দেবহাটায় ইউপি সদস্যের সহযোগিতায় বাল্যবিবাহ: প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা


প্রকাশিত : July 3, 2019 ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: বর্তমান সরকার যেখানে বাল্যবিবাহ বন্ধে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন। সেখানে কিছু কিছু অভিভাবকেরা সরকারের এই আইন অমান্য করে স্থানীয় ইউপি সদস্য এবং প্রভাবশালীদের সহযোগিতায় গোপনে বাল্যবিবাহ সম্পন্ন করছেন।
প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, উপজেলার সখিপুর ইউনিয়নের চিনেডাঙ্গা গ্রামে ৬ষ্ঠ শ্রেণি পড়–য়া ছাত্রী কবিতা ২০১৮ শিক্ষাবর্ষে চিনেডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনীতে পাশ করে। চলতি বছরে সে সখিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী। সে চিনেডাঙ্গা গ্রামের মৃত পুনিল বাঙ্গাল এবং যমুনা রানীর ছোট মেয়ে। মা যমুনা রানী উচ্চ আকাক্সক্ষা আর লোভের বসে প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার পূর্বেই একে একে বিয়ের পিড়িতে বসিয়েছেন তিন কন্যাকে। এই বাল্যবিবাহের কারণে তার একটি মেয়ের অকাল মৃত্যুও ঘটেছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়। সম্প্রতি ছোট মেয়ে কবিতাকে স্থানীয় মেম্বর মোনাজাত আলীর সহযোগিতা এবং স্থানীয় প্রভাবশালীদের বাড়ি থেকে গোপনে এক আত্মীর বাড়িতে নিয়ে একই উপজেলার কুলিয়া গ্রামের সুব্রত নামের এক অধ্যবয়সী যুবকের সাথে বিবাহ সম্পন্ন করেছেন। রবিবার অপ্রাপ্ত বয়সী ঐ মেয়ে জামাইসহ বাড়িতে আসলে স্থানীয়দের মধ্যে চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতি বিরাজ করতে থাকে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়রা জানতে চাইলে কবিতার মা যমুনা প্রভাবশালিদের ইন্ধনে তাদের উপর ক্ষেপে যায়। তবে, কথিত প্রভাবশালিরা বিষয়টি ধামা চাপা দেওয়ার চেষ্টা চালায়।
এ নিয়ে ইউপি সদস্য মোনাজাত আলী ঘটনার বিষয়ে অস্বীকার করে বলেন, এবিষয়ে আমি কিছু জানি না।
এ ব্যাপারে, জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক নাজমুন নাহার জানান, বাল্যবিবাহ একটি অভিশাপ। ইতোমধ্যে সরকারের পক্ষে বাল্যবিবাহের অভিশাপ থেকে সমাজকে রক্ষা করতে বাল্যবিবাহের উপরে লাল কার্ড দেখানো হয়েছে। এর সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।