শিক্ষা জাতীয়করণের দাবিতে শিক্ষক কর্মচারীদের বিক্ষোভ সমাবেশ: ৮ দফা দাবিতে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি পেশ


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১২, ২০১২ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: শিক্ষানীতি বাস্তবায়ন, শিক্ষা জাতীয়করণ ও স্বতন্ত্র বেতন স্কেলসহ ৮ দফা দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার সাতক্ষীরায় শিক্ষক-কর্মচারীরা বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে। ৮ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে, স্থায়ী শিক্ষা কমিশন ও বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের জন্য স্বতন্ত্র কমিশন গঠন এবং সর্বস্তরের শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন কাঠামো প্রবর্তন, বর্তমান জাতীয় স্কেলে এমপিওভুক্ত, বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের চিকিৎসা ভাতা ও বার্ষিক প্রবৃদ্ধি প্রদান, অমর্যাদাকর ১০০ টাকা বাড়ি ভাড়ার পরিবর্তে সরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের অনুরূপ বাড়ি ভাড়া, সরকারি শিক্ষক- কর্মচারীদের ন্যায় পূর্ণ উৎসব ভাতা ও পূর্ণ পেনশন, পদোন্নতি ও পদোন্নতির ক্ষেত্রে অনুপাত প্রথা বিলোপ, টাইম স্কেল চালু ও মাধ্যমিক স্তরে বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক নিয়োগ।

দাবি আদায়ের লক্ষ্যে সাতক্ষীরা শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কে কেন্দ্রীয় শহীদ মীনার চত্বরে সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় শিক্ষক কর্মচারী ফ্রন্ট সাতক্ষীরা জেলা শাখার আহবায়ক অধ্যক্ষ ইউনুস আলী। বক্তব্য রাখেন, ফ্রন্টের জেলা শাখার যুগ্ম আহবায়ক রেজাউল করিম, অধ্যক্ষ আব্দুর রহমান, অধ্যক্ষ খান আশরাফ আলী, আব্দুল ওহাব আজাদ, প্রধান সমন্বয়কারী এ আর এম মোবাশ্বেরুল হক জ্যোতি, যুগ্ম সমন্বয়কারী বিএম শামসুল হক, আশাশুনির প্রধান সমন্বয়কারী নীল কণ্ঠ সোম, দেবহাটা উপজেলা আহবায়ক অধ্যক্ষ রিয়াজুল ইসলাম, কালিগঞ্জের ওয়াজেদ আলী, তালার যুগ্ম আহবায়ক মোস্তফা কামরুজ্জামান, কলারোয়ার আহবায়ক আব্দুর রউফ, শ্যামনগরের আহবায়ক আব্দুল ওয়াহেদ, সদরের আহবায়ক মনিরুল ইসলাম,অধ্যাপক মইনুল হাসান, শিক্ষক নজিবুল ইসলাম, দিপংকর বিশ্বাস, মোমিনুর রহমান মুকুল, বাকি বিল্লাহ, আব্দুল্লাহ, চন্দ্র শেখর দাস, জেলা লাইব্রেরিয়ান এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হাফিজুর রহমান প্রমুখ। সমাবেশ পরিচালনা করেন জাতীয় শিক্ষক কর্মচারী ফ্রন্টের জেলা সমন্বয়কারী এআরএম মোবাশ্বেরুল হক জ্যোতি। সমাবেশে অংশ নিতে জেলার ৭ উপজেলা থেকে শিক্ষক কর্মচারীরা এসে জড়ো হয় শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কে। সকাল ৯টায় কর্মসূচি শুরু হয়। শিক্ষক কর্মচারীদের মিলন মেলায় পরিণত হয় রাজ্জাক পার্ক। বেলার বাড়ার সাথে সাথে উপস্থিতিও বাড়তে থাকে। সমাবেশ শেষে শিক্ষক-কর্মচারীরা মিছিল বের করে। দাবি আদায়ের লক্ষ্যে সে­াগানে সে­াগানে মুখরিত মিছিলটি শহরের পাকাপুল, নিউ মার্কেট হয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশ করেন শিক্ষক নেতারা। স্মারকলিপিতে ৮ দফা দাবির পাশাপাশি শিক্ষার উন্নয়নে ৭ দফা সুপারিশ করা হয়। সুপারিশগুলো হলো, শ্রেণিকক্ষে শিক্ষকদের পাঠদান উন্নয়ন পর্যবেক্ষণ, পরীক্ষা ও মূল্যায়ন ব্যবস্থা এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির সংস্কার, শিক্ষার্থীদের পাঠ্যক্রম ও শিক্ষকদের শিক্ষণক্রম প্রণয়ন, প্রাক পেশা ও পেশাকালীন অব্যাহত প্রশিক্ষণ, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার সম্প্রসারণে বরাদ্ধ বৃদ্ধি, ঝরে পড়া রোধে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের গরম খাবারের ব্যবস্থা, শিক্ষা উপকরণের মূল্য কমানো ইত্যাদি।