দেবহাটায় ইভটিজিংয়ে বাঁধা দেয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত ৬, সড়ক অবরোধ


প্রকাশিত : আগস্ট ২৩, ২০১২ ||

দেবহাটা প্রতিনিধি: দেবহাটায় বোন ও ভাইজিকে ইভটিজিং করার সময় বাঁধা দেয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে ৬ জন গুরুতর আহত হয়েছে। পরে ইভটিজিং ও সংঘর্ষের সাথে জড়িতদের দ্রুত শাস্তির দাবিতে ঘন্টাব্যাপী সখিপুর-দেবহাটা সড়ক অবরোধ করে রাখে স্থানীয়রা। প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, উপজেলার সখিপুর ইউনিয়নের মাঘরী গ্রামের আঃ রব লিটু’র দুই বোন, ভাইজী এবং তিন বছরের শিশু কন্যা গতকাল দুপুরে দেবহাটার ঐতিহ্যবাহী বনবিবি (বটগাছ) দেখতে গেলে সেখানে স্থানীয় কয়েকজন বখাটে তাদের সম্পর্কে বিভিন্ন কটুক্তি করতে থাকে। একপর্যায়ে তারা অতিষ্ঠ হয়ে মোবাইল ফোনে বাড়িতে খবর দিলে প্রথমে তাদের মামাতো ভাই মাঘরী গ্রামের মজিবুর রহমানের পুত্র আশিকুর রহমান রানা ও তার সাথে থাকা একই গ্রামের টুকু শেখের পুত্র হযরত সেখানে গিয়ে প্রতিবাদ করলে বখাটে রিপন, জামির, খোরশেদ, স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নাইট গার্ড মনি, দেবহাটার কলেজ এলাকার তালিকাভুক্ত গাঁজা বিক্রেতা জুম্মানসহ অজ্ঞাত ২৫/৩০ জন অতর্কিতভাবে দাঁ, বাশ ও কাঠের লাঠি, সাবল নিয়ে হামলা চালায়। এসময় আশিকুর রহমান রানা, হযরত এবং ইভটিজিংয়ের শিকার হওয়া মেয়ে ও তাদের সাথে থাকা তিন বছরের শিশুকন্যা গুরুতর আহত হয়। এদিকে মারামারির খবর পেয়ে মাঘরী গ্রামের ইয়াদ আলীর পুত্র আনিছুর রহমান, ছাত্রলীগ কর্মী হাবিবুর রহমান সবুজ, হাফিজুর রহমান হাফিজ, শাহজান কারিকারের পুত্র তানভীর ও ইউপি সদস্য স্বপন কুমার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ঠেকাতে গেলে তাদের ওপরেও হামলা চালায় ইভটিজার ও তাদের সহযোগীরা। এসময় ছাত্রলীগ কর্মী হাবিবুর রহমান সবুজ তাদের দায়ের কোঁপে আহত হয়। এসময় গুরুতর আহত অবস্থায় আশিকুর রহমান রানা, হাবিবুর রহমান সবুজ ও আনিছুর রহমানকে দ্রুত সখিপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে এ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে সখিপুর-দেবহাটা সড়ক ঘন্টাব্যাপী অবরোধ করে রাখে স্থানীয় বিক্ষুদ্ধ জনতা। পরে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক’র নির্দেশে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি ঘটনাস্থলে এসে ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে আশ্বস্ত করে অবরোধ তুলে দেন। এ ব্যাপারে দেবহাটা থানার ওসি কাজী দাউদ হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ইভটিজিংয়ে বাঁধা দেয়াকে কেন্দ্র করে হামলা একটি লজ্জাজনক ঘটনা। এঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত আটক করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দেবহাটা থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।