কালিগঞ্জে গাছ কাটার আসামিকে ছাড়ালেন মথুরেশপুর ইউপি চেয়ারম্যান!

বিশেষ প্রতিনিধি: পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গায় অবস্থিত গাছ কেটে নেয়ার অভিযোগে আটক রফিকুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তিকে পুলিশের নিকট থেকে ছাড়িয়ে নিয়েছেন উপজেলার মথুরেশপুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান গাইন। এসময় পুলিশের কাছে তিনি পানি উন্নয়ন বোর্ডের সম্পত্তিকে রেকর্ডীয় সম্পত্তি হিসেবে দাবি করেন।
জানা যায়, গত শনিবার সকাল ৯টার সময় বসন্তপুর গ্রামের মৃত বাহার আলীর পুত্র হাফিজুর রহমান ও তার ভাই আবু মুছা কালিগঞ্জের বসন্তপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা হতে একটি শিশু ফুল গাছ চুরি করে কেটে নেয়। ঘটনা জানতে পেরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৫নং পোল্ডারের দায়িত্বরত এসও তন্ময় হালদার হাফিজুর রহমানকে আসামি করে রবিবার রাতে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক জিল্লুর রহমান চোরাই গাছ কদমতলা স’মিলে বিক্রি করার সময় শীতলপুর গ্রামের মৃত হাসান আলীর ছেলে রফিকুল ইসলামকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। আটক ব্যক্তিকে ছাড়িয়ে নিতে এলাকার লোকজনকে ভুল বুঝিয়ে রেকর্ডীয় সম্পত্তি দাবি করে তিনি পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের মামলার হুমকি দিয়ে সোমবার রাত ১০টার সময় থানা হতে রফিকুল ইসলামকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান। জরিপ করার পর যদি ওই জায়গা পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রমাণিত হয় তাহলে ইউপি চেয়ারম্যান পূণরায় রফিকুল ইসলামকে পুলিশের কাছে তুলে দিবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন। এর প্রেক্ষিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা ওবায়দুল্লাহ, সার্ভেয়ার আহছান হাবিব, এসও তন্ময় হালদার, স্থানীয় জরিপ কারক বদরুল আলম, কলিম উল্লাহ, স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম গাইনসহ স্থানীয় গ্রামবাসী মিলে মঙ্গলবার বেলা ১১টার সময় সরেজমিনে জায়গা জরিপ করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা বলে প্রমাণিত হয়। কিন্তু জরিপ করার সময় বারবার ইউপি চেয়ারম্যানকে ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানালেও তিনি সেই আহ্বানে সাড়া দেননি। প্রসঙ্গত, হাফিজুর রহমান এবং তার ভাই আবু মুছার বিরুদ্ধে এর আগেও পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা হতে ১০/১৫টি গাছ কেটে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে।