শ্যামনগরে পুলিশের নোটিশ পেয়ে অভিযোগকারীকে পেটালো দুর্বৃত্তরা


প্রকাশিত : জুলাই ৩১, ২০১২ ||

শ্যামনগর প্রতিনিধি : জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশের নোটিশ পেয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে আসামিপক্ষ অভিযোগকারী এক বৃদ্ধকে পিটিয়েছে। এ ঘটনায় থানায় আরও একটি অভিযোগ করে সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে ক্ষতিগ্রস্ত ঐ পরিবারের পুরুষ সদস্যরা।

জানা যায়, উপজেলার পাতড়াখোলা পল্লীর মাজেদ গাজীর ভোগদখলীয় একটি জমি নিয়ে পার্শ্ববর্তী ধুমঘাট পাঁচশত বিঘা এলাকার বাবর আলী ও তার ভাই সৈয়দ আলী মল্লিকসহ নুর ইসলাম ও মোশারফ গাজীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। বিবাদমান উভয় পক্ষ উক্ত সম্পত্তির মালিকানা নিয়ে অনেক আগে থেকেই আদালতেরও দারস্ত হয়। এক পর্যায়ে মামলার নিস্পত্তি কিংবা পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উক্ত জমির স্থিতিবস্তা বজায় রাখার নির্দেশ দেয় বিজ্ঞ আদালত। অভিযোগ উঠেছে কোন কৌশলেই জমির উপর নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করতে না পেরে বাবর আলীসহ তার সহযোগীরা গত দুই সপ্তাহ আগে ভাড়াটে লাঠিয়াল বাহিনী নিয়ে ঐ জমিতে হামলা চালায়। এসময় হামলাকারীরা উক্ত জমিতে আব্দুল মাজেদ কর্তৃক আঠার বছর ধরে গড়ে তোলা কয়েকটি স্থাপনা ধ্বংস করাসহ শতাধিক ফলজ ও বনজ গাছ কেটে সাবাড় করে।

জানা যায়, ভোগ দখলীয় জমি জবর দখল করার ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি পাতড়াখোলা গ্রামের সুলতান গাজীর ছেলে আব্দুল মাজেদ আদালতের নির্দেশ রক্ষার আবেদন এবং জোরপূর্বক ঐ জমি দখলের বিষয়ে শ্যামনগর থানায় বাবর আলী, সৈয়দ আলী, নুর ইসলাম, মোশরফ হোসেন গাজী, রবিউল ইসলাম, আজিজুল ও রেজাউলকে অভিযুক্ত করে শ্যামনগর থানায় লিখিত অভিযোগ করে।

জানা গেছে, অভিযোগ পেয়ে শ্যামনগর থানার অফিসার ইনচার্জ অভিযোগ তদন্তের ভারার্পণ করেন এএসআই আল মামুনের উপর। এএসআই মামুন গত ২৮ জুলাই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুপক্ষকে আগামী ১ জুলাই শ্যামনগর থানায় ডেকে পাঠান। সেজন্য দু’পক্ষকে নোটিশ পর্যন্ত পাঠানো হয়। কিন্তু প্রতিপক্ষের থানা পুলিশ করার মত সাহস দেখে দখলবাঁজরা গত রবিবার সকালে আব্দুল মাজেদকে রাস্তায় আটকে বেদম মারপিট করে। আব্দুল মাজেদ অভিযোগ করে বলেন, রবিবার ভেটখালী মাছের আড়ৎ-এ সাছ বিক্রি বাড়ি ফেরার পথে মোশারফ, বাবর, সৈয়দ আলী, নুর ইসলাম, রবিউল, আজিজুল, রেজাউল ও এনামুল তার উপর হামলা করে। এসময় দুবৃর্ত্তরা তার নিকট থেকে সাইকেল, দস্তার হাড়িসহ মাছ বিক্রির টাকা ছিনিয়ে নেওযার পাশাপাশি তাকে হত্যার চেষ্টা চালায় বলেও তিনি অভিযোগ করেন। দীর্ঘদিনের ভোগদখলীয় জমির নিয়ন্ত্রণ হারানোর পর প্রতিপক্ষেও সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়ে আব্দুল মাজেদ গত ২৯ জুলাই রাতে ফের শ্যামনগর থানায় একটি এজাহার দাখিল করেছেন।