে অভ্যর্থনা জানানো হবে।
বিশিষ্ট সাহাবী হযরত সাহ (রা.) হতে বর্ণিত- প্রিয়নবী (সা.) বলেছেন, জান্নাতের মধ্যে রাইয়ান নামক একটি দরজা আছে। এই দরজা দিয়ে কিয়ামতের দিন সায়িমরাই (রোজাদার) কেবল প্রবেশ করতে পারবে। ঘোষণা দেওয়া হবে: সায়িমরা কোথায়? তখন সামিয়রা দন্ডায়মান হবে। তারা ছাড়া অন্য কেউ এ দরজা দিয়ে প্রবেশ করতে পারবে না। তাদের প্রবেশের পরই তা বন্ধ করে দেওয়া হবে। যাতে ঐ প্রবেশ দরজা দিয়ে অন্য কেউ প্রবেশ করতে না পারে (বুখারী শরীফ)
রোজাদারগণ যে দরজা দিয়ে জান্নাতে প্রবেশ করবে তার নাম রাইয়ান। রাইহান শব্দের অর্থ তৃষ্ণা নিবারক। জান্নাতে যে পানীয়ের ব্যবস্থা রয়েছে তার বিবরণ কুরআন মজীদে রয়েছে। ইরশাদ রয়েছে, ‘নিশ্চই সৎ কর্মশীলগণ পান করবে এমন পান পাত্র হবে যা পানীয়কর্পূর মিশ্রিত। তা একটি প্রশ্রবণ যা হতে আল্লাহই বান্দাগন পান করবে। তাদেরকে পরিবেশন করা হবে রৌপ্য পাত্রে এবং স্ফটিকের মত স্বচ্ছ পানপাত্রের রজত শুভ্র স্ফটিক পাত্রের- পরিবেশনকারীরা যথার্থ পরিমানে তা পূর্ন করবে। সেখানে তাদের পান করতে দেয়া হবে আত্রক, (যানজবীল) মিশ্রিত পানীয়, সেখানে রয়েছে এমন এক প্রশ্রবণ যার নাম সাল সাবীল।
রমজান মাসে সিয়াম পালনের মাধ্যমে সিয়াম পালনকারী নিজেকে পরিচ্ছন্নতার সৌরভে বিভূষিত করে যেমন ইহজাগতিক কল্যাণের পথ প্রশস্ত করে তুলতে পারে, তেমনি পারলৌকিক কল্যাণে পথ তার জন্য প্রশস্ত হয়ে যায়।