পাটকেলঘাটার খলিষখালীতে হত্যা মামলার আসামীর বসতঘর আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা


প্রকাশিত : এপ্রিল ৪, ২০১২ ||

খলিষখালী (পাটকেলঘাটা) প্রতিনিধি : সোমবার রাত প্রায় ১১টার সময় পাটকেলঘাটার খলিষখালী দক্ষিণপাড়া বাজারের পাশে অরুণ দে নামের এক ব্যক্তির বসতঘর কে বা কারা রাতের অন্ধকারে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়। পথচারীরা আগুনের লেলীহান শীখা দেখতে পেয়ে চিৎকার দিলে পার্শ্ববর্তী লোকজন এসে আগুন নিভানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। ওই রাতেই খবর পেয়ে খলিষখালী ক্যাম্পের ইনচার্জ সোহরাব হোসেন ঘটনাস্থলে আসলেও আগুন ছাড়া আর কিছুই দেখতে পায়নি। ঘরের মধ্যে থাকা আসবাবপত্র, লেপ, কাথা, বালিশ, খাট, পালঙ্গ, ফ্যানসহ অন্যান্য আসবাবপত্রও আগুনে পুড়ে ভষ্মিভূত হয়ে গেছে। এতে প্রায় ২ লক্ষ টাকার সম্পদ নষ্ট হয়ে গেছে। পরদিন সকালে তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। সরেজমিন খলিষখালী দক্ষিণপাড়া বাজার ও ঘটনাস্থলে বিভিন্ন লোকের সাথে জানা গেছে, গত ৬ মার্চ খলিষখালী গ্রামে বাপ্পী দাশ নামের এক কলেজ ছাত্র নিখোঁজ হয়। পরের দিন ৭ মার্চ স্থানীয় যুগলের বাগানে তাকে অচেতন অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নিহতের পিতা গণেশ চন্দ্র বাদী হয়ে ৪জনকে আসামী করে পাটকেলঘাটা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। যার নং- ৫। উক্ত মামলায় গ্রেফতারকৃত অরুণ দে বর্তমানে ৩নং আসামী। তার স্ত্রীও ঐ মামলায় ২নং আসামী। তিনি বর্তমানে তার মেয়ে সীমা দাশকে নিয়ে ভারতে পাড়ি জমিয়েছে বলে জানা গেছে। এমতাবস্থায় ঐ বাড়ীটি রয়েছে জনমানব শূন্য একটি বাড়ী। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে কে বা কারা ঘটনার দিন রাতে অত্যান্ত পরিকল্পিতভাবে অরুণ দের বসতঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়।