শ্যামনগরে অপহৃত রিমা উদ্ধার: প্রতারক হাফিজুর পলাতক


প্রকাশিত : আগস্ট ২৬, ২০১৯ ||

পত্রদূত ডেস্ক: শ্যামনগরে গত ৭দিন ধরে অপহৃত রিমাকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। অপহরণকারী লম্পট হাফিজুর রহমান পলাতক রয়েছেন।
উপজেলার কৈখালী ইউনিয়নের পশ্চিম শৈলখালি গ্রামের মো. হযরত আলীর স্কুল পড়ুয়া কন্যা মামনি আক্তার রিমা (১৪) গত ১৮ আগস্ট নিজ বাসা থেকে সন্ধ্যার পর হারিয়ে যায়। মেয়েটির দাদা মো. নহোর আলী নিখোঁজ রিমাকে খুঁজে পাওয়ার ক্ষেত্রে সহযোগিতা কামনা করে শ্যামনগর থানায় ১৯-০৮-১৯ তারিখে একটি জিডি করেন। যার নং ৭৪৯। আইনের পুলিশ গত ৭দিন ধরে রিমাকে খুঁজতে থাকে। একপর্যায়ে ২৬ আগস্ট প্রথম প্রহর রাত দেড়টার দিকে শ্যামনগর সদরস্থ গোপালপুর গ্রামের প্রবাসী রঞ্জুর বাড়ি থেকে রিমাকে উদ্ধার করে।
মামনি আক্তার রিমার ভাষ্য অনুযায়ী, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার সাথে পরিচয় হয় শ্যামনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাদকাসক্ত হাফিজুর রহমান হাফিজের সাথে। সেখান থেকেই হাফিজুর প্রেম নিবেদন করে। এক পর্যায়ে তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বাসা থেকে উঠিয়ে নিয়ে গোপালপুর রঞ্জুর বাড়িতে আটকে রেখে গত কয়েকদিন ধরে জোরপূর্বক তার সাথে অবৈধ শারিরীক সম্পর্ক (যৌন হয়রানি) করে। এবং এই কাজে সহযোগিতা করে প্রবাসী রঞ্জুর ২য় স্ত্রী আয়েশা খাতুন।
শ্যামনগর থানা পুলিশের সেকেন্ড অফিসার মো. আব্দুর রাজ্জাক ১০/১২ জন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে রঞ্জুর বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করে। সেখান থেকে বহু বিয়ের হোতা বর্তমান রঞ্জুর ২য় স্ত্রী আয়েশা খাতুনসহ রিমাকে উদ্ধার করতে পারলেও পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে চিহ্নিত লম্পট ও প্রতারক হাফিজুর ছাদ থেকে লাফ দিয়ে পালিয়ে যায়। স্থানীয়দের অভিযোগ, এই বাড়িতে মালিকরা না থাকার সুবাদে প্রায় সময় অপরিচিত ব্যক্তিদের আনাগোনা দেখা যায়। তাছাড়া হাফিজুরসহ শ্যামনগরে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীরা এই বাড়িতে সর্বক্ষণ আসা যাওয়া করে।