দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় পিএন হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মাজেদকে শোকজ


প্রকাশিত : এপ্রিল ১২, ২০১২ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার দেড়শ বছরের ঐতিহ্যবাহী পিএন হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি। তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী স্কুলের সভাপতি ও সাতক্ষীরা সদর এমপি এমএ জব্বার সাত দিনের সময় দিয়ে প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন। গত ৫ এপ্রিল এ নোটিশ জারি করা হয়। যার স্মারক নং সভা/পি,এন/সাত-১। কারণ দর্শানোর নোটিশে বলা হয়, পিএন হাইস্কুলে প্রধান শিক্ষকের পদে যোগদানের পর থেকে অদ্যবধি তিনি প্রয়োজনীয় অভিজ্ঞতার কাগজপত্র ও পরীক্ষা পাশের মূল সনদ পত্রাদি দাখিল করেন নি। এছাড়া বিভিন্ন সময় আর্থিক তছরূপ, কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে জটিলতা সৃষ্টি, শিক্ষকদের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি, বিভিন্ন সময়ে তদন্তকারী কর্মকর্তাদের বিদ্রুপ, ব্যঙ্গ করা এবং ভূয়া কাগজপত্র প্রদান করে বিব্রত করা, জোরপূর্বক প্রধান শিক্ষকের পদে থেকে প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ক্ষতি সাধন করার অভিযোগ আনা হয়েছে প্রধান শিক্ষক আব্দুল মাজেদের বিরুদ্ধে। স্কুলের কার্যকরী কমিটি একাধিকবার আয়-ব্যয়ের হিসাব চাইলেও প্রধান শিক্ষক আব্দুল মাজেদ কোন হিসাব দেননি বরং কার্যকরী কমিটির সদস্যদের নিয়ে ব্যঙ্গ বিদ্রুপ করেছেন। এদিকে সাতক্ষীরা পিএন হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন অভিযোগের ভিত্তিতে মাঠে নামে তদন্ত কমিটি। তদন্ত শেষে একাধিক কমিটি প্রতিবেদন দাখিল করে। প্রত্যেক প্রতিবেদনে প্রধান শিক্ষক আব্দুল মাজেদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়। তদন্ত প্রতিবেদনের স্মারক নং গুলো হচ্ছে জেপ্রসাত/সাধারণ/৬-৭০(ক)/১০/৪৯২ তাং ৬ জুন ২০১১, জেপ্রসাত/সাধারণ/৬-৭০(ক)/৪৪০ তাং ২৬ এপ্রিল ২০১০, জেশিঅ/সাত১৩০৭ তাং ১৮ মার্চ ২০১১। উজেমাঅ/সাত:সদর/তদন্ত প্রতিবেদন/২০০৮/৫৯৭ তাং ১৪ সেপ্টম্বর ২০০৯। শিম/শাঃ১২/অভি/৩/৯৯/০৭ ৪ ফেব্র“য়ারি ২০০৯। জেশিঅ/ঢাকা/১১০৩ তাং ৬/৮/২০০৯। এছাড়া নোটিশে ঢাকার বনানী টিএণ্ডটি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকার প্রতিবেদনের কথা উলে¬খ করা হয়। এসব প্রতিবেদন অনুযায়ী কেন প্রধান শিক্ষক আব্দুল মাজেদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না তার সঠিক জবাব সাত কর্মদিবসের মধ্যে সার্বিক হিসাবসহ প্রদান করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এদিকে সাতক্ষীরা সদর এমপি এবং পিএন হাইস্কুলের সভাপতি এমএ জব্বার গত ৫ এপ্রিল উক্ত নোটিশ জারি করে চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে গেছেন। সভাপতির অনুপস্থিতে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন স্কুলের বিদ্যোৎসাহী সদস্য মঈনুর রশিদ।

প্রসঙ্গত, বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে তদানীন্তন এক প্রভাবশালী সংসদ সদস্যের ঘষামাজা ডিও লেটার নিয়ে এবং ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে আব্দুল মাজেদ সাতক্ষীরার দেড়শ বছরের ঐতিহ্যবাহী পিএন হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষকের চেয়ার দখল করেন। বিষয়টি নিয়ে ইতোপূর্বে একাধিক দপ্তরে অভিযোগ করা হয়।