গোলাখালীতে বাঘ: ট্রাংকুলাইজ অভিযান ব্যর্থ

শ্যামনগর প্রতিনিধি : সুন্দরবন লাগোয়া গোলাখালী গ্রামে অবস্থান নেওয়া রয়েল বেঙ্গল টাইগারটিকে ট্রাংকুলাইজ করার চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করতেই বেলা এগারটার দিকে বাঘটি আবারও নিকটস্থ গাছের আড়ালে চলে যাওয়ায় তাকে ট্রাংকুলাইজ করা সম্ভব হয়নি। এদিকে দিনকে দিন বাঘটির শারীরিক অবস্থা বেশ খারাপের দিকে এগুচ্ছে বলে স্থানীয়রা অভিমত প্রকাশ করেছে।

পশ্চিম সুন্দরবনের রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ তৌফিকুল ইসলাম জানান, সব আয়োজন সম্পন্ন করে বাঘটিকে ট্রাংকুলাইজ করার আগমুহুর্তে সে বনের মধ্যে চলে যায়। ট্রাংকুলাইজ টিমের সদস্যরা সন্ধ্যা পর্যন্ত অপেক্ষার পরও বাঘটি প্রকাশ্যে ফিরে না আসায় মঙ্গলবার আবার চেষ্টা চালানো হবে।

তিনি বলেন, বাঘটি বেশ দুর্বল হয়ে পড়ায় সে বনে ফিরছে না বলে তাদের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে। খুলনা বিভাগীয় বন সংরক্ষক জহির উদ্দীন আহমদ ও ওয়াইল্ড লাইফ’র বিবাগীয় বন কর্মকর্তা ইয়াছিন নওয়াজসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা গত রবিবার রাত থেকে সেখানে অবস্থান করছিল বলেও তিনি জানান।

এদিকে গ্রামবাসী জানান, বাঘটি ক্রমেই চলাচলের ক্ষমতা হারিয়ে ফেলছে বলে মনে হচ্ছে। তারা আরও জানিয়েছেন, বাঘটিকে দীর্ঘদিন ধরে অভুক্ত থাকায় তাকে কংকাল সার একটি জন্তু মনে হচ্ছে।

বনবিভাগ জানিয়েছে, গত বৃহস্পতিবার সকালে গোলাখালী গ্রামের চিংড়িঘেরের রাস্তায় চলে আসার পর থেকে বাঘটি সকালের দিকে ঘেরের রাস্তায় থাকলেও দুপুরের দিকে আবার পাশের ঝোপের মধ্যে চলে যাচ্ছে। আজ সকালেই বাঘটির ঘেরের রাস্তায় উঠে আসার পরপরই ট্রাংকুলাইজ করার পরিকল্পনা রয়েছে।

 

জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি : জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভা গতকাল সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক ড. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার।

সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মো: আসাদুজ্জামান, পিপি এ্যাড. মোস্তফা লুৎফুল্লাহ, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, তালা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার, দেবহাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাড. গোলাম মোস্তফা, শ্যামনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল বারী, সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ সাধু, চেম্বারের প্রতিনিধি দ্বীন আলী প্রমুখ।

সভায় উল্লেখ করা হয়, জেলার ৮টি থানায় মে মাসে বিভিন্ন ঘটনায় ২৯৯টি মামলা হয়েছে। এরমধ্যে সদর থানায় ৭৭টি, কলরোয়া থানায় ৫২টি, পাটকেলঘাটা থানায় ৫টি, তালা থানায় ৩৬টি, দেবহাটা থানায় ১৯টি, আশাশুনি থানায় ২৭টি, কালিগঞ্জ থানায় ২৯টি ও শ্যামনগর থানায় ৫৪টি মামলা হয়েছে। গত দুই মাসে জেলায় ১০৫টি নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে।

সভায় আরো উল্লেখ করা হয়, সীমান্তে গরু খাটালে চাাঁদাবাজি করা হচ্ছে। যে পরিমান রাজস্ব আদায় হয় গরু থেকে তার কয়েক গুন বেশি চাঁদা আদায় করা হয়ে থাকে। এসব অবৈধ গরুর খাটার বন্ধ করে দেওয়া হবে। ইতিমধ্যে সে নির্দেশ এসেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রাত্রালয় থেকে। চরমপন্থী দলের শীর্ষ নেতা বিদ্যুতসহ তার সঙ্গীরা ও মোজাফ্ফর সানা কে গ্রেপ্তার করায় পুলিশ সুপার মো: আসাদুজ্জানকে সভায় উপস্থিত সকলে ধন্যবাদ জানান। যাদেরকে এখনও পর্যন্ত গ্রেপ্তার করা যায়নি তাদের ব্যাপরে অভিযান চালানো হবে বলে জানানো হয় ঈদকে সামনে রেখে সড়কে, গরুর ট্রাকে, ইউনিয়ানের নামে যানবাহন থেকে কোন প্রকার চাঁদা আদায় না করা হয়। চাঁদা আদায় করা হলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সুন্দরবনে জলদস্যু ও বনদস্যুদের চাঁদাবাজি বন্ধে অভিযান চালানো হবে। জিনিসিপত্রের দাম বাড়ানো হলে ওই ব্যবসায়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বড় বজারসহ জেলা সদর ও উপজেলা সদরে চুরি, ছিনতাই, টানা,পার্টি, রোধে পুলিশের টহল বাড়ানো হবে। বড় বাজরের দেশী মদের দোকান সরিয়ে খুলনা রোডে মোড়ে বসানো যাবেনা।  সীমান্তে চোরাচালান ও মাদক পাচার বন্ধে আরো বেশি অভিযান বাড়াতে হবে। সীমান্তে বিজিবি সদস্যরা ফেনসিডিল পাচারকারিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। পুলিশ মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালান করছে। মাদকের সাথে জড়িতদের কাউকে পুলিশ ছাড়দেবে না। জেলায় খুনের ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। কিছুটা হলেও আইন শৃংখলা পরিস্থিতি অবনতি ঘটেছে। থানায় ব্যাপকহারে মামলার সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। থানায় মিথ্যা মামলা না এ জন্য খেয়াল রাখতে হবে। ঈদকে সামনে রখে ভারত থেকে প্রচুর পরিমানে শাড়িসহ বিভিন্ন পন্য আসছে। শাড়ি আসা বন্ধ করতে হবে।

 

পরিবেশ বিপর্যয়: শ্যামনগরে জনবসতির মধ্যে গড়ে তোলা হচ্ছে ইট ভাটা

শ্যামনগর প্রতিনিধি : শ্যামনগর উপজেলার বংশীপুর পল্লীতে জনবসতির মধ্যে ইট ভাটা গড়ে তোলা হচ্ছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের নীতিমালার প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে জনস্বার্থ পরিপন্থী এমন অপতৎপরতা চললেও দায়িত্বশীল কোন পক্ষ আমলেই নিচ্ছে না। এদিকে লোকালয়ের মধ্যে ইট ভাটা গড়ে তোলার ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্রমেই ক্ষোভের সঞ্চার হচ্ছে। স্থানীয়রা জনবসতির মধ্যে ইট ভাটা তৈরীর কাজ বন্ধের জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণে জেলা প্রশাসকের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

বংশীপুর গ্রামের আজিজ, মামুন ও সায়রা বানুসহ অন্যরা জানান, প্রায় দু’মাস পূর্বে কৈখালী ইউনিয়নের দাউদ মাস্টারের পুত্র আব্দুর রহিম বংশীপুর গ্রামের মধ্যে ইটের ভাটা গড়ে তোলার কাজ শুরু করে। ইটের ভাটার ধোয়ায় স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দেওয়ার পাশাপাশি এলাকার প্রাকৃতিক পরিবেশ বিনষ্ট হওয়ার আশংকায় স্থানীয়রা শুরুতে বাধা দিয়েও ব্যর্থ হয় বলে তারা অভিযোগ করেন।

গ্রামবাসীর অভিযোগ, ইতালী প্রবাসী আব্দুর রহিম ও তার পরিবার অঢেল ধন সম্পদের মালিক হওয়ায় তারা সব কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে যেকোন অবস্থায় ঐ এলাকায় ইট ভাটা গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছেন। বর্তমানে তারা জমি লিজ নিয়ে মাটি উত্তোলন এবং ভাটার নির্মাণ কাজ শুরু করেছে জানিয়ে গ্রামবাসী বলেন, ইতিপূর্বে ইটের ভাটার জন্য একই বিলের দক্ষিণ পার্শ্ব থেকে গভীর করে মাটি উত্তোলন করায় প্রায় তিনশত ভূমিহীন পরিবার ভাঙন ঝুঁকিতে পড়ে।

বংশীপুর গ্রামে বসবাসরত নারী ও পুরুষেরা অভিযোগ তুলেছেন, ঐ বিলে ইট ভাটা হলে পাশের সমুদয় চাষের জমিতে ধান উৎপাদনের ক্ষমতা হারাবে তেমনি এলাকার গাছগাছালী ধ্বংস হয়ে যাবে। অবিলম্বে তারা জনবসতির মধ্য থেকে ইট ভাটার নির্মাণ কাজ বন্ধের জন্য জেলা প্রশাসকের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ইতিপূর্বে ঈশ্বরীপুর ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন অংশে উক্ত ইটের ভাটাটি পরিচালিত হতো। কিন্তু সেখানে জমির লিজের মেয়াদ শেষ হওয়াতে প্রভাবশালী ঐ ভাটা মালিক বংশীপুর গ্রামের জনবসতির মাঝ বরাবর ঐ ইটের বাটা গড়ে তোলার কাজ শুরু করে। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল ঐ ভাটা মালিকের পক্ষ নিয়ে লোকালয়ে ইটের ভাটা গড়ে তোলার কাজে বিরুদ্ধচারণকারীদের হয়রানির ভয়ভীতি দেখানোই প্রকাশ্যে কেউ কথা বরছেন না বলেও এসব অভিযোগকারী জানান।

এবিষয়ে ভাটার মালিক আব্দুর রহিমের পক্ষে তার খালাত ভাই শাহিন আলম জানান, পরিবেশ সম্মত ভাটা তৈরী করা হচ্ছে। জনবসতির মধ্যে ইট ভাটা তৈরীতে পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি আছে কিনা- এমন প্রশ্নের উত্তরে শাহিন জানান, অনুমতি রয়েছে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে তিনি কোন কাগজপত্র দেকাতে পারেনি।

জানা গেছে, ঈশ্বরীপুর ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন ইটের ভাটার অনুমতিপত্রকে পুঁজি করে তারা বংশীপুর এলাকার ভেটখালী রোডের পাশে জনবসতির মধ্যে ঐ ভাটা গড়ে তুলছে।

এদিকে স্থানীয় কয়েকজন গ্রামবাসী জানান, জনবসতির মধ্যে ইট ভাটা গড়ে তোলার পাশাপাশি কর্তৃপক্ষ শ্যামনগর-ভেটখালী মূল সড়কের পাশে ইট কাটানোর মাটি স্তুপাকারে রেখেছে। সামান্য বর্ষাতেই ঐ মাটি গলে রাস্তার উপরর এসে মারাত্মক সব দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে বলে স্থানীয়দের পাশাপাশি দুর্ঘটনার শিকার আবু জার, মোসলেম ও মিজানুর রহমানের অভিযোগ।

 

কোটালীপাড়ায় এলজিইডির প্রকৌশলীকে অপসারণের দাবিতে ছাত্রলীগের মানববন্ধন

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলা প্রকৌশলীর দুর্নীতি, অনিয়ম ও অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন করেছে উপজেলা ছাত্রলীগ। সোমবার দুপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন করে। পরে সেখানে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, কোটালীপাড়া উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মতিয়ার রহমান হাজরা, যুগ্ম আহবায়ক জাহিদুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক এসএম ইসরাফিল, ছাত্রলীগের আহবায়ক বাবুল হাজরা, স্থানীয় সরকারি শেখ লুৎফর রহমান ডিগ্রি কলেজের সাবেক ভিপি হায়দার হাজরা প্রমুখ। বক্তরা বলেন, উপজেলা প্রকৌশলী আবু কালাম কালিকাবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুনঃনির্মাণ কাজের দরপত্র মূল্যায়নে অনিয়মের আশ্রয় নিয়েছেন। তিনি উৎকোচের বিনিময়ে সর্বনিন্ম দরদাতা প্রতিষ্ঠানকে বাদ দিয়ে তার পছন্দের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কাজ পাইয়ে দেওয়ার ষড়যন্ত্র করছেন। উপজেলা প্রকৌশলী প্রকাশ্যে ঠিকদারদের কাছে উৎকোচ দাবি করেন, একথা কোটালীপাড়ার সকল মানুষ জানেন। তিনি ইতিমধ্যে ঠিকাদারদের কাছে “টু-পারসেন্ট ইঞ্জিনিয়ার” বলে পরিচিতি লাভ করেছেন। এদিকে এলজিইডির গোপালগঞ্জ অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: শরিফ হোসেন বলেছেন, বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা প্রকৌশলী ক্ষুব্ধ ঠিকদারদের হাতে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হন। ঠিকাদার, স্থানীয় প্রশাসন ও রাজনীতিক দলের নেতা-কর্মীদের নিয়ে ইতিমধ্যে ঘটনাটি মিমাংসা হয়ে গেছে।

গোপালগঞ্জে হিন্দু লীগের সম্মেলন

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জে হিন্দু লীগের জেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত শুক্রবার সদর উপজেলার পাটকেল বাড়িতে সংগঠনের দক্ষিণ বাংলা আঞ্চলিক কার্যালয় চত্বরে এ অনুষ্ঠিত সম্মেলন হয়। সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির মহা-সচিব বীরেন্দ্রনাথ মৈত্র। বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর  সম্পাদক সুমন কুমার মন্ডল, ঢাকা মহানগর কমিটির আহবায়ক প্রভাষ চন্দ্র তন্ত্রী। জেলা কমিটির সভাপতি সুরেশ চন্দ্র বিশ্বাসের সভাপতিত্বে এ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে  বক্তব্য রাখেন পংকজ কুমার মন্ডল, তমাল সরকার, শচীন্দ্র নাথ বিশ্বাস, রমেশ চন্দ্র বিশ্বাস, অধ্যাপক শুকদেব বিশ্বাস, দীনেশ কুমার বালা প্রমুখ।

আগামী প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গড়ে তুলতে হবে : মুনসুর আহমেদ

আকতার হোসেন ডাবলু, দেবহাটা : একাত্তরের রনাঙ্গণের লড়াকু সৈনিক ক্যাপ্টেন শাহাজান মাস্টারের ১৯তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভায় জেলা পরিষদের প্রশাসক মুনসুর আহমেদ বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছড়িয়ে দিয়ে আগামী প্রজন্ম কে আদর্শ নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। তিনি সোমবার বিকেলে দেবহাটা উপজেলার টাউনশ্রীপুর শরচ্চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে এক আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সখিপুর কেবিএ কলেজের অধ্যক্ষ রিয়াজুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন দেবহাটা উপজেলা চেয়ারম্যান এড. সম গোলাম মোস্তফা, দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সাখাওয়াত হোসেন, জেলা জাসদের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা কাজী রিয়াজ। বক্তব্য রাখেন, শিক্ষক দিলীপ কুমার ব্যানার্জী, আব্দুল কাদের, সরদার কাজেম আলী, সাংবাদিক আব্দুল ওহাব, জামসেদ আলী, সরদার আমজেদ হোসেন প্রমুখ।

ছয়ঘরিয়ায় চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ, পুলিশের মিমাংসার প্রস্তাব

মনিরুল ইসলাম মনি : ৪র্থ শ্রেণির স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালিয়েছে এক ব্যক্তি। রোববার বেলা ১১টার দিকে সদর উপজেলার ছয়ঘরিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে । এ ঘটনায় থানায় একটি এজাহার দেওয়া হয়েছে।

ওই স্কুল ছাত্রীর পিতা জানান, রোববার বেলা ১১টার দিকে তিনি ও তার স্ত্রী মাধপকাঠি বাজারে ডাক্তারের কাছে যান। বাড়িতে তার মেয়ে ও তাদের দুটি ছোট বাচছা ছিল। এ সুযোগে একই গ্রামের আলমগীর হোসেন তাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। তার ডাক চিৎকারে গ্রামবাসীরা এসে পড়লে সে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় রোববার সদর থানায় একটি এজাহার দেওয়া হয়েছে। কিন্ত পুলিশ মামলা না নিয়ে মিমাংসার প্রস্তাব দিয়েছে।

সদর থানার এসআই নাজমুল হক জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর তিনি ঘটনাস্থালে যান। ঘটনাটি সঠিক। তবে এখনও মামলা রেকর্ড করা হয়নি।

কলারোয়া সীমান্তে ভারতীয় শার্ট ও পাঞ্জাবির কাপড় উদ্ধার

কলারোয়া প্রতিনিধি : কলারোয়া সীমান্তে বিজিবি সদস্যরা পৃথক অভিযান চালিয়ে ২ লক্ষাধিক টাকার ভারতীয় শার্ট ও পাঞ্জাবির কাপড় উদ্ধার করেছে। কলারোয়ার মাদরা বিজিবি ক্যাম্পের কোম্পানি কমাণ্ড সূত্রে জানা গেছে, কোম্পানি কমাণ্ডার সুবেদার সুলতান হোসেনের নেতৃত্বে গত রোববার রাতে বিজিবি সদস্যরা উপজেলার সীমান্তবর্তী দক্ষিণ ভাদিয়ালি গ্রামের রাজ্জাকের মোড়ে চোরাচালানীদের ধাওয়া করলে তারা বহন করা কাপড়ের গাইট ফেলে যায়। এ সময় বিজিবি সদস্যরা ৭২৭ মিটার ভারতীয় শার্টের কাপড় উদ্ধার করে। যার আনুমানিক মূল্য ১ লাখ ৪৫ হাজার ৪শ’ টাকা। একই রাতে কাকডাঙ্গা বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা নায়েক সুবেদার ইয়াছিন মোল্যার নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে বোয়ালিয়া গ্রামের পাকা রাস্তা থেকে ভারতীয় ১২৬ মিটার পাঞ্জাবির কাপড় উদ্ধার করে। যার আনুমানিক মূল্য ৬৩ হাজার টাকা। তবে উভয় অভিযানে বিজিবি সদস্যরা কাউকে আটক করতে পারেনি

সুশীলন পরিচালকের মামা আফসার উদ্দীন আর নেই

নিজস্ব প্রতিনিধি : বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা সুশীলনের পরিচালক মোস্তফা নূরুজ্জামানের বড় মামা বিশিষ্ট সমাজ সেবক পানিয়া জনকল্যাণ সমিতির প্রতিষ্ঠাতা আফছার উদ্দীন সরদার আর নেই। গতকাল সোমবার ভোর পৌনে ৫টায় কালিগঞ্জ উপজেলার মৌতলা ইউনিয়নের পানিয়া গ্রামের নিজ বাড়ীতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না……রাজেউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৬ বছর। তিনি মৃত মোঃ নুর আলী সরদার ও মৃত আলেয়া বেগমের ছেলে। তিনি দুভাই ও ছয় বোনের মধ্যে ষষ্ঠ এবং ভাইদের মধ্যে বড়। মৃত্যকালে তিনি ২ পুত্র ও ২ কন্যাসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। পানিয়া ঈদগাহ ময়দানে মরহুমের নামাজে জানাজা শেষে গতকাল বিকাল সাড়ে ৫টায় পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন কালিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহাদত হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদীসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। আফছার উদ্দীন সরদার তার জীবদ্দশায় এলাকায় বিদ্যুৎ ও কৃষি উন্নয়নে ব্যাপক অবদান রাখেন। খেলার মাঠ, মসজিদ, ক্লাবসহ বহু সামাজিক সংগঠন প্রতিষ্ঠায় ব্যাপক ভূমিকা রাখেন। আফসার উদ্দীনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন সুশীলন পরিবারের সকল সদস্য ও সাতক্ষীরা অফিসের স্টাফগণ।

শ্যামনগরে চিংড়ি চাষীদের নামে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

ডেস্ক রিপোর্ট : শ্যামনগরের তিন শতাধিক চিংড়ি চাষীর নামে পানি উন্নয়ন বোর্ড দায়েরকৃত মামলা থেকে চাষীদের অব্যাহতি দিয়ে চিংড়ি শিল্পকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় চিংড়ি চাষী সমিতির নেতৃবৃন্দ। গতকাল সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান শ্যামনগর উপজেলা চিংড়ি চাষী সমিতির সভাপতি এসএম আফজালুল হক। তিনি বলেন, দেশের দ্বিতীয় সর্ববৃহৎ রপ্তানি পণ্য হচ্ছে চিংড়ি। বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের এক বড় অংশ আসে চিংড়ি রপ্তানি করে। শ্যামনগর উপজেলা সাতক্ষীরার মধ্যে চিংড়ি চাষের একটি বৃহৎ ক্ষেত্র। এই উপজেলায় বসবাসকারী বিভিন্ন শ্রেণি পেশার প্রায় ৪ লক্ষাধিক মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে চিংড়ি শিল্পের সাথে জড়িত। সরকারি হিসেবে শ্যামনগরে ১৪,৬৬৯.২০ হেক্টর এবং বেসরকারি হিসাবে ২৬,৬৪২.৩৩ হেক্টর জমিতে চিংড়ি চাষ চলমান। দেশের মোট চিংড়ির বৃহৎ একটি অংশ উৎপাদিত হয় শ্যামনগর উপজেলায। চিংড়ি শিল্পের উন্নতির সাথে সাথে এ অঞ্চলের রাস্তা-ঘাট, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, সামাজিক অবস্থার উন্নতিসহ নাগরিক সুযোগ সুবিধা বেড়েছে এবং উন্নয়ন হয়েছে সব শ্রেণির মানুষের জীবন যাত্রার মান।

তিনি বলেন, সম্প্রতি নানান প্রতিকূলতায় জর্জরিত হয়ে এ শিল্প বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। মৌসুমের শুরুতেই দফায় দফায় চিংড়ির দর পতন, পোনার মূল্য বৃদ্ধি, ঘেরে ব্যাপকভাবে ভাইরাসের আক্রমণে দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে চাষীরা। এ পরিস্থিতিতে চিংড়ি চাষীরা সর্বশান্ত হতে চলেছে। ঋণের দায়ে দিশেহারা হয়ে অনেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে আগামী দু’এক বছরের মধ্যে চিংড়ি সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে যাবে। এমনই দুরাবস্থার মধ্যে গত ১৭ ও ১৮ জুলাই পানি উন্নয়ন বোর্ড খোড়া অজুহাতে শ্যামনগর উপজেলার ৩৩৩ জন চিংড়ি চাষীর বিরুদ্ধে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের বি ধারায় থানায় পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করেছে। চিংড়ি  চাষীদের জন্য এ যেন “মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা”। দেড় মাস আগে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নোটিশ পেয়ে অধিকাংশ চিংড়ি চাষী ওয়াপদা বেঁড়িবাধের মধ্যে অবস্থিত সকল পাইপ ও বক্সকল বন্ধ ও অপসারণ করে নেয়। চিংড়ির ভরা মৌসুম থাকায় বাকিগুলো অপসারণের জন্য আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত মৌখিকভাবে সময় চেয়ে নেয় চাষীরা। একই দাবিতে তারা গত ৬ জুন প্রধানমন্ত্রী বরাবর একটি স্মারকলিপিও প্রদান করে। তারপরও পাউবো কর্মকর্তরা তাদের নামে থানায় হয়রানিমূলক মামলা দায়ের করেন। পাউবোর’র এই মামলা সাতক্ষীরার চিংড়ি শিল্পের বিরুদ্ধে ত্রাস সৃষ্টি করেছে। এসবের কারণে হঠাৎ করে চিংড়ি চাষ বন্ধ হয়ে গেলে এই এলাকার জমিতে কোনভাবেই ধান চাষ করা সম্ভব নয়। মাটিতে লবণাক্ততার কারণে অনেক জমিতে স্বাভাবিক ধান চাষ হতে দীর্ঘদিন অপেক্ষা করতে হবে। এ দীর্ঘ সময় চিংড়ি চাষীরা কিভাবে জীবিকা নির্বাহ করবে এটা কোন ভাবেই আমাদের বোধগম্য নয়। তিনি দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তর রপ্তানি আয়ের উৎস চিংড়ি শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে শ্যামনগর উপজেলার চাষীদের নামে দায়ের করা মামলার দায় থেকে অব্যাহতি প্রদানের জন্য প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, কৈখালী ইউপি চেয়ারম্যান জিএম রেজাউল করিম, রমজাননগর ইউপি চেয়ারম্যান আকবর আলী, গাবুরা ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল আলম, বিশিষ্ট চিংড়ি চাষী ও ব্যবসায়ী  হাজী মজিবর রহমান, হাজী মোবারক আলী, শেখ আব্দুস সবুর, শেখ আফজারুর রহমান, শেখ মিজানুর রহমান প্রমুখ।

 

কলারোয়ায় সর্প দংশনে শিশুর মৃত্যু

কলারোয়া প্রতিনিধি: গতকাল সোমবার ভোর ৫ টার দিকে সাপের দংশনে আফজাল নামের ৫ বছরের এক শিশুর করুণ মত্যু হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কোমরপুর গ্রামে। হতভাগ্য শিশুর পিতার নাম আতিয়ার রহমান। তিনি গতকাল সাংবাদিকদের জানান, ঘুমন্ত অবস্থায় তার শিশু পুত্র আফজাল হোসেনকে একটি বিষাক্ত সাপ দংশন করে। বিষয়টি তারা বুঝতে পেরে দুরের গ্রাম থেকে এক ওঝা ডাকতে যান। কিন্তু ওঝা আসার আইে সর্বনাশ যা হওয়ার তা হয়ে যায়। অবুঝ শিশু আফজাল মৃত্যুর হিম শীতল কোলে ঢলে পড়ে। সদ্য স্কুল যাওয়া এ শিশুটির আকস্মিক মৃত্যুতে পরিবার ও তদসংলগ্ন এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

কপিলমুনির ঐতিহ্যবাহী সহচরী বিদ্যামন্দির কলেজে উন্নীতকরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়

পাউকগাছা প্রতিনিধি : দক্ষিণ খুলনার বাণিজ্যিক উপশহর কপিলমুনির ঐতিহ্য সহচরী বিদ্যামন্দির। সময়ের ব্যবধানে ঐতিহ্যবাহী এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি কলেজ পর্যায়ে উন্নীতকরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ সু-বার্তা যেন এলাকার আপামর জনসাধারণকে আরও একধাপ সাফল্যের স্বর্ণ শিখরে পৌঁছে দিয়েছে, এমন মন্তব্য এলাকাবাসীর।

জানাযায়, উপমহাদেশের প্রখ্যাত বৈজ্ঞানিক স্যার পিসি রায়ের পরামর্শ ও অনুপ্রেরণায় ক্ষনজন্মা রায় সাহেব বিনোদ বিহারী সাধূ বাজার প্রতিষ্ঠার পর মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে প্রতিষ্ঠা করেন একাধিক প্রতিষ্ঠান। তার মধ্যে ১৯২৬ সালে মাতামহ সহচরী দেবীর নামানুষারে প্রতিষ্ঠা করেন সহচরী বিদ্যামন্দির। যা বর্তমানে পাইকগাছা-খুলনা যাতায়াতের প্রধান সড়কের পূর্বপার্শ্বে ৪.০৯ একর জমির উপর অবস্থিত। জন্মলগ্ন থেকে হাটি হাটি পা পা করে প্রতিষ্ঠানটি তার স্বীয় মর্যাদা অটুট রেখেছে। ধরে রেখেছে আভিজাত্য ও ঐতিহ্য। ফলে সুশিক্ষায় গড়ে উঠেছে এলাকার বহু সন্তান। যাদের অনেকে আজ দেশের গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়োজিত থেকে দেশ সেবায় নিবেদিত রয়েছে। প্রতিষ্ঠার পর ১৯২৭ সালের ১০ জুলাই তৎকালীন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বাঙালি উপাচার্য ঐতিহাসিক রয়েল এশিয়াটিক সোসাইটির সদস্য স্যার যদুনাথ সরকার এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শুভ দ্বারোদঘাটন করেন। সেই সময় প্রতিষ্ঠাতা রায় সাহেব বিনোদ বিহারী সাধু তার লিখিত দলিলে উল্লেখ করে গেছেন, অত্র প্রতিষ্ঠানের কার্যনির্বাহী পরিষদের সভাপতি থাকবেন (পদাধিকার বলে) জেলা প্রশাসক, খুলনা। ঐ সময় খুলনা ডিস্ট্রিক কালেক্টর অত্র প্রতিষ্ঠানের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৩৩ সালে কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক স্থায়ীভাবে স্বীকৃতি লাভ করে প্রতিষ্ঠানটি। ১৯৯৯ সালে অত্র বিদ্যালয়ে কম্পিউটার শিক্ষা কোর্স, ২০০৬ সালে কারিগরি শিক্ষা কোর্স ও সর্বশেষ গত জুন’১২ সালে বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় কপিলমুনি সহচরী বিদ্যা মন্দিরকে কলেজ পর্যায় উন্নীত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বলে জানা গেছে। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটিকে ঘিরে রয়েছে, রায় সাহেব বিনোদ বিহারী সাধু নির্মিত মূল প্রশাসনিক ভবন। রয়েছে ৪টি একাডেমিক ভবন, অমৃতময়ী মিলনায়তন, বিজ্ঞান ভবন, বিনোদ স্মৃতি ছাত্রাবাস ও প্রধান শিক্ষকের বাস ভবন। রয়েছে সহচরী সরোবর নামে নিজস্ব পুকুর, ভাষা শহীদদের স্মরণে দৃষ্টি নন্দিত শহিদ মিনার, সকল খেলার উপযোগী সুবিশাল মাঠ, ৩টি মার্কেট এর ৮১টি দোকান, ০.৬৬ শতক বিলান জমি। বর্তমানে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা (৪র্থ শ্রেণি থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত) ১০৭৮ জন এবং শিক্ষক শিক্ষিকার সংখ্যা রয়েছে ২৭ জন।

 

হাইকোর্টের নির্দেশে কেসিসি’র কসাইখানা নির্মাণ কাজ স্থগিত

খুলনা ব্যুরো : খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন ময়ূর নদী পাড়ে নতুন করে কসাইখানা নির্মাণের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ এবং স্থাপনা তৈরিসহ সকল ধরনের কার্যক্রম ৪ মাসের জন্য স্থগিত করেছে হাইকোর্ট। একই সাথে আদালত মেয়র-সচিবসহ ১৩ বিবাদীর প্রতি ওই এলাকায় কসাইখানা নির্মাণ কেন অবৈধ হবে না তা আগামী ৪ সপ্তাহের মধ্যে কারণ দর্শাতে নির্দেশ দিয়েছেন।

বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ এবং বিচারপতি মীর্জা হোসেইন হায়দার সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চ রবিবার এই আদেশ প্রদান করেন। ওই এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর আবেদনের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) রীটটি দায়ের করে।

এর আগে গত ৫ মে ময়ূর নদী পাড়ে নতুন করে কসাইখানা নির্মাণ বন্ধের দাবিতে বেলা’র পক্ষে সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী এ্যাড. ইকবাল করীর সংশ্লি¬ষ্ট কর্তৃপক্ষের ১৩ জনের বিরূদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ করেন।

বেলা নোটিশের মাধ্যমে খুলনা সিটি কর্পোরেশন দ্বারা আবাসিক এলাকায় প্রস্তাবিত কসাইখানা স্থাপনের উদ্যোগ বন্ধ এবং সকল প্রকার অনুমোদন ও পরিবেশগত ছাড়পত্র প্রদান করা হতে বিরত থাকতে অনুরোধ জানায়। একইসাথে কেডিএ’র মাস্টার প্ল¬ান অনুযায়ী নির্ধারিত স্থানে কসাইখানা নির্মাণের দাবি জানায়।

কপিলমুনিতে নছিমন মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ৫

পাইকগাছা প্রতিনিধি : কপিলমুনিতে নছিমন-মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষে ৫ জন মারাত্মক আহত হয়েছে। গতকাল বেলা ১২টায় পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি শহরতলীর সলুয়া-মামুদকাটির সংলগ্ন প্রধান সড়কে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে মোটর সাইকেল চালক টিকেন মণ্ডলের পরিচয় জানা গেলেও অন্যান্যদের নাম পরিচয় জানা যায় নি।

জানা গেছে, আহতদের মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় ২ জনকে প্রথমে কপিলমুনি হাসপাতাল ও পরে অবস্থার অবনতি হলে খুলনায় স্থানান্তর করা হয়। প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলা কপিলমুনি শহরতলীর সলুয়া-মামুদকাটি সংলগ্ন স্থানে পাইকগাছাগামী যাত্রী বোঝাই নছিমন ও বিপরীত দিক থেকে আসা ভাড়ায় চালিত মোটর সাইকেল পাশাপাশি ক্রস করতে গিয়ে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে আহত মোটর সাইকেল চালক টিকেন মন্ডলসহ অন্যান্যদের কপিলমুনি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাদের খুলনা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। বাকীদের বিভিন্ন ক্লিনিকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

তালার খেশরা ইউনিয়নে কর্মশালা

তালা প্রতিনিধি : গতকাল সোমবার সকালে জাপান ইন্টারন্যাশনাল কোপারেলন এজেন্সী জাইকা ও কেয়ার বাংলাদেশ’র সহযোগিতায় তালা উপজেলার খেশরা ইউনিয়ন পরিষদে মডেল ইউনিয়ন বিষয়ক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। খেশরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এসএম লিয়াকত হোসেনের সভাপতিত্বে কর্মশালায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সেফ মাদার হুড প্রকল্প’র প্রজেক্ট অফিসার  আলমগীর হোসেন ও কেয়ার বাংলাদেশ’র কমিউনিটি ডেভলপমেন্ট অফিসার হুমায়ুন কবির। এসময় স্বাস্থ্য পরিদর্শক আব্দুল জব্বার মোড়ল, এফডব্লিউভি মনোয়ারা বেগম, ইউপি সদস্য তাছলিমা বেগম টুপু, রমিছা বেগম, নিমাই সানা, সুনীল দাশ, সুসীল দাশ, সমাজসেবক আঃ মজিদ মোড়ল, প্রভাষক হাছিবুর রহমান, ইউপি সচিব রুবায়েত হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।