জেলায় ছয় মাসে ২৭৫ জন নারী নির্যাতনের শিকার

ইয়ারব হোসেন : জেলায় নারী নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। যৌতুকের বলি হচ্ছে অনেক গৃহবধূ। এসিড সন্ত্রাস, যৌন হয়রানি ও  ধর্ষণের শিকার হচ্ছে অনেক নারী।

জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভা সূত্রে জানা গেছে, গত ছয় মাসে জেলার সাতটি উপজেলায় ২৭৫টি নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ধর্ষণ ২৫টি, অপহরণ ২০টি, শিশু নির্যাতন ১৪টি, এসিড সন্ত্রাস ৩টি ও অন্যান্যভাবে নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে ১৮২টি।

এর মধ্যে জানুয়ারি মাসে ৪টি, ফেব্রুয়ারি মাসে ১টি, মার্চ মাসে ৮টি, এপ্রিল মাসে ৫টি ও মে মাসে ৫টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।

অপহরণের ঘটনা ঘটেছে জানুয়ারি মাসে ২টি, ফেব্রুয়ারি মাসে ৩টি, মার্চ মাসে ৩টি, এপ্রিল মাসে ৫টি ও মে মাসে ৫টি।

মার্চ মাসে ২ জন শিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে, এপ্রিল মাসে ৫ জন ও মে মাসে নির্যাতনের শিকার হয়েছে ৬ শিশু।

অন্যান্যভাবে নির্যাতনের শিকার নারীর সংখ্যা জানুয়ারি মাসে ২১ জন, ফেব্রয়ারি মাসে ৩১ জন, মার্চ মাসে ২৯ জন, এপ্রিল মাসে ৩৩ জন, মে মাসে ৫৫ জন ও জুন মাসে ৫০ জন।

সূত্র জানায়, জেলায় নারী নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধি পেলেও মানবাধিকার সংগঠনগুলো হাতপা গুটিয়ে বসে থাকতে দেখা যায়। সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যারয়ের মেধাবি ছাত্রী মাশহুদা খাতুনকে তার স্বামী পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে। যৌতুকের দাবিতে মধ্যযুগীয় কায়দায় স্বামী, শ্বাশুড়ি ও শ্বশুর মিলে গৃহবধূ মর্জিনা খাতুনকে হত্যা করেছে। সারাদেশে এ দুটি হত্যাকাণ্ড ব্যাপক আলোড়ন তোলে। তবে এ দুটি ঘটনার প্রতিবাদে কোন মানবাধিকার সংগঠনকে মাঠে দেখা যায়নি। এমনকি তাদের এ ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে পত্রিকায় প্রেস রিলিজও দিতে দেখা যায়নি।

সদর উপজেলার হাড়দ্দা গ্রামের মর্জিনা খাতুন জানান, প্রায় তিন মাস আগে তার মেয়ের সাথে হাড়দ্দা গ্রামের ইসরাইল গাজীর ছেলে ইব্রাহিম গাজীর বিয়ে হয়। বিয়ের কয়েক দিন পার হতে না হতেই এক লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে তার মেয়ের উপর নির্যাতন শুরু হয়। জামাই ইব্রাহিম, তার পিতা ইসরাইল গাজী ও তার মা মিলি খাতুন মিলে প্রায় তাকে নির্যাতন করতো। গত ৩ মে যৌতুক বাবদ নগদ এক লাখ টাকা অথবা একটি মোটর সাইকেল আনতে বলে তার মেয়েকে। যৌতুকের টাকা আনতে অস্বীকৃতি জানালে তার মেয়ের উপর চালানো হয় মধ্যযুগীয় নির্যাতন। তার মেয়েরে চোখ উপড়ে ফেলে গুপ্ত অঙ্গসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে নির্যাতন চালিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে এলাকাবাসী শহরে মিছিল ও থানা ঘেরাও করে।

সদর উপজেলার খানপুর গ্রামের হাছান খানপুরির মেয়ে ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয়ের আইন বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী মাশহুদা খাতুনের সাথে বিয়ে হয় খুলনা উপজেলার পাইকগাছা গ্রামের মহিউদ্দীনের ছেলে রুহুল কুদ্দুসের (২৩)। তারা দু’জনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করতো। বিয়ের পর থেকে মাসুদা ও তার স্বামীর  মধ্যে কলহ চলে আসছিল। ২২ জুন ভোরে কুদ্দুস তার স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরে ওই ঘরের তালা দিয়ে সদর থানায় এসে স্বেচ্ছায় আত্মসমার্পণ করে। এ হত্যাকাণ্ডটি সাতক্ষীরা জেলাসহ দেশব্যাপী ব্যাপক আলোড়ন তোলে।

পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান জানান, দেশের অন্য জেলাগুলোর তুলনায় এ জেলায় নারী নির্যাতনের ঘটনা অনেক বেশি। গ্রামের কিছু মানুষ নারী নির্যাতনের ধারা কঠোর হওয়ায়, এ সুযোগ কাজে লাগাতে চায়।

আবার অনেকে থানায় মামলা করতে না পেরে আদালতে মামলা করে। আদালত থেকে সরাসরি তাদের মামলা রেকর্ড করতে নির্দেশ দেওয়া হয়। এ কারণে নারী নির্যাতনের মামলার সংখ্যা বেড়ে যাচেছ। তবে এখন থেকে প্রতিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে নারী নির্যাতন মামলা নেওয়ার ব্যাপারে সর্তক হওয়ার জন্য। এ ছাড়া কেউ মিথ্যা মামলা করেছে, এমন প্রমাণ হলে ওই বাদীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিশ্ব বাঘ দিবস ২৯ জুলাই, কর্মসূচি গ্রহণ

সুন্দরবনাঞ্চল (শ্যামনগর) প্রতিনিধি : আগামী ২৯ জুলাই বিশ্ব বাঘ দিবস। বাঘ সংরক্ষণ ও সুন্দরবন রক্ষায় সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সাতক্ষীরা রেঞ্জের এ উপলক্ষ্যে ২৯ জুলাই মুন্সিগঞ্জে পদযাত্রা ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

বন বিভাগ সাতক্ষীরা রেঞ্জ সূত্রে প্রকাশ, বিশ্ব বাঘ দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জেলা প্রশাসক ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন শ্যামনগর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল বারী, খুলনার উপ-বন সংরক্ষক মারুফা আক্তার, শ্যামনগর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শিল্পী রানী মৃধা ও শ্যামনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আমীর তৈমুর ইলী।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ দৌলতুজ্জামান খাঁন। সুশীলন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ওই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

এ ছাড়া ওয়াইল্ডলাইফ ট্রাস্ট অব বাংলাদেশ শ্যামনগরের আয়োজনে সুন্দরবনের চারটি রেঞ্জে বিশ্ব বাঘ দিবস উপলক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

বিপর্যস্ত খলিষখালীর যোগাযোগ ব্যবস্থা, জনমনে ক্ষোভ

পত্রদূত রিপোর্ট : স্বাধীনতার ৪১ বছরেও যোগাযোগ ব্যবস্থায় উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি তালা উপজেলার আওয়ামী লীগের ভোট ব্যাংক হিসেবে খ্যাত খলিষখালী ইউনিয়নে। এতে এলাকাবাসীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সরেজমিনে উপজেলার খলিষখালী ইউনিয়নের দলুয়া, মাদরা, গাছা, বাগডাঙ্গা, গোপালডাঙ্গা, ছোটগাছা, বিশেষকাটী, দুবড়োরডাঙ্গা, হরিণখোলা ও সোনাবাধনলে গিয়ে দেখা যায়, বর্ষা মৌসুমে এসব এলাকায় চলাচলে চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। হাটু কাঁদা পার হয়ে চলাচল করতে হচ্ছে এলাকাবাসীর। নেই স্কুলে যাওয়ার জন্য তেমন ভাল রাস্তা। ফলে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো পার হয়ে কাঁদা ভেঙ্গে যেতে হচ্ছে স্কুলে। এলাকাবাসী জানায়, তৎকালীন বিএনপি’র সাবেক সংসদ, জেলা বিএনপি’র সভাপতি হাবিবুল ইসলাম হাবিব ওই এলাকায় শিক্ষা ও যোগাযোগ ব্যবস্থার বেহাল চিত্র দেখে প্রতিষ্ঠা করেন শহীদ জিয়াউর রহমান ডিগ্রি কলেজ। পাটকেলঘাটা থেকে দলুয়া বাজার পর্যন্ত যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের ক্ষেত্রে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। এই কলেজটি প্রতিষ্ঠার কারণে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে পাটকেলঘাটা অথবা তালায় যেতে হয় না কলেজ পড়–য়া ছাত্র-ছাত্রীদের। ক্ষোভ প্রকাশ করে গাছা গ্রামের সঞ্জয় রায় ও বিকাশ সরকার জানান, এই এলাকার জনগণ স্বাধীনতার পর থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের ভোট দিয়ে আসলেও আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর এ এলাকার জন্য তেমন কোন কাজ করে নি। তারা জানে এ এলাকার জনসাধারণ নৌকা প্রতীকে ভোট দেবে। তাই যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নতি করলো বা না করলো এসব দেখে নৌকা প্রতীক ছেড়ে আসবে না তারা। বৃদ্ধ তপন রায়, প্রকাশ সরকার, বৃদ্ধা অনিমা রাণী জানান, আমাদের চলাচল ও বাচ্চাদের স্কুলে যাওয়া বড় সমস্যা। অপর দিকে দলুয়া বাজার সংলগ্ন পারকৈখালী স্কুলের সামনেই বড় চিংড়ি মাছের ঘের থাকায় ছাত্র-ছাত্রীদের চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। বর্ষা মৌসুমে পানি ও কাঁদা থাকায় স্কুলে যাতায়াত কমিয়ে দিয়েছে ছাত্র-ছাত্রীরা। অনুরূপ গাছা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে রাস্তা সংস্কারের উদ্যেশ্যে দীর্ঘ ৪-৫ মাস বুক পর্যন্ত গর্ত করে খুড়ে রাখার কারণে একেবারে ভেঙ্গে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। এ রাস্তা চলাচলের ক্ষেত্রে অনুপযোগী হয়ে থাকলেও সংস্কারের কোন উদ্যোগ নেই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের। তবে দলুয়া বাজার থেকে গাছা মাধ্যমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত সংস্কারের কাজ শুরু হয়েছে নিম্নমানের ইট দিয়ে। যেভাবে রাস্তা সংস্কারের কাজ চলছে, তাতে কতদিনে সংস্কার কাজ শেষ হবে তা নিয়ে চিন্তিত এলাকাবাসী।

খলিষখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সুলতান আহম্মেদ জানান, এ এলাকায় যোগাযোগ ব্যবস্থার বেশ উন্নয়ন হচ্ছে। ইতিমধ্যে দলুয়া বাজার থেকে গাছা স্কুল পর্যন্ত সংস্কারের কাজ শুরু হয়েছে। এছাড়া দলুয়া বাজার থেকে শালিখা কলেজ পর্যন্ত দ্রুত রাস্তাটি সংস্কারের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

তালা উপজেলা চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার জানান, উক্ত এলাকা থেকে আওয়ামী লীগ শতভাগ ভোট পেয়ে থাকে। সেহেতু, সংসদ সদস্য উক্ত এলাকার প্রতি বিশেষ নজর রেখেছেন। ইতিমধ্যে দলুয়া বাজার থেকে শালিখা কলেজ পর্যন্ত রাস্তাটি নতুন রূপে তৈরির জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

 

জেলায় ৫৫ টাকা ফিতরা নির্ধারণ

গত বুধবার বাদ জোহর শহরের পাওয়ার হাউজ জামে মসজিদে বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতি সাতক্ষীরা জেলা শাখা ও সাতক্ষীরা উলামা পরিষদ’র যৌথ উদ্যোগে মুফতি আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে ফিতরা নির্ধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় দীর্ঘ পর্যালোচনার পর স্থানীয় বাজার দর যাচাই পূর্বক এ বছরের ফিতরা আধা সা’ অর্থাৎ ১ কেজি ৬৫০ গ্রাম ভালো আটার মূল্য হিসেবে ৫৫ টাকা) নির্ধারণ করা হয়। উল্লেখ্য, কোন ধর্ণাঢ্য মুসলমান হাদীসে বর্ণিত খেজুর, কিসমিস, যব বা পনিরের দ্বারা ফিতরা আদায় করতে চাইলে এক সা অর্থাৎ ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম ভালো আটা বা তার মূল্য প্রদান করতে হবে। ধর্ণাঢ্য ব্যক্তিদের খেজুর, কিসমিস, যব বা পনিরের হিসেবে ফিতরা দেওয়া উত্তম। আর গম দ্বারা ফিতরা আদায় করতে চাইলে আধা সা অর্থাৎ ১ কেজি ৬৫০ গ্রাম গম বা তার মূল্য প্রদান করতে হবে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতি সাতক্ষীরা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মাওলানা জাহাঙ্গীর আলম, সাতক্ষীরা উলামা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মাওলানা জালালুদ্দিন, সহ-সভাপতি মুফতি সাইফুল্লাহ রহমানী, মুফতি আব্দুল্লাহ, হাফেজ মাওলানা আবুল হোসেন প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

 

 

তালায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১০১টি পরিবারের মধ্যে নতুন ঘরের চাবি হস্তান্তর

তালা প্রতিনিধি : বন্যা ও জলাবদ্ধতায় ক্ষতিগ্রস্ত তালা উপজেলার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের লক্ষনপুর গ্রামের ১০১টি বানভাসী পরিবারের মধ্যে নতুন ঘরের চাবি তুলে দেয়া হয়েছে। গতকাল বেসরকারি সংস্থা বাঁচতে শেখা ও অক্সফাম জিবি’র উদ্যোগে উক্ত ঘরের চাবি প্রদান উপলক্ষ্যে এক সভা লক্ষনপুর মিশনে সংস্থার নির্বাহী পরিচালক আঞ্জেলা গমেজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় গোলাম রাব্বানীর পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন তালা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার, তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহাবুবুর রহমান ও প্রগতি’র সম্পাদক অধ্যক্ষ আশেক-ই-এলাহী। সভায় অন্যান্যের মধ্যে তালা সদর ইউপি চেয়ারম্যান এসএম নজরুল ইসলাম, তেঁতুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মিয়াজান আলী মোড়ল ও এনজিও কর্মকর্তা গোলাম সরোয়ার আযম বক্তৃতা করেন। এছাড়া সভায় স্বাগত বক্তৃতা করেন বাঁচতে শেখা’র নির্বাহী পরিচালক আঞ্জেলা গমেজ।

আজ শহীদ জাহেদার ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী

ডেস্ক রিপোর্ট : দেবহাটা কালিগঞ্জের ভূমিহীন আন্দোলনের নেত্রী শহীদ জাহেদার ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৯৮ সালের ২৭ জুলাই কালিগঞ্জ উপজেলার বাবুরাবাদে পুলিশ এবং ভূমিদস্যুদের সশস্ত্র হামলায় তিনি নিহত হন। আহত হয় কয়েক শ’ ভূমিহীন নারী পুরুষ শিশু।

শহীদ জাহেদার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে দেবহাটা কালিগঞ্জ ভূমিহীন সংগ্রাম কমিটি বাবুরাবাদের জাহেদা নগরে আজ দিনভর বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এসব কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, শহীদের মাজারে শ্রদ্ধা নিবেদন, আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল। এছাড়া কেন্দ্রীয় ভূমি কমিটি আগামীকাল সকাল ১০টায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে শহীদ জাহেদার আত্মত্যাগ, সাতক্ষীরার খাস জমির লড়াই ও বর্তমান প্রেক্ষাপট শীর্ষক এক মতবিনিময় সভা আহবান করেছে।

 

কালিগঞ্জের ফতেপুরে ট্রাজেডি: জাপা নেতা মোশারফ হোসেনসহ ১৬ জনের জামিন আদেশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আপিল

ডেস্ক রিপোর্ট : কালিগঞ্জ উপজেলার ফতেপুর গ্রামে গত ৩১ মার্চ সহিংসতার ঘটনায় উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেনসহ ১৬ জনকে হাইকোর্টের জামিন আদেশের বিরুদ্ধে বুধবার সুপ্রিম কোর্টে  নিয়মিত আপিল (লিভ টু আপিল) দায়ের করা হয়েছে। ফলে হাইকোর্টে জামিনের আদেশ পাওয়ার পরও ওইসব আসামিদের জামিনে মুক্তি পাওয়া নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। হাইকোর্ট থেকে জামিনে মুক্তি পাওয়া আসামিরা হলো, কালিগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, একই উপজেলার পীরগাজন গ্রামের মাসুম বিল্লাহ সুজন, একই উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর গ্রামের জাপা নেতা জুলফিকার আলী সাঁফুই, তার ছেলে ডাবলু, একই গ্রামের আবু সাঈদ, ছিদ্দিক গাজী, মিলন গাজী, মিণ্টু গাজী, মান্নান গাজী, উত্তর শ্রীপুর গ্রামের হাসান গাজী, জহুর আলী পাড়, শ্রীকলা গ্রামের শফিকুল শেখ, একই গ্রামের মাহমুদ আলম মণ্টু, গোবিন্দপুর গ্রামের আহসান হাবিব মিণ্টু, কালিকাপুর গ্রামের শেখ আফছার আলী,শঙ্করপুর গ্রামের মোস্তফা তরফদার।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১৭ জুলাই জেলা ও দায়রা জজ আদালত থেকে মোশারফ হোসেনসহ ১৬ জন জামিন না পাওয়ায় হাইকোর্টে গেলে ২৩ জুলাই বিচারপতি কামরুজ্জামান ছিদ্দিকী ও জহিরুল হক তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। এ আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ (এডভোকেট অন রেকর্ড সুফিয়া খাতুন) বুধবার সুপ্রিম কোর্টের এপিলেড ডিভিশনে নিয়মিত আপিল (লিভ টু আপিল) করেন।  আপিল আবেদন মঞ্জুর হওয়ার পর তা ফ্যাক্সযোগে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক, সাতক্ষীরা জেলা ও দায়রা জজ ও সাতক্ষীরা জেল সুপার বরাবর পাঠানো হয়।

জেলা আইনজীবী সমিতির প্রবীণ সদস্য জিএম লুৎফর রহমান জানান, নিয়ম অনুযায়ী সুপ্রিম কোর্টে লিভ টু আপিল গৃহীত হলেই হাইকোর্টের রায় স্থগিত হয়ে যায়।

 

 

পাইকগাছায় স্কুল ছাত্রীকে উত্যক্তের অভিযোগে ২ বখাটের কারাদণ্ড

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি : পাইকগাছায় স্কুল ছাত্রীকে উত্যক্তের অভিযোগে ২ বখাটেকে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ৩টায় উপজেলার মৌখালী ইউনাইটেড একাডেমির ৭ম শ্রেণির এক ছাত্রী বিদ্যালয় ছুটির পরে স্কুল গেটের সামনে আসতেই একই এলাকার বখাটে আজিমুদ্দীন বাবু ও আরাফাত তার হাত ধরে টানা হেচড়া করে। এ সময় বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী আতিয়ুর রহমান ঘটনাটি জেনে সাক্ষীদের সাক্ষ্য গ্রহণ ও ঘটনার সত্যতা সাপেক্ষে মৌখালী গ্রামের গিয়াস উদ্দীনের পুত্র আজিমুদ্দীন বাবু (২০) ও আব্দুস সালামের পুত্র আরাফাত হোসেন (১৮) কে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। এ সময় আজিমুদ্দীন বাবু পালিয়ে গেলে পুলিশ বাবুর পিতা গিয়াস উদ্দীন ও আসামি আরাফাত হোসেনকে গ্রেপ্তার করে।

নলতায় বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম ইফতার মাহফিল

আহাদুজ্জামান আহাদ, নলতা : খাঁন বাহাদুর আহছানউল্লাহর (রা:) রওজা প্রাঙ্গণে নলতা আহ্ছানিয়া মিশন আয়োজিত ইফতার মাহফিল বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম ইফতার মাহফিল বলে দাবি করেছেন মিশন কর্তৃপক্ষ। তাদের দাবি পবিত্র মক্কা শরীফ ছাড়া নলতার মত এতো বড় ইফতার মাহফিল বিশ্বে আর কোথাও হয় না। প্রতিদিন এখানে গড়ে ৭ থেকে ৮ হাজার রোজাদার একত্রে বসে ইফতার করছেন।

সূত্র জানায়, সওয়াব হাসিলের জন্য দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ইফতারের উদ্দেশ্যে নলতায় ছুটে আসেন রোজাদাররা। ধনী, গরীব নির্বিশেষে সকল মানুষ ভেদাভেদ ভুলে এক কাতারে বসে ইফতার করেন। ১৯৫০ সাল থেকে শুরু করে প্রতিবছর রমজানে নলতা রওজা শরীফ চত্বরে বিশাল টিনের ছাউনি নির্মাণ করে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে যাচ্ছে মিশন। ইফতার সামগ্রী বিতরণের জন্য রয়েছে প্রায় দুই শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক। ইফতারের তালিকায় রয়েছে ফিরনি, চিড়া, ছোলা ভূনা, সিঙ্গাড়া ও কলা। প্রতিদিন ৮ মন দুধের ফিরনি তৈরি করা হয় এখানে। রোজাদারদের জন্য প্রতিদিন প্রায় ৭ হাজার প্লেটে ইফতার প্রস্তুত করা হয়। এছাড়াও এলাকার প্রায় প্রতিটি ঘরে পৌঁছে দেয়া হয় এই ইফতার। ইফতার বাবদ প্রতিদিন প্রায় এক লক্ষ দশ হাজার টাকা ব্যয় হয়। দেশ বিদেশের ভক্তগণ যৌথভাবে এই ইফতারের অর্থ যোগান দিচ্ছেন। নলতা মাজার শরীফের খাদেম মৌলভী আনছার উদ্দীন নিজেই প্রতিদিন এই ইফতার আয়োজনের তদারকি করেন। ইফতার শেষ হবার পর এই চত্বরেই মাগরিবের নামাজ আদায় করা হয়।

শিশু ও নারী পাচার প্রতিরোধ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট : গতকাল বেলা ১২টায় সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে শিশু ও নারী পাচার প্রতিরোধ বিষয়ক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। স্বদেশ, বাংলাদেশ ভিশন ও ক্রিসেন্টের সহযোগিতায় ওয়ার্ল্ড ভিশনের চাইল্ড সেফটি নেট প্রকল্প এ কর্মশালার আয়োজন করে।

কর্মশালায় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম। বিশেস অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এড. শাহনাজ পারভীন মিলি, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বারী, সদর থানার অফিসার্স ইনচার্জ আসলাম খান ও সংশ্লিষ্ট প্রকল্পের সমন্বয়কারী মিল্টন পাণ্ডে।

এতে মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন প্রথম আলোর স্টাফ রিপোর্টার কল্যাণ ব্যানার্জি, যুগান্তরের সুভাস চৌধুরী, জেলা ইমাম সমিতির সম্পাদক জালালুদ্দিন, জেলা কাজী সমিতির সম্পাদক মোহাম্মদ আলী ও জেলা মন্দির সমিতির সাবেক সভাপতি ধীরু ব্যানার্জি। স্বদেশের নির্বাহী পরিচালক মাধব দত্তের সঞ্চালনায় কর্মশালায় বক্তরা বলেন, অশিক্ষা ও দারিদ্র্য বিমোচন পূর্বক প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতৃত্ব ও সাংবাদিকরা এক হয়ে কাজ করলে নারী ও শিশু পাচার প্রতিরোধ সম্ভব। তবে এ ক্ষেত্রে সীমান্ত এলাকার জনপ্রতিনিধিদের কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে।

পঙ্গু ছাত্রের পাশে সুন্দরবন স্টুডেন্ট সলিডারিটি টিম

শ্যামনগর অফিস : শ্যামনগর উপজেলা সদরের বাদঘাট গ্রামের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র ইয়াছিন আরাফাতের সাহায্যে এগিয়ে এসেছে সুন্দরবন স্টুডেন্ট সলিডারিটি টিম। দশ বছর বয়সী ইয়াছিনের পিতা দরিদ্র ভ্যান চালক হোসেন আলী।

উল্লেখ্য, গত মে মাসে সাতক্ষীরায় যাওয়ার পথে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয় সে। সে সময় কয়েকজন যাত্রী মারা যায়, ভাগ্যক্রমে শিশু ইয়াছিন বেঁচে গেলেও তার একটি পা কেটে বাদ দিতে হয়। অপর পায়ে রড পরাতে হয়।

ইয়াছিনের পিতা জানান, দুর্ঘটনার পরবর্তীতে শ্যামনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসকরা উন্নত চিকিৎসার জন্য ইয়াছিনকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। একজন ভ্যানচালক পিতার পক্ষে উন্নত চিকিৎসার খরচ বহন করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। অসুস্থ সন্তানকে বাড়িতে রেখে তৃতীয় শ্রেণির মেধাবী ছাত্র ইয়াছিনের পিতা-মাতা মানুষের কাছে সাহায্যের জন্য আবেদন করতে থাকে। এ সময় সুন্দরবন স্টুডেন্ট সলিডারিটি টিম আহত ইয়াছিনের পাশে দাঁড়ায়। ওই টিমের সদস্যরা পঙ্গু ও আহত ইয়াছিনের চিকিৎসার টাকা সংগ্রহ করতে রাস্তায় নেমে পড়ে। গত ২ মাস যাবত তাদের সহযোগিতায় ইয়াছিনের চিকিৎসা চলতে থাকে। গতকাল সকাল ১০টায় সুন্দরবন স্টুডেন্ট সলিডারিটি টিমের সদস্যরা নওয়াবেঁকী বাজারে ইয়াছিনের চিকিৎসার জন্য টাকা সংগ্রহ করতে থাকে। এক পর্যায়ে উক্ত টিম ও বারসিকের শাহীন ইসলাম ইয়াছিনের বিষয়টি নিয়ে নওয়াবেঁকী গণমূখী ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক লুৎফর রহমানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি তার অফিসে যাওয়ার কথা বলেন। এ সময় টিমের সদস্যরা ইয়াছিনসহ তার অফিসে যেয়ে চিকিৎসার বিষয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করেন। তিনি যুবকদের এই মানবিক উদ্যোগকে ধন্যবাদ ও উৎসাহ জানানোর পাশাপাশি ইয়াছিনের চিকিৎসার যাবতীয় খরচের ব্যবস্থা করার দায়িত্ব নেন।

 

বাজুয়াডাঙ্গায় তেলাপিয়া চাষ বিষয়ক মাঠ দিবস

সদর  উপজেলার  বাজুয়াডঙ্গা  গ্রামে গত ২৫ জুলাই  উন্নত ব্যবস্থাপনায় পুকুরে তেলাপিয়া চাষের উপর এক কৃষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন চাষী ঝরনা রাণী। শফিকুল ইসলাম ও আব্দুর রাজ্জাক। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

মেধাবী মুখ : নাসরিনের স্বপ্ন ছোঁয়া সাফল্য

কলারোয়া প্রতিনিধি : অত্যন্ত গরীব ঘরের মেয়ে নাসরিন সুলতানা। তার চলার পথে বাধা আসে বার বার। কিন্তু থেমে থাকে নি নাসরিন। সে অবিচল প্রত্যয় ও আশা নিয়ে এগুতে থাকে। সে অদম্য, অসম্ভবকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে গ্রহণ করে। সেটা আর একবার প্রমাণ করলো দরিদ্র ঘরের প্রত্যয়ী এই মেধাবী মুখ নাসরিন। আর্থিক বাধাসহ সব ধরনের প্রতিকূলতা পিছনে ফেলে এসএসসি’র মতো এইচএসসি’র ফলাফলেও নাসরিন সুলতানা অর্জন করলো জিপিএ-৫। চন্দনপুর ইউনাইটেড কলেজে থেকে মানবিক বিভাগে নাসরিন সুলতানা এ সাফল্য লাভ করেছে। সে উপজেলার সীমান্তবর্তী চান্দুড়িয়া গ্রামের মিজানুর রহমানের মেয়ে। নাসরিনরা ২ বোন ও ১ ভাই। তার বড় বোন জেসমিন আকতার কলারোয়া বঙ্গবন্ধু মহিলা কলেজে স্নাতক শ্রেণিতে পড়েন। ছোট ভাই মাসুদ রানা কেসিজি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে। বাবা মিজানুর রহমান একজন নির্মাণ শ্রমিক। তার সামান্য আয়ে সংসার ঠিকমতো চলে না। তার ওপর আবার ৩ ছেলে-মেয়ের পড়াশোনার খরচ। পেরে উঠছেন না তিনি। মা আলেয়া খাতুন জানান, অভাবের সংসারে মেয়ের লেখাপড়ার খরচ জোগানোর সামর্থ তাদের নেই। অপরের সহায়তা ও ধার-দেনাই একমাত্র অবলম্বন। যত দিন যাচ্ছে, বাড়ছে দেনার পরিমাণ। নাসরিনের প্রাইভেট পড়া- এমনকি সব সময় দু’মুঠো খাবারও জুটতো না। লেখাপড়া সব সরঞ্জাম জোগাড় হতো না। তারপরও নিজের আগ্রহ ও অদম্য চেষ্টায় সে গতবার উপজেলার চান্দুড়িয়া কেসিসি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ অর্জন করে। এবারও ধারাবাহিকতা বজায় রেখে চন্দনপুর ইউনাইটেড কলেজ থেকে জিপিএ-৫ অর্জন করলে নাসরিন। নাসরিনের এমন সাফল্যে তার বাবা-মা আনন্দিত হয়েছেন নিঃসন্দেহে। কিন্তু নাসরিনসহ ছেলেমেয়েদের পড়াশোনা চালিয়ে নেওয়ার দুশ্চিন্তায় সে আনন্দ আবার ম্লান হয়ে গেছে। মা আলেয়া খাতুন আরও জানান, বই কেনার টাকা ছিল না বলে বান্ধবীদের কাছ থেকে বই চেয়ে পড়েছে সে। প্রাইভেট পড়ার সামর্থ না থাকলেও ওর স্যারেরা তাকে ব্যাপক সহযোগিতা করেছেন। মা আলেয়া খাতুন তাই কলেজের প্রতিটি শিক্ষকবৃন্দকে কৃতজ্ঞতা জানান। মানবিক বিভাগের ছাত্রী নাসরিনের এ আলোকিত সাফল্যের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে সে জানায়, এ অর্জনের পিছনে ছিল অনেক ত্যাগ, পরিশ্রম ও না পাওয়ার ব্যাথা। জিপিএ-৫ পাওয়া এ মেধাবী ভবিষ্যতে একজন উচ্চ পদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করে। এমন সম্মানিত একটি অবস্থান চায়, যেখানে থেকে বাবা-মাসহ সবার মুখে হাসি ফোটাতে পারবে। নাসরিন সুলতানা সহপাঠীসহ চন্দনপুর ইউনাইটেড কলেজের অধ্যক্ষ ও সম্মানিত সকল শিক্ষক মন্ডলীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তার জীবনের সার্বিক সাফল্যের জন্য সকলের আশীর্বাদ কামনা করেছে।

 

মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ড. দিলারা বেগমকে কলেজ সাংবাদিক ইউনিয়নের ফুলেল শুভেচ্ছা

গতকাল সকাল ১১টায় কলেজ সাংবাদিক ইউনিয়নের নব নিবার্চিত নেতৃবৃন্দ সাতক্ষীরা সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. দিলারা বেগম ও উপাধ্যক্ষ এসএম আনোয়ারুজ্জামানকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন কলেজ সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি, দৈনিক পত্রদূত’র শহর প্রতিনিধি ও সাতক্ষীরার খবরের স্টাফ রিপোর্টার আব্দুস সামাদ, সহ-সভাপতি দৈনিক কাফেলা শহর প্রতিনিধি সাকিবুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক কাফেলা’র কলেজ প্রতিনিধি আসাদুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক ও দৈনিক কাফেলার মিজানুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক ও দৈনিক কালের চিত্র’র শহর প্রতিনিধি শাহানা পারভীন, অর্থ সম্পাদক দৈনিক পত্রদূতের আসাদজ্জামান, সাহিত্য ও ক্রীড়া সম্পাদক দৈনিক কাফেলার আব্দুর রহমান, প্রচার সম্পাদক ও সাতক্ষীরার খবরের শহর প্রতিনিধি শেখ আসিফ মাহমুদ মমিন এবং নিবার্হী সদস্য দৈনিক কালের চিত্রের খাজরা ইউনিয়ন প্রতিনিধি কৃষ্ণ মোহন ব্যানার্জী, সাতক্ষীরার খবরের ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি নাহিদ হাসান লিটু, সাতক্ষীরার খবরের প্রতিনিধি পিকু বরকতউল্লাহ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

খুলনায় উপকূলীয় জনগোষ্ঠীর টেকসই জীবিকায়নে গণমাধ্যমের সাথে মতবিনিময়

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনা প্রেসক্লাব এবং বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এডিডি ইন্টারন্যাশনালের উদ্যোগে গত কাল বৃহস্পতিবার বিকেলে খুলনা প্রেসক্লাবে ‘উপকূলীয় জনগোষ্ঠীর টেকসই জীবিকায়নে মিডিয়াকর্মীদের ভূমিকা’ শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি ফেরদৌসী আলী। সভাপতিত্ব করেন রামপাল ইউপি প্রতিব›ধী সংগঠনের সভাপতি বিনয় কৃষ্ণ বিশ্বাস।   বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এস এম হাবিব, ইইউ-ক্যাফোড এর প্রকল্প কর্মকর্তা জোবায়দুল আলম মিন্টু এবং প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ওয়াদুদুর রহমান পান্না।  আলোচনায় অংশ নেন প্রথম আলোর শেখ আবু হাসান, যুগান্তর ও বিটিভির মকবুল হোসেন মিন্টু, ইত্তেফাকের এনামুল হক, মানবজমিনের রাশিদুল ইসলাম, সকালের খবরের মলি¬ক সুধাংশু প্রমুখ।আলোচকরা বলেন, উপকূলীয় অঞ্চলের জনগোষ্ঠী প্রতিনিয়ত জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সৃষ্ট দুর্যোগ মোকাবেলা করে আসছে।  সরকার জাতীয় বাজেটে এসকল দুর্যোগ মোকাবেলার জন্য পর্যাপ্ত আপদকালীন হিসেবে বাজেটে বরাদ্দ রেখে চলেছে।  এর পাশাপাশি উপকূলীয় অঞ্চলে আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণ, উচুঁ বেড়ী বাঁধ নির্মাণ, উপকূলীয় সবুজ বেষ্টনী গড়ে তোলাসহ লবণসহিষ্ণু কৃষিপণ্য উদ্ভাবনের ওপর জোর দেয়া প্রয়োজন।  পাশাপাশি জগগোষ্ঠীকে বিকল্প আয়ের প্রতি আগ্রহী করে গড়ে তোলার ওপর গুরুত্ব দিতে হবে।ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ক্যাফোড এর অর্থায়নে পরিচালিত আইএফএলএস প্রকল্পের উদ্যোগে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলার অংশ হিসেবে এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।