দেবহাটায় বিজিবি সদস্য আব্দুল জব্বার হত্যার আসামী আরমান ও তার দুই সহযোগী গ্রেপ্তার

পত্রদূত রিপোর্ট: দেবহাটার বিজিবি সদস্য আব্দুল জব্বার হত্যা মামলার আসামী কুখ্যাত মাদকস¤্রাট একাধিক মামলার আসামী ইউপি সদস্য আরমান হোসেন ও তার দুই সহযোগী হাবিব ও লিন্টু গ্রেপ্তার হয়েছে। মঙ্গলবার (২ জুলাই) আদালতে ২০১৩ সালের সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আলীপুরে বিজিবি সদস্য আব্দুল জব্বার হত্যা মামলার জামিন নিতে গেলে জামিন না পেয়ে পুলিশের খাঁচায় বন্দি হয় দেবহাটা সদরের বসন্তপুর গ্রামের ওয়াজেদ আলীর পুত্র ১১ মামলার আসামী মাদক স¤্রাট আরমান হোসেন, মৃত ফজর আলী সরদারের পুত্র এলাকার অন্যতম চিহ্নিত মাদক স¤্রাট বহু মামলার আসামী আব্দুল হাবিব এবং তাদের একান্ত সহযোগী একই গ্রামের অমির আলীর পুত্র আলিমুজ্জামান লিন্টু।
উল্লেখ্য, এই আরমান হোসেনের নামে ২০০৮ সালের ২৮ ডিসেম্বর কলারোয়া থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা হয়, যার নং-১৭। ২০১০ সালের ২০অক্টোবর আশাশুনির মানিখালি খেয়া ঘাটে নৌকা চুরির ঘটনায় আশাশুনি থানায় একটি মামলা হয়, যার নং-১২। ২০১১সালের ৩জানুয়ারী বিওপির পক্ষে টাউনশ্রীপুর বিওপির মুনছুর রহমান বাদী হয়ে গরু চোরাচালান মামলা দায়ের করে, যার নং-০৩। ২০১৩ সালের ১৩ নভেম্বর বিজিবি সদস্য আব্দুল জব্বার হত্যা মামলার আসামী হয় এই আরমান হোসেন, যার নং-৩৮। ২০১৭ সালের ৪ অক্টোবর বিওপি সদস্য কর্তৃক চাঁদাবাজী মামলা হয় তার বিরুদ্ধে। ২০১৮ সালের ৫নভেম্বর দেবহাটা থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা হয়, যার নং-০৩। ২০১৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি সর্বশেষ মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা হয়, যার নং-০৫। এই আরমান হোসেনের বিরুদ্ধে ৩টি চেক জালিয়াতির মামলা আছে বলে জানা যায়। এছাড়া হাবিবুর রহমান ও লিন্টু চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী।