ভোমরা বন্দরের পার্কি ইয়ার্ড নির্মাণ ঠিকাদার ও নির্বাহী প্রকৌশলীকে বরখাস্তের নির্দেশ : শুল্ক স্টেশনগুলো পূর্ণাঙ্গ বন্দরে উন্নীত করার কাজ অব্যাহত রয়েছে : নৌপরিবহনমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিনিধি : নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, বর্তমান সরকারের সাড়ে তিন বছরের শাসনামলে পাঁচটি শুল্ক স্টেশনকে পূর্ণাঙ্গ বন্দরে রূপান্তর করা হয়েছে। ১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধের সময় দেশের বন্ধ হয়ে যাওয়া শুল্ক স্টেশনগুলো স্থলবন্দরে উন্নীত করার কাজ অব্যাহত রয়েছে। নদী ও খাল খননে ১১ হাজার কোটি টাকার মহাপরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। নদীমাতৃক এদেশের মানুষের নদী ছাড়া পরিবহন খাতে সাশ্রয়ী কোন পথ নেই। আগামী এক যুগের মধ্যে ভোমরা বন্দরকে বেনাপোল বন্দরের সমপোযোগী করে তোলা হবে।

কোলকাতা থেকে ভোমরা বন্দরের দূরত্ব কম ও পদ্মা সেতু নির্মাণ হলে ঢাকার সঙ্গে ভোমরার দূরত্ব কমে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আগামীতে দেশের যে কোন বন্দরের চেয়ে ভোমরা শ্রেষ্ঠ বন্দরে পরিণত হবে।

গতকাল শনিবার সকাল ১১টায় ভোমরা স্থলবন্দর পরিদর্শনকালে রিজু এন্টারপ্রাইজের দোতলার ছাদে শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে আয়োজিত এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ভোমরা স্থলবন্দর শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি এবাদুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদ প্রশাসক মুনছুর আহমেদ, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক  ও  ভোমরা সিএণ্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি আশরাফুজ্জামান আশু, জেলা মটর শ্রমিক ই্উনিয়নের সভাপতি রবিউল ইসলাম রবি, ভোমরা স্থলবন্দর শ্রমকি ফেডারেশনের কার্যকরী পরিষদের সদস্য ডা. মুনছুর আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ও ভোমরা ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

যারা পদ্মা সেতু নির্মাণ নিয়ে দুর্নীতির কথা বলছেন তাদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, বিএনপি নেতা মওদুদ আহম্মেদ ১৯৭০ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ব্যক্তিগত সহকারি ছিলেন। ১৯৭১ সালে তিনি লণ্ডনে বসে মুক্তিযুদ্ধের তহবিল গঠনে তোলা টাকা আত্মসাত করেছিলেন। এজন্য দেশে ফেরার পর বঙ্গবন্ধু তাকে জেলে পাঠিয়েছিলেন। তার শ্বশুর পল্লী কবি জসীমউদ্দিনের আহবানে বঙ্গবন্ধুই মওদুদ আহম্মেদকে জেল থেকে মুক্তির ব্যবস্থা করেন। রাষ্ট্রপতি আব্দুস সাত্তারের সময়ে দুর্নীতির দায়ে মওদুদ আহম্মেদ আবারো গ্রেপ্তার হলে তিনি হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। হুসাইন মোহাম্মদের শাসনামলে উপরাষ্ট্রপতি থাকাকালীন দুর্নীতির দায়ে তিনি পদত্যাগ করে বিএনপিতে যোগদান করেন। মানি লণ্ডারিং মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর ছয় বছর জেল হয়েছে। দুর্নীতির দায়ে তারেক রহমানের সাজা অবশ্যম্ভাবী। সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী আকবর আলীর সময়ে দুর্নীতির অভিযোগে ডেনমার্ক অনুদানের টাকা ফেরৎ নিয়ে গিয়েছিল। তাই যাদের সময়ে দুর্নীতির পাহাড় গড়া হয়েছে তাদের মুখে বরাদ্দ পাওয়ার আগেই পদ্মা সেতু নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ মানায় না। তদন্ত কার্যক্রমকে প্রভাবমুক্ত রাখতে মন্ত্রী আবুল হোসেন পদত্যাগ করেছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, টাকা পাওয়ার আগে দুর্নীতির প্রশ্ন ওঠে না।

মন্ত্রী বলেন, ২০০১ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে দুর্নীতির দায়ে বিশ্বব্যাংক সাতটি প্রকল্প বাতিল করেছিল। এরপর থেকে এখনো পর্যন্ত বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশে যোগাযোগ খাতে কোন অনুদান দেয়নি। পদ্মা সেতুর দুর্নীতি নিয়ে চুক্তি বাতিল করার কথা যারা বলছে তাদের দুর্নীতির কারণে যোগাযোগ খাতে বিশ্বব্যাংক কোন অর্থায়ন করেনি। বর্তমান সরকার পদ্মা সেতু নিজেদের অর্থায়নে করতে চায় এই মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, দেশের বেসরকারি পর্যায় থেকে এ ব্যাপারে ব্যাপক অর্থায়নের সাড়া পাওয়া গেছে।

তিনি আরও বলেন, ৩০ লাখ শহীদের রক্ত ও দু’ লাখ মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি। তাদের আত্মত্যাগ ও ইজ্জাতের মূল্য দিতে বাংলাদেশের মাটিতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবেই হবে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাধাগ্রস্ত করতে বিরোধীদল রাজনীতির নামে গাড়ি পোড়ানো এমনকি চালককে পুড়িয়ে হত্যা করছে। তাই জনগণকে সাথে নিয়ে এ ধরনের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা সৃষ্টিকারীদের প্রতিহত করা হবে।

মন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশেন ২৪ হাজার কিলোমিটার নদীপথের মধ্যে তিন হাজার ৬০০ কিলোমিটারের অস্তিত্ব রয়েছে। বঙ্গবন্ধু নদী ও খাল খনন করে জোয়ার আনার জন্য প্রথমে সাতটি ড্রেজার কিনেছিলেন। এরপর তিনটি ড্রেজার কেনা হয়েছে। বর্তমানে আরো তিনটি ড্রেজার কেনা হয়েছে। বেসরকারিভাবে ১৭টি ড্রেজার মেশিন নদী খননে ব্যবহার করা হচ্ছে। আরিচাসহ কয়েকটি নদীতে ফেরী পারাবারের সমস্যা নিয়ে মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর আমলে আটটি, জিয়াউর রহমানের আমলে দু’টি, এরশাদের আমলে নয়টি ও শেখ হাসিনা বর্তমানে দু’টি ফেরী কিনেছিলেন। চারদলীয় জোটের পাঁচ বছরসহ বিগত ১০ বছরে কোন ফেরী তৈরি করা হয়নি। বর্তমানে আরো পাঁচটি ফেরী নির্মাণ করা হয়েছে। নয়টি ফেরী নির্মাণাধীন রয়েছে। কয়েক বছর আরাফাত রহমান কোকোর লাইসেন্সপ্রাপ্ত দু’টি ফেরী পাঁচবার দুর্ঘটনা কবলিত হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, কোকো-৪ ডুবে যাওয়ায় ৮৫ জনের সলিল সমাধি হয়েছিল। তিনি ২৫০ মেট্রিক টন ওজনের মালবাহী দু’টি জাহাজ কোরিয়াতে নির্মাণ করা হচ্ছে বলে উল্লেখ করেন। চট্টগ্রাম বন্দরে শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির পাশাপাশি তাদের সকল সুবিধার বিষয়গুলো বিবেচনা করায় অসন্তোষ কমেছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

মন্ত্রী ব্যবসায়ী ও জনসাধারণের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারকে ভোমরায় একটি পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপনের নির্দেশ দেন। এ ছাড়া তিনি জমি অধিগ্রহণের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর সদস্যদের যোগত্য অনুযায়ী বন্দরে চাকুরি দেওয়ার প্রতিশ্র“তিসহ বন্দরে ট্রাক টার্মিনাল, অতিরিক্ত গুদাম নির্মাণ, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, শ্রমিকদের বিশ্রামাগার নির্মাণের কাজ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করা হবে বলে জানান। এ ছাড়া শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি ও ভোমরা বন্দর দিয়ে যাতে সকল শ্রেণির পণ্য আমাদানি রপ্তানি করা যায় তা গুরুত্ব সহকারে দেখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

সাবেক সাংসদ ও জেলা পরিষদের প্রশাসক মুনসুর আহম্মদ বলেন, এ বন্দরকে নিয়ে বহুবার চক্রান্ত হয়েছে। কিন্তু ঐক্যবদ্ধ থাকার কারণে তাদের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। অধিগ্রহণকৃত অর্পিত সম্পত্তির মালিকদের ক্ষতিপূরণ ও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চাকুরি দিতে হবে।

সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম বলেন, বন্দর ব্যবহারকারীদের স্বার্থে ভোমরা-সাতক্ষীরা সড়কে দু’বছর আগে পাঁচ কোটি ও গত বছর আরো দু’কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ১৯৯৭ সালে শেখ হাসিনা ভোমরাকে পূর্ণাঙ্গ বন্দরে রূপান্তরের ঘোষণা দিলেও চারদলীয় জোট ক্ষমতায় আসার কারণে তা বাধাগ্রস্ত হয়। তিনি এ বন্দরকে পূর্ণাঙ্গ বন্দরে রূপান্তরের জন্য মন্ত্রীর আরো বেশী সহযোগিতা আহবান জানান।

জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বলেন, ওয়ার হাউজ নির্মাণের জন্য ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকদের পরিবারের সদস্যদের যোগ্যতার ভিত্তিতে চ্াকুরিতে অগ্রাধিকার দিতে হবে। অত্র এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, শ্রমিকদের কল্যাণ তহবিল থেকে একজন শ্রমিকের মৃত্যুর জন্য বরাদ্দ পাঁচ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে এক লাখ টাকা করতে হবে।

মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রবিউল ইসলাম জানান, সাতক্ষীরা থেকে চিংড়ি বিদেশে রপ্তানি করে কোটি কোটি টাকার বিদেশী মুদ্রা অর্জিত হয়। অথচ সাতক্ষীরার কোন উন্নয়ন হয় না। গত সাড়ে তিন বছরে মেডিকেল কলেজ নির্মাণ, ভোমরা বন্দরের উন্নয়নসহ বিভিন্ন কাজের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভোমরার সড়ক ও ওয়ার হাউজ নির্মাণের কাজ স্বচ্ছতার সঙ্গে করতে হবে। শ্রমিক ও ব্যবসায়ীদের স্বার্থে ভোমরায় ট্রাক টার্মিনাল গড়ে তুলতে হবে।

ভোমরা কাস্টমস এণ্ড ক্লিয়ারিং এজেন্ট এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি ও জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান আশু বলেন, একটি মহল চারটি মামলা করে ওয়ার হাউজ নির্মাণের জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজ বাধাগ্রস্ত করতে চেয়েছিল। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে মহাজোটের নেতা কর্মীরা ভোমরা বন্দরে নির্যাতিত হয়েছিল। সম্প্রতি এক বিএনপি নেতা অস্ত্র ঠেকিয়ে তার কাছ থেকে টাকা ছিনতাই করেছে। তিনি ভোমরা বন্দরে ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তার স্বার্থে পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন, শ্রমিকদের জন্য বিশ্রামাগার, শৌচাগার, জরাজীর্ণ ভোমরা শুল্ক অফিসের নতুন ভবন নির্মাণ, আরো দু’টি গুদাম ও স্বাস্থ্যকেন্দ্র নির্মাণের দাবি জানান। তিনি ভোমরা বন্দর যাতে ব্যক্তি মালিকানায় না যায় তার জন্য মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

ভোমরা বন্দর শ্রমিক ফেডারেশনের কার্যকরী কমিটির সদস্য মুনসুর আহম্মেদ জানান, কিছু লোক ভোমরা বন্দরের উন্নয়নে চক্রান্ত করছে।

এর আগে মন্ত্রী ২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন ভোমরা বন্দরের অবকাঠামো উন্নয়নের মধ্যে চার কোটি টাকা ব্যয়ে ওয়ার হাউজের পার্কি ইয়ার্ডের ইটের সোলিং এর কাজের গুনগত মান দেখে চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেন। এসময় তিনি তাৎক্ষণিকভাবে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ ও দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী আলী হোসেনকে বরখাস্তের নির্দেশ দেন। তার সঙ্গে ছিলেন নৌ পরিবহন সচিব আব্দুল মান্নান হাওলাদার। পরে তিনি ভোমরা সিএণ্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশন মিলনায়তনে এক মতবিনিময় সভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন।

 

পুলিশের সফল অভিযান : পিস্তল, বোমা, ফেনসিডিল, এ্যাম্বুলেন্সসহ ১ জন গ্রেপ্তার

এম জিললুর রহমান : পুলিশের দুই দফের অভিযানে ১২৫ বোতল ফেনসিডিল, অত্যাধুনিক পিস্তল ১০ রাউণ্ড গুলিসহ হৃদয় নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এসময় বাজাজ সিটি হ্যাণ্ড্রেড একটি মোটর সাইকেল উদ্ধার করা হয়। একই সময়ে ফেনসিডিল ভর্তি একটি এ্যাম্বুলেন্স মোড় ঘুরতে যেয়ে পুকুরের মধ্যে পড়ে যায়। রাতে মাইক্রোবাস উদ্ধারের জন্য পুলিশ জেটিকল ফিট করে পুকুর থেকে এ্যাম্বুলেন্স উদ্ধারের চেষ্টা করছিল। রাত ১২টার পর পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান, সহকারি পুলিশ সুপার মোস্তফা কামাল, ওসি আসলাম খান, ওসি তদন্ত আমিনুল ইসলামসহ এক ডজন এসআই ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত ৯টার দিকে ভোমরা এলাকা থেকে শহরের সুন্দরবন ক্লিনিকের এ্যাম্বুলেন্স নিয়ে চালক ফারুক হোসেন শহরের আসার পথে খানপুর পশ্চিমপাড়ার রাস্তার ব্যাক ঘুরতে যেয়ে সোজা পুকুরের মধ্যে পড়ে যায়। এসময় স্থানীয় জনতা এসে এ্যাম্বুলেন্সের মধ্যে থাকা বিপুল পরিমান ফেনসিডিল থেকে প্রায় ৫০০ বোতল এলাকার লোকজন লুট করে নেয়। স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দিলে সদর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পুকুর থেকে এ্যাম্বুলেন্স উদ্ধারের চেষ্টা করে। ঠিক সেই মুহুর্তে অপর একটি মোটর সাইকেলে এক যুবক ফেনসিডিল নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করলে সিপাহী আজিমের হাতে কামড় দিয়ে পালিয়ে যায়। ওই যুবকের কাছে থাকা ৭০ বোতল ফেনসিডিল ও পিস্তলের ৪ রাউণ্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। তার কাছ থেকে পরে বোমা ও পিস্তল উদ্ধার করা হয়। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অভিযান অব্যহত ছিল।

ইদূর বিড়াল এর খেলা

আব্দুল জব্বার, তালা : তালা উপ- শহরের অদূরে অবস্থিত মঝিয়াড়া নামক স্থানে অতি বৃষ্টিতে পরম শত্র“কেউ কাছে টেনে নিয়ে খেলতে দেখাগেছে। বিস্ময়ের চোখে চেয়ে দেখছে ঘটনাটি স্থানীয় লোকজন। ঘটনাটি দেখে অবিশ্বাস্য মনে হলেও বিষয়টি ছিল নজর কাড়া একটি ঘটনা। এ ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শী উৎপল কুমার দাস জানায়, প্রচন্ড বৃষ্টিতে হটাৎ একটি ইদুর গর্তের ভিতর থেকে বেরিয়ে পার্শ্ববর্তী একটি দোকানে প্রবেশ করে, এ ঘটনা বিড়াল টি লক্ষ্য করে তার কাছে এগিয়ে এসে তাকে না ধরে বরং তার সঙ্গে খেলতে শুরু করে।

উল্লেখ্য জন্মের সূচনা লগ্ন থেকে ইদূর বিড়াল যেখানে একে অপরের চরম শত্র“ আর আজ সেখানে ইদূরকে বিড়াল একে অপারের বন্ধ হিসাবে প্রাধান্য দিল। এটি একটি অবিস্মরনিয় ঘটনা।

আজ বিশ্ব বাঘ দিবস

রনজি বর্মন, সুন্দরবনাঞ্চল শ্যামনগর : জনসাধারণের মধ্যে বাঘ সংরক্ষণ ও সুন্দরবন রক্ষার বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগ  সাতক্ষীরা রেঞ্জের আয়োজনে আজ ২৯ জুলাই বিশ্ব বাঘ দিবস উপলক্ষ্যে মুন্সিগঞ্জে এক পদযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

বন বিভাগ সাতক্ষীরা রেঞ্জ সূত্রে প্রকাশ বিশ্ব বাঘ দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জেলা প্রশাসক,সাতক্ষীরা,ড. মুঃ আনোয়ার হোসেন।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন শ্যামনগর উপজেলা চেয়ারম্যান মাওঃ আব্দুল বারী,উপ বন সংরক্ষক,বন সংরক্ষকের দপ্তর,খুলনা মারুফা আক্তার,শ্যামনগর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শিল্পী রানী মৃধা ও শ্যামনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আমীর তৈমুর ইলী।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ দেীলতুজ্জামান খাঁন।সুশিলন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হবে।

এ ছাড়া ‘বাংলার বাঘ, বাংলায় বেঁচে থাক’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে ওয়াইল্ডলাইফ ট্রাস্ট অব বাংলাদেশ (ডবলুটিবি) এর সুন্দরবন টাইগার প্রজেক্ট আজ বিশ্ব বাঘ দিবস উপলক্ষ্যে সুন্দরবনের চারটি রেঞ্জে বিশেষ কর্মসূচীর আয়োজন করছে। এই কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে র‌্যালী, বাঘ দিবসের বিশেষ আলোচনা সভা ও ইফতার পার্টি। সাতক্ষীরা রেঞ্জের মুন্সীগঞ্জ, চাঁদপাই রেঞ্জের চিলা, শরণখোলা রেঞ্জের রায়েন্দা এবং খুলনা রেঞ্জের কয়রা- তে উক্ত কর্মসূচীগুলো পালন করা হবে। অনুষ্ঠানে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং বন বিভাগের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত থাকবেন। দুপুর ২টা থেকে র‌্যালী শুরু হয়ে বিকেল ৩টায় শেষ হবে। র‌্যালী শেষে থাকছে আলোচনা অনুষ্ঠান ও ইফতার পার্টি এবং এটি চলবে ৫:৩০ টা পর্যন্ত।

 

মেধাবী ২০ শিক্ষার্থীকে আর্থিক সহায়তা প্রদান

নিজস্ব প্রতিনিধি : গরীব মেধাবী শিক্ষার্থীদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশে জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশন ২০ জন জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীকে ৫ হাজার টাকা করে প্রদান করেছে।

শনিবার সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে এ উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মূকেশ চন্দ্র বিশ্বাস। বিশেষ অতিথি ছিলেন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, এমএফপি’র পরিচালক মোঃ ওয়াহিদুজ্জামান, শিক্ষক ফিরোজা খাতুন, অভিভাবক সুব্রত রায়, খালেদুর রহমান, শিক্ষার্থী নাবিয়া আফরিন ও নাদিম হোসেনসহ অন্যরা।

প্রধান অতিথি মূকেশ চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, শিক্ষার্থীদের সুপ্ত প্রতিভার বিকাশে শিক্ষক-অভিভাবক ভীতি দূর করে প্রীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করবেন। সন্তান যেন মাদক স্পর্শ করতে না পারে সে জন্য অভিভাবককে চোখ-কান খোলা রেখে সতর্ক থাকতে হবে। বিশেষ অতিথি আবুল কালাম আজাদ বলেন, মেধার বিকাশ আর প্রতিভার পতন রোধে শিক্ষার্থীদের ভালো কাজের প্রশংসা করে উৎসাহিত করতে হবে। তাদেরকে পুরস্কৃত করতে হবে। মাদকাসক্তদের সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকতে হবে। ধনী-গরীব, ধর্ম-বর্ণ-গোত্র-নির্বিশেষে সকল শিক্ষার্থীর মেধা নিরপেক্ষভাবে যাচাই করে উপযুক্তভাবে মূল্যায়ন করতে হবে। শিক্ষার্থীদের আলোর পথে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব সকলের। এমএফপির পরিচালক মোঃ ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশন গরীব মেধাবী শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন ছোঁয়া সাফল্যে পৌছে দিতে বদ্ধ পরিকর। সংস্থাটি এসএসসি পরীক্ষার পর উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রেও আর্থিক সহযোগিতা করে থাকে। শিক্ষার্থীর যাবতীয় শিক্ষা ব্যয় বহন করে সংস্থাটি।

অভিভাবক খালেদুর রহমান বলেন, মাদকের কারণে নষ্ট হচ্ছে শত শত মেধাবী ছাত্রের জীবন। হতাশা, দারিদ্র্যসহ নানা কারণে করে ঝরে যাচ্ছে মেধাবী মুখ। কঠোর শাসন না করে পরম মমতায় শিক্ষার্থীদের গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি। শিক্ষার্থী নাদিম হোসেন বলেন, ভয়ভীতি মুক্ত পরিবেশ ও আনন্দ উল্লাসের মধ্যে আমরা শিখতে চাই। ভয়ভীতি কোমলমতি শিক্ষার্থীর মনে আতংক সৃষ্টি করে। সভাপতির বক্তব্যে সংস্থার জোনাল ম্যানেজার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ২০১২ সালের মধ্যে দেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করার লক্ষ্যে শিক্ষাকে অধিক গুরুত্ব দিতে হবে। শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে হবে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে। ক্ষুধা দারিদ্র্য ও সুখী সমৃদ্ধশালী বাংলা দেশ গড়তে হলে মেধাবীদের খুঁজে বের করতে হবে। প্রতিভার বিকাশ ঘটাতে হবে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, এরিয়া ম্যানেজার সুনীল সরকার। জয়নাল আবেদীন, শাখা ব্যবস্থাপক শওকত আলী ও শাহাদাৎ হোসেনসহ সুধিজন।

 

জেলা ভূমি কমিটির মতবিনিময় সভায় বক্তারা: ভূমিহীনদের অধিকার আদায়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে

ডেস্ক রিপোর্ট : সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব মিলানায়তনে গতকাল বেলা ১১টায় ‘শহীদ জায়েদার আত্মত্যাগ, সাতক্ষীরার খাসজমির লড়াই ও বর্তমান প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেসরকারি সংস্থা উত্তরণ ও মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় জেলা ভূমি কমিটি এ সভার আয়োজন করে।

সভায় বক্তারা বলেছেন, অতীতের ন্যায় বর্তমানেও ভূমিদস্যুরা অপতৎপরতা চালাচ্ছে। ভূমিদস্যুদের তালিকা প্রস্তুত ও বিতরণ যোগ্য প্রকৃত খাসজমি চিহ্নিত করে ভূমিহীনদের অধিকার আদায়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। বক্তরা আধুনিক সাতক্ষীরার রুপকার শহীদ স ম আলাউদ্দিন, প্রখ্যাত কৃষক নেতা সাইফুল¬াহ লস্কার ও ভূমিহীন নেত্রী জায়েদার খুনিরা একই সূত্রে গাথা উল্লে¬খ করে আরও বলেন, আজও সেইসব ভূমিদস্যুদের বিচার হয় নি। সে সময় সাতক্ষীরাবাসী যে আন্দেলন গড়ে তুলেছিল, ভূমিহীন সমিতির নামে চাঁদাবাজির কারণে তা অনেকটা ম্ল¬ান হতে বসেছে। ভূমিহীন সমিতি নিয়ে বিতর্ক উত্তরণ পূর্বক খাস জমি প্রকৃত ভূমিহীনদের মধ্যে বিতরণ করতে প্রশাসনকে বাধ্য করতে হবে। এতে বক্তরা ভূমিহীনদের মধ্যে খাসজমি বিতরণ সংক্রান্ত কমিটিতে ভূমিদস্যুদের অন্তর্ভুক্ত করার চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন। সভায় জেলা ভূমি কমিটির আহবায়ক এড. আব্দুর রহিমের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখের জেলা ভূমিহীন সমিতির উপদেষ্টা কাজী রিয়াজ, জেলা ভূমি কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, জেলা ভূমিহীন সমিতির সভাপতি আবুল বায়ের, জেলা ওয়ার্কাস পার্টির সম্পাদক এড. মুস্তফা লুৎফুল¬াহ, মীর জিলল¬ুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন সাংবাদিক কল্যাণ ব্যানাজি, আনিসুর রহিম, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বারী, এটিএন বাংলার এম কামরুজ্জামান, জেলা সিবিবির সম্পাদক আবুল হোসেন, অধ্যক্ষ আশেক-ই-এলাহী, আব্দুল ওহাব, ইলা দেবী, আলী নূর খান বাবলু প্রমুখ। সভায় মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন এড. আব্দুর রহিম।

দৃষ্টিপাত’র আশাশুনি প্রতিনিধির বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ, পত্রিকা বর্জনের ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিনিধি : দৈনিক দৃষ্টিপাতের আশাশুনি উপজেলা প্রতিনিধি জিএম আল-ফারুকের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও মিথ্যা সংবাদ পরিবেশনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় দৃষ্টিপাত বর্জন, সাংবাদিক ফারুককে অবাঞ্ছিত ঘোষণাসহ তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়ে সংশ্লিষ্ট পত্রিকাসহ সাতক্ষীরা থেকে প্রকাশিক সকল পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক বরাবর আবেদনের অনুলিপি প্রেরণ করা হয়েছে।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, দৈনিক দৃষ্টিপাত’র আশাশুনি উপজেলা প্রতিনিধি জিএম আল-ফারুক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বা ব্যক্তির নিকট চাঁদাবাজি করে আসছেন। এরই ধারাবাহিকতায় তিনি দীর্ঘদিন ধরে আশাশুনি সাব-রেজিস্ট্রি অফিস ও তৎকালীন দলিল লেখক সমিতি থেকে মাসিক মাসোয়ারা নিয়ে আসছিলেন। কিন্তু গত মাসে আশাশুনি সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে প্রধান অফিস সহকারি হিসেবে বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মাওলা বাচ্চু যোগদান করায় তার মাসোয়ারা বন্ধ হয়ে যায়। গোলাম মাওলা ইতোপূর্বেও আশাশুনিতে সুনামের সাথে চাকরী করে গেছেন। সে সময় তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ ছিল না।

সূত্র জানায়, সাংবাদিক ফারুক গোলাম মাওলার কাছে আশাশুনি প্রেসক্লাবের সভাপতি/সম্পাদকের নামে ৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন। তিনি টাকা দিতে অস্বীকার করায় পরিকল্পিতভাবে একটি কাল্পনিক কাহিনী তৈরী করে গত ২৫ জুলাই দৈনিক দৃষ্টিপাতে গোলাম মাওলা বাচ্চুসহ রমজান আলী ও রমেন বৈদ্যকে জড়িয়ে একটি মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চেয়েছেন। উল্লেখ্য, সাংবাদিক ফারুক বিভিন্ন পত্রিকায় সাংবাদিক হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার জন্য ইতোপূর্বে বিভিন্ন ব্যক্তির নিকট থেকে ২/৩ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এমনকি নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকে জানিয়েছেন, দৈনিক দৃষ্টিপাতের বিভিন্ন ইউনিয়ন প্রতিনিধি নিয়োগেও ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে অফিসের নিম্ন পদস্থ কর্মচারীদের পকেট ভারী করে টাকা ভাগাভাগি করা করা হয়েছে। তার ন্যাক্কারজনক কার্যকলাপের জন্য তাকে আশাশুনিতে অবাঞ্ছিত ঘোষণা, চাঁদাবাজি ও মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করায় তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে দৈনিক দৃষ্টিপাত’র প্রকাশনা বন্ধ এবং পত্রিকা বর্জন করার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। আশাশুনি উপজেলা দলিল লেখক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদকসহ দলিল লেখকবৃন্দ এ অভিযোগ করেছেন।

 

বর্তমানে দেশের মানুষ ভাল নেই: হাবিবুল ইসলাম হাবিব

তালা প্রতিনিধি : কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সহ-শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা বিএনপি’র সভাপতি হাবিবুল ইসলাম হাবিব বলেছেন, ঘরে ঘরে চাকুরী দেবে, চাউলের দাম কমাবে, সারের দাম কমাবে বলে দফায় দফায় জ্বালানী ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোয় বর্তমানে সরকারের আমলে দেশের মানুষ ভাল নেই। কারণ নির্বাচনের আগে যে ওয়াদা করেছিলো, তা পূরণ করতে পারেনি। এখনি যদি নির্বাচন হয়, তাহলে বেগম খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী হবে। আগামী নির্বাচন আওয়ামী লীগের অধীনে নয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হতে হবে অবশ্যই! গতকাল শনিবার বিকালে তালার খলিলনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। খলিলনগর ইউনিয়নের বিএনপি’র সভাপতি মাস্টার শহিদুল্লাহর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন তালা উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি মৃনাল কান্তি রায়, সাধারণ সম্পাদক উপাধাক্ষ্য শফিকুল ইসলাম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শেখ জিল্লুর রহমান, যুবদল সভাপতি হাফিজুল রহমান, সাধারণ সম্পাদক স ম ইয়াছিন উল্লাহ, স্বেচ্ছাসেবক আহবায়ক মীর্জা আতিয়ার রহমান, ছাত্রদল আহবায়ক সাইদুর রহমান, স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব রফিকুল ইসলাম, বিএনপি’র নেতা মাস্টার শাহাদাৎ হোসেন, প্রভাষক মশারফ হোসেন, লোকমান, আজিজুর রহমান, নূরূল ইসলাম, আছিরুদ্দীন, মোসলেম উদ্দীন, রেজাউল ইসলাম প্রমুখ।

 

মামলা নিষ্পত্তি হওয়ায় অস্ত্র হস্তান্তর

ডেস্ক রিপোর্ট : বিভিন্ন আদালতে বিচারাধীন মাদক ও অস্ত্র মামলা নিষ্পত্তি হওয়ায় মামলার আলামত হিসেবে সংরক্ষিত পাঁচ হাজার ৪৫১ বোতল ফেনসিডিল ধ্বংস করা হয়েছে। এছাড়া পাঁচটি শুর্টারগান, দুটি রিভলবর, দুটি বন্দুক, তিনটি পাইপগান ও ১৪ রাউন্ড তাজা গুলি অস্ত্রাগারে জমা দেয়ে হয়েছে।

কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক রতন শেখ জানান, ২০০৩ থেকে ২০০৭ সালের মধ্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের হাতে আটক হওয়া পাঁচ হাজার ৪৫১ বোতল ফেনসিডিল শনিবার বেলা ১২ টায় কোর্ট চত্বরে বুলড্রেজার দিয়ে ধ্বংস করা হয়। এছাড়া একই সময়ে জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে উদ্ধার হওয়া অবৈধ অস্ত্রের মামলা নিষ্পত্তি হওয়ায় আদালতের বিচারক জেলার অস্ত্রাগারে অস্ত্রগুলো জমা দেয়। ফেনসিডিল ধ্বংস ও অস্ত্র হস্তান্তরের সময় উপস্থিত ছিলেন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মাসুম, ম্যাজিট্রেট মিল্টন হোসেন ও ইসরাইল হোসেন।

 

শ্যামনগরে নিরাপদ সড়কের দাবিতে মানবন্ধন

শ্যামনগর অফিস : শ্যামনগরে মর্মান্তিকভাবে গৃহবধূ কনিকা রানী নিহত হওয়ার পর নিরাপদ সড়কের দাবিত মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।  গতকাল সকাল ১০টায় শ্যামনগর চৌরাস্তায় শ্যামনগরবাসীর উদ্যোগে ঐ মানবন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানবন্ধন থেকে শ্যামনগর যাত্রী ছাউনি হতে মটর সাইকেল স্ট্যান্ড সরিয়ে নেওয়ার পাশাপাশি সুন্দরবন সিনেমা হল, নকিপুার মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, হায়বাদপুর এবং মহসীন কলেজ এলাকায় চারটি স্পিড ব্রেকার নির্মাণের দাবি জানানো হয়।

এদিকে মানববন্ধন শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন আল ইমরান, আঃ আলীম, ফারুক হোসেন মিলন, ডা. আলী আশারাফ, ফারুক হোসেন, বারসিকের কর্মকর্তা শাহিন ইসলাম, ইউপি সদস্য শফিকুল, সিরাজুল ইসলাম বাবু, আব্দুল্লাহ আল মামুন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, শুক্রবার সকাল সাতটায় শ্যামনগর পরিবহন কাউন্টারের সামনের রাস্তার উপর ট্রাকের চাকায় পিষ্ঠ হয়ে উপজেলার ধুমঘাট পল্লীর গৃহবধূ দেবদাস গাইনের স্ত্রী কনিকা রানীর করুণ মৃত্যু হয়।

 

গরু রাখাল আলতাফের লাশ ফেরত দিয়েছে বিএসএফ

কলারোয়া প্রতিনিধি : কলারোয়া সীমান্তের বিপরীতে বিএসএফ’র গুলিতে নিহত বাংলাদেশি গরু রাখাল আলতাফ হোসেনের লাশ ২৬ দিন পর ফেরত দিয়েছে বিএসএফ। মৃত্যুর প্রায় ৪ সপ্তাহ পরে লাশ ফিরে পেয়ে স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। কলারোয়ার কেঁড়াগাছি সীমান্তের বিপরীতে ভারতের হাকিমপুর হাটখোলা সংলগ্ন সোনাই নদীর তীরে গতকাল শনিবার বিকেলে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ আলতাফের লাশ হস্তান্তর করে। নিহত আলতাফের মামা কবির লাশ সনাক্ত করেন। মাদরা বিজিবি কোম্পানি কমাণ্ড সূত্রে জানা গেছে, সীমান্তের মেইন ১৩ নং পিলারের সাব ৩/৬ আরবি’র সন্নিকটে সোনাই নদীর তীরে গতকাল বিকেল ৫টা ২০ মিনিট থেকে ৬টা পর্যন্ত এ লাশ হস্তান্তর প্রক্রিয়া চলে। লাশ হস্তান্তরকালে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আমুদিয়া বিএসএফ ক্যাম্পের কমাণ্ডার বিবি সিংসহ ১৫ জন বিএসএফ সদস্য, স্বরূপনগর থানার সাব ইনস্পেক্টর বজলুর রহমান, তারালি পঞ্চাযেত’র উপ-অঞ্চল প্রধান আনিছুদ্দিন প্রমুখ। অপরদিকে বাংলাদেশের পক্ষে মাদরা বিজিবি ক্যাম্পের কমাণ্ডার সুবেদার সুলতান হোসেন, কাকডাঙ্গা বিজিবি ক্যাম্পের নায়েক সুবেদার ইয়াছিন মোল্যাসহ ১০ জন বিজিবি সদস্য, কলারোয়া থানার এএসআই নীতেশ কুমার, কেঁড়াগাছি ইউপি চেয়ারম্যান ভুট্টোলাল গাইন, সাংবাদিক খালেকুজ্জামান পল্টুসহ নিহতের স্বজনেরা। উল্লেখ্য, গত ২ জুলাই ভোরে কলারোয়া উপজেলার কাকডাঙ্গা সীমান্তের বিপরীতে ভারতের বসিরহাট মহকুমার সরূপনগর থানার তারালি এলাকায় গরু নিয়ে ফেরার পথে বিএসএফ’র ছোড়া গুলিতে বাংলাদেশি গরু রাখাল আলতাফ হোসেন (৩০) ঘটনাস্থলেই মারা যায়। সে কলারোয়া উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামের ফজলুর রহমানের ছেলে।

 

শ্যামনগরে বসতভিটা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২

শ্যামনগর প্রতিনিধি : শ্যামনগরে বসতভিটার সীমানা পিলার নিয়ে সংঘর্ষে দু’জন আহত হয়েছে। আহতদের শ্যামনগর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গতকাল দুপুর দুইটার দিকে পাতাখালী গ্রামের কেনা গাজীর ছেলে কওছার গাজী, আঃ কাদের, আক্তারসহ অন্যরা তাদের প্রতিবেশী আব্দুল খালেকের দীর্র্ঘদিনের ভোগদখলীয় জমিতে যেয়ে টয়লেট তৈরী করতে যায়। এসময় আব্দুল খালেক ও তার স্ত্রী বাধা দেয়ায় তাদের লোহার রডসহ লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারপিট করা হয়। এসময় আব্দুল খালেকের মাথা ফেটে যাওয়ায় তাকে উদ্ধারে খালেকের বড় ভাই শওকাত গাজী এগিয়ে এলে তাকেও মারপিট করা হয়।

তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ বিষয়ে হাসপাতালের চিকিৎসক আবু মুছা জানান, খালেকের মাথায় ৩টি সেলাই প্রয়োজন হয়েছে। এছাড়া তার হাত ও শরীরের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি অংশে চরম আঘাত লেগেছে।

শিশু অধিকার প্রতিষ্ঠায় ধর্মীয় নেতাদের কর্মশালা

গতকাল সকাল ৯টায় সদর উপজেলার ৩৫টি মসজিদের খতীবের অংশগ্রহণে দিনব্যাপী এক রিফ্রেশার্স প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। ইসলামের আলোকে শিশু অধিকার বিষয়ক খুৎবা গাইডের মসজিদভিত্তিক ব্যবহার শীর্ষক এ কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা শিশু বিষযক কর্মকর্তা শেখ আবু জাফর মোঃ আসিফ ইকবাল। বিশেষ অতিথি ছিলেন পৌর পানেল মেয়র শেখ শফিকুদ্দোলা সাগর, ঝাউডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম ও ইউপি সদস্য মফিজুল ইসলাম। এতে সভাপতিত্ব করেন মানব কল্যাণ সংস্থার নির্বাহী পরিচালক আবুল হোসেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

পাটকেলঘাটায় জামাতের সেমিনার

পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি : একটি কল্যাণকর ও আদর্শ রাষ্ট্র গঠনে সঠিকভাবে যাকাত আদায়ের বিকল্প নেই। যাকাত হচ্ছে ইসলামী রাষ্ট্রের আয়ের প্রধান উৎস। ইসলামী রাষ্ট্রের আয়ের অর্থনৈতিক বুনিয়াদ যাকাতের উপর নির্ভর করে। যাকাত ধনীদের জন্য অবশ্যই পালনীয় এবং গরীবদের অধিকার বলে ঘোষণা করা হয়েছে। আর এ অধিকার সংরক্ষণের দায়িত্ব ইসলামী সরকারের উপর ন্যাস্ত করা হয়েছে। যাকাত হচ্ছে অর্থনৈতিক নিরাপত্তার প্রধান ভিত্তি। ইসলামী সমাজ ও রাষ্ট্রে অর্থনৈতিক নিরাপত্তা বিধানে যাকাতের ভূমিকা অপরিসীম। যাকাতের মাধ্যমে সব অভাবগ্রস্ত, দুর্দশাগ্রস্ত, মানুষের অভাব দূর করে এবং অর্থনৈতিকভাবে পুনর্বাসন করা সম্ভব। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ও তালা-কলারোয়া আসনের নমিনী অধ্যক্ষ ইজ্জত উল্লাহ গতকাল বেলা ২টায় পাটকেলঘাটার আল-আমিন মাদ্রাসা অডিটরিয়ামে থানা জামায়াত আয়োজিত কল্যাণ রাষ্ট্র গঠনে যাকাত ও উশরের ভূমিকা শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। থানা আমীর অধ্যাপক গাজী সুজায়েত আলীর সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি অধ্যাপক ইদ্রিস আলীর পরিচালনায় উক্ত সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জেলা জামায়াতের সহকারি সেক্রেটারি ও সাতক্ষীরা সিটি কলেজের উপাধ্যক্ষ শহিদুল ইসলাম মুকুল। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা জামাতের সেক্রেটারি শেখ নুরুল হুদা, তালা উপজেলা আমীর ডা. মাহমুদুল হক, আল-আমিন মাদ্রাসা অধ্যক্ষ একেএম মমতাজ উদ্দীন, শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের জেলা সেক্রেটারি অধ্যক্ষ আব্দুর রহিম, ছাত্রশিবিরের সাতক্ষীরা শহর সভাপতি খোরশেদ আলম, খলিষখালী ইউনিয়ন ইউপি চেয়ারম্যান হাজী সুলতান আহম্মেদ প্রমুখ।

আউশ ধানের এক্সপ্রোজার ভিজিট

সদর উপজেলার পার-কুখরালী গ্রামে গত ২৫ জুলই আউশ ধানের এক্সপ্রোজার ভিজিট অনুষ্ঠিত হয়। ভিজিটে সদর ও কালিগঞ্জ উপজেলার ১০০ জন কৃষক অংশগ্রহণ করে।

এক্সপ্রোজার ভিজিটে কৃষকদের সাথে মতবিনিময় করেন সিসা- ইরি প্রকল্পের ক্রপিং  সিসটেম   স্পেশালিস্ট ড. হারুন-অর রশিদ, দেবব্রত মহলদার, এলানুজামান ও আব্দুর রাজ্জাক। প্রেস বিজ্ঞপ্তি